নগর ছাত্রলীগ

৭ মাসের মাথায় ঐক্যে ফাটল!

সালাহ উদ্দিন সায়েম

৭ মাসের মাথায় ঐক্যে ফাটল ধরেছে চট্টগ্রাম নগর ছাত্রলীগের। নগর আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি মরহুম এবিএম মহিউদ্দিন চৌধুরী ও সাধারণ সম্পাদক আ জ ম নাছির উদ্দীনের অনুসারী ছাত্রলীগের দুটি পক্ষের মধ্যে আবার দূরত্ব সৃষ্টি হয়েছে। গতকাল সন্ধ্যায় দারুল ফজল মার্কেট দলীয় কার্যালয়ে নগর ছাত্রলীগের সভায় অংশ নেয়নি মেয়র নাছিরের পক্ষের নেতারা। এতে সংগঠনটির দুই পক্ষের মধ্যে বিরোধ আবার দৃশ্যমান হয়েছে।
দলীয় সূত্রে জানা গেছে, চট্টগ্রাম কলেজের ঘোষিত কমিটি নিয়ে নগর ছাত্রলীগের দুটি পক্ষের মধ্যে বিরোধ আবার দানা বেঁধেছে।
গত বছরের ১৭ সেপ্টেম্বর চট্টগ্রাম কলেজ শাখার ২৫ সদস্যের কমিটি ঘোষণা করে নগর ছাত্রলীগের সভাপতি ইমরান আহমেদ ইমু ও ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক জাকারিয়া দস্তগীর। এ কমিটি নিয়ে অসন’ষ্ট ও ক্ষুদ্ধ হয়ে উঠে মেয়র নাছিরের পক্ষের ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। এক সপ্তাহ ধরে তারা ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ করে।
এই বিরোধের জের ধরে গতকাল নগর ছাত্রলীগের সভায় অংশ নেয়নি সংগঠনটির ওই পক্ষের নেতারা।
২১ ফেব্রুয়ারি উপলক্ষে কর্মসূচি আয়োজনের বিষয়ে এই সভা আহ্বান করে নগর ছাত্রলীগ। রোববার রাতে নগর ছাত্রলীগের সভাপতি ইমরান আহমেদ ইমু এই সভা আয়োজনের ঘোষণা দেয়।
সভায় অংশ না নেওয়ার বিষয়ে নগর ছাত্রলীগের অপর পক্ষের নেতা রেজাউল আলম রনি সুপ্রভাতকে বলেন, ‘গত রমজান মাসের ইফতার মাহফিলে বিরোধ ভুলে আমরা এক হয়েছিলাম। কিন’ সংগঠনের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক চট্টগ্রাম কলেজে অসাংগঠনিকভাবে বিতর্কিত কমিটি ঘোষণা করায় তাদের সাথে আমাদের আবার দূরত্ব সৃষ্টি হয়েছে। তাই আমরা সভায় অংশ নিইনি।’
জানতে চাইলে নগর ছাত্রলীগের সভাপতি ইমরান আহমেদ ইমু এ নিয়ে কোনো মন্তব্য করতে রাজি হয়নি।
উল্লেখ্য, ২০১৩ সালের ৩০ অক্টোবর নগর ছাত্রলীগের কমিটি গঠনের পর সংগঠনটির মধ্যে বিরোধ সৃষ্টি হয়। এবিএম মহিউদ্দিন চৌধুরী ও আ জ ম নাছির উদ্দীনের অনুসারীরা দুই মেরুতে অবস’ান নেয়। দু’পক্ষের নেতাকর্মীরা পৃথকভাবে সাংগঠনিক কর্মসূচি পালন করে। গত বছরের মে মাসে রমজানের ইফতার মাহফিল ঘিরে এক মেরুতে আসে দুপক্ষের নেতাকর্মীরা। কিন’ বেশিদিন ঐক্যের বৃত্তে থাকতে পারল না দুপক্ষ।