চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়

কর্মীকে মারধরের জেরে ছাত্রলীগের দু’গ্রুপে উত্তেজনা

চবি সংবাদদাতা

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রলীগের দুটি গ্রুপ ‘সিক্সটি নাইন’ ও ‘ভিএক্স’ এর মধ্যে উত্তেজনা বিরাজ করেছে। বৃহস্পতিবার সকালে ভিএক্স গ্রুপের অনুসারীরা বিশ্ববিদ্যালয় শহীদ মিনার চত্বরে মাহমুদ হাসান নামে সিক্সটি নাইন গ্রুপের এক কর্মীকে মারধর করলে উত্তেজনার সৃষ্টি হয়।
মারধরের শিকার ছাত্রলীগ কর্মী লোকপ্রশাসন বিভাগের ২০১৫-১৬ শিক্ষাবর্ষের ছাত্র বলে জানা গেছে।
সূত্র জানায়, চবি কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার চত্বরের সামনে কোনো কারণ ছাড়াই ভিএক্স গ্রুপের ১০ থেকে ১২ জন কর্মী মিলে মাহমুদ হাসানকে মারধর করেন। পরে পুলিশ সদস্যরা গিয়ে তাকে উদ্ধার করে। এ ঘটনার জেরে দু’পক্ষের নেতা-কর্মীরা সংগঠিত হয়ে দুটি হলের সামনে জড়ো হতে থাকে। সিএক্সটি নাইন গ্রুপ জড়ো হয় শাহজালাল হলের সামনে। ভিএক্স গ্রুপ অবস’ান নেয় সোহরাওয়ার্দী হলের সামনে। খবর পেয়ে পুলিশ ও প্রক্টোরিয়াল বডির সদস্যরা ঘটনাস’লে উপসি’ত হয়ে পরিসি’তি নিয়ন্ত্রণে আনলে ক্যাম্পাসে উত্তেজনা কিছুটা কমে আসে।
মুখোমুখি দুটি গ্রুপই নগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও বর্তমান সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীনের অনুগত হিসেবে ক্যাম্পাসে পরিচিত। সিএক্সটি নাইন গ্রুপের নেতৃত্বে রয়েছেন চবি ছাত্রলীগের স’গিত কমিটির যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক আবু তোরাব পরশ (বহিষ্কৃত) এবং ভিএক্সের নেতৃত্বে রয়েছে স’গিত কমিটির উপ-দপ্তর বিষয়ক সম্পাদক মিজানুর রহমান বিপুল (বহিষ্কৃত)।
এ ঘটনাকে পূর্বপরিকল্পিত উল্লেখ করে আবু তোরাব পরশ বলেন, ‘ছাত্রলীগ নেতা শাহীনের ওপর হামলাকারী ও বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বহিষ্কৃত ভিএক্স কর্মী আনোয়ারসহ ১০ থেকে ১২ জন মিলে আমাদের কর্মী মাহমুদকে একা পেয়ে বেধড়ক মারধর করে। এ ঘটনায় আমরা প্রক্টর কার্যালয়ে লিখিত অভিযোগ দিয়েছি।’
ভিএক্স পক্ষের নেতা ও স’গিত কমিটির সহসভাপতি রাশেদ হোসাইন বলেন, ‘জুনিয়রদের মধ্যে একটু ঝামেলা হয়েছিল। সিনিয়ররা বসে বিষয়টি মীমাংসা করে দিয়েছি। তবে, বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে বলে দিয়েছি, যারা এসব ঘটনার সাথে জড়িত, তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস’া নেওয়ার জন্য।’
ঘটনার বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী প্রক্টর মিজানুর রহমান সুপ্রভাতকে বলেন, ‘আমরা হলে গিয়ে দু’পক্ষের সাথে কথা বলছি। পরিসি’তি শান্ত রয়েছে। মারধরের বিষয়ে লিখিত অভিযোগ দিতে বলা হয়েছে। দুই হলে তল্লাশি চালিয়ে কিছু দেশীয় অস্ত্র ও এক বস্তা পাথর উদ্ধার করা হয়েছে।’ি