শেখ হাসিনাকে ডাকসুর আজীবন সদস্য করার প্রস্তাব, নূরের ভিন্নমত

২৮ বছরের পর ডাকসুর যাত্রা

সুপ্রভাত ডেস্ক

বহু প্রতীক্ষা আর আন্দোলনের পর ২৮ বছরের বন্ধ্যাত্ব ঘুচিয়ে নতুন করে যাত্রা শুরু হল ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ-ডাকসুর। নবনির্বাচিত প্রতিনিধিদের নিয়ে গতকাল সকালে ডাকসু ভবনে আনুষ্ঠানিকভাবে প্রথম বৈঠকে বসেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক আখতারুজ্জামান, যিনি পদাধিকার বলে এই ছাত্র সংসদের সভাপতি। খবর বিডিনিউজের।
তবে ডাকসু নেতারা যখন বৈঠক করছিলেন, সে সময় ডাকসু নির্বাচনে অনিয়ম ও কারচুপির প্রতিবাদ জানিয়ে পাশেই মিছিল করেন ভোটবর্জনকারী কয়েকটি সংগঠনের নেতাকর্মীরা। আরেক দল টিএসসির রাজু ভাস্কর্যে দেখান ‘লাল কার্ড’।
পূর্বনির্ধারিত সূচি অনুযায়ী সকাল ১১টায় কয়েকজন নির্বাচিত সম্পাদককে সাথে নিয়ে ডাকসুর দ্বিতীয় তলায় বৈঠক স’লে আসেন নবনির্বাচিত এজিএস সাদ্দাম হোসেন। তার পরেই চারজন শুভাকাঙ্ক্ষীর সহায়তায় হুইল চেয়ারে চেপে সেখানে পৌঁছান ডাকসুর নির্বাচিত সদস্য যোশীয় সাংমা চিবল। এরপর একে একে আসেন ডাকসুর সভাপতি অধ্যাপক আখতারুজ্জামান, জিএস গোলাম রাব্বানী। সবশেষে আসেন ভিপি নুরুল হক নূর। ছবি তোলার জন্য সাংবাদিকদের সুযোগ করে দিয়ে বেলা সাড়ে ১১টায় শুরু হয় ডাকসুর রুদ্ধদ্বার বৈঠক।
ডাকসুর বৈঠকের শুরুতে ’৫২ ভাষা আন্দোলন থেকে শুরু করে ’৯০-এর স্বৈরাচারবিরোধী আন্দোলনের শহীদ, ’৭১ এর মুক্তিযুদ্ধের শহীদ, ’৭৫ এর ১৫ অগাস্ট শহীদ হওয়া বঙ্গবন্ধু ও তার পরিবারের সদস্যদের প্রতি সম্মান জানিয়ে এক মিনিট নীরবতা পালন করা হয়।
দীর্ঘ আড়াই ঘণ্টার বৈঠক শেষে নানরুটি,

কমলা, আঙ্গুর ও কোমল পানীয় দিয়ে নাস্তা করে ডাকসু ভবনের নিচে সাংবাদিকদের সামনে আসেন উপাচার্য অধ্যাপক আখতারুজ্জামান, ভিপি নুরুল হক নূর ও জিএস গোলাম রাব্বানীসহ অন্য নেতারা। প্রথম বৈঠকেই যে বিভিন্ন বিষয়ে মতবিরোধ হয়েছে, তা ফুটে ওঠে কিছুক্ষণের মধ্যেই।
অত্যন্ত সৌহার্দ্যপূর্ণ আলোচনা হয়েছে বলে উপাচার্য আখতারুজ্জামান বক্তব্যের শুরুতেই সাংবাদিকদের জানালেও তার মুখে হাসি ছিল না। এ সময় এক সাংবাদিক জানতে চান-এত ভালো আলোচনা হলে আপনার মুখে হাসি নেই কেন?
জবাবে আখতারুজ্জামন বলেন, ‘ভিপি, জিএসসহ ডাকসুর কার্যকরী পর্ষদের ২৫ জন সদস্য নিয়ে প্রথম সভার মধ্য দিয়ে নতুন পর্ষদ যাত্রা শুরু করল। বৈঠকে তাদের আলাপচারিতা ও বক্তব্য ছিল অনেক আশাপ্রদ। তারা অত্যন্ত বন্ধুসুলভ ও সৌহার্দ্যপূর্ণ পরিবেশে বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আলোচনা করেছে।
‘আজ থেকে কার্যক্রম শুরু হল। এই সময়ের মধ্যে বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্য ভালো কিছু করা ও উত্তম কিছু করার জন্য তারা ভূমিকা রাখবে। প্রায় ২৫ জনই বক্তব্য রেখেছে। তাদের বক্তব্যে অনেক যুক্তি-তর্ক দেখেছি। ভালো নাগরিক হিসাবে গড়ে উঠার বৈশিষ্ট্য দেখেছি। মনে হয়েছে, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ৪৩ হাজার শিক্ষার্থীরা যোগ্য মানুষদেরই প্রতিনিধি হিসাবে বেছে নিয়েছে।’
বাংলাদেশের রাজনৈতিক ইতিহাসের সবগুলো বাঁকে ছাত্র সমাজের অগ্রণী ভূমিকার কেন্দ্রে থাকা ডাকসুর সর্বশেষ নির্বাচন হয়েছিল ১৯৯০ সালে। এরপর কয়েক দফায় নির্বাচনের উদ্যোগ নেওয়া হলেও তা আলোর মুখ দেখেনি।
ডাকসু নির্বাচনের দাবিতে বিভিন্ন সময়ে আন্দোলন করেছে ছাত্র সংগঠনগুলো। সাধারণ শিক্ষার্থীরাও নেমেছে মাঠে। এই নির্বাচন অনুষ্ঠানে আবেদন হলে গত বছর আদালত এই মার্চের মধ্যে ভোট আয়োজনের সময় বেঁধে দেয়। এরপর নির্বাচনের উদ্যোগ নেয় বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।
গত ১১ মার্চের ওই ভোটে ডাকসুর ২৫টি পদের মধ্যে ভিপি ও সমাজসেবা সম্পাদক ছাড়া বাকি পদগুলোতে জয়ী হয় ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের ছাত্র সংগঠন ছাত্রলীগের প্যানেল। অনিয়ম ও কারচুপির অভিযোগ তুলে ভোট শেষ হওয়ার এক ঘণ্টা নির্বাচন বর্জনের ঘোষণা দেয় অধিকাংশ প্যানেল।
বর্জনের মধ্যেও কোটা সংস্কার আন্দোলনকারীদের প্যানেল বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের নেতা নুরুল হক নূর ডাকসুর ভিপি নির্বাচিত হন, সমাজসেবা সম্পাদক পদে জয়ী হন একই প্যানেলের আখতার হোসেন। নূর ভিপি হিসেবে দায়িত্ব নিলেও পুনর্নির্বাচনের দাবিকেও সমর্থন করছেন।
ডাকসুর বৈঠক শুরু হওয়ার কিছুক্ষণ পরই নির্বাচনের ফল বাতিল ও নতুন নির্বাচনের দাবিতে ক্যাম্পাসে কালো ব্যাজ পরে মৌন মিছিল করে ভোট বর্জনকারী জাতীয়তাবাদী ছাত্রদল। আরেক ভোট বর্জনকারী সংগঠন ছাত্র ফেডারেশন ডাকসুর সামনে প্ল্যাকার্ড নিয়ে অবস’ান করে পুননির্বাচনের দাবি জানায়। সে সময় টিএসসির রাজু ভাস্কর্যে ডাকসুর এই নেতাদের ‘লাল কার্ড’ দেখায় ছাত্র ইউনিয়ন।
উপাচার্যের কথা শেষ হওয়ার পর সাংবাদিকরা ভিপি নূরের বক্তব্য জানতে চাইলে জিএস গোলাম রাব্বানী বলেন, ‘বৈঠকের আলোচনা সম্পর্কে বলতে আমাকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে।’
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ডাকসুর আজীবন সদস্য করা, দেড় থেকে দুই মাসের মধ্যে অভিষেক অনুষ্ঠান আয়োজন করা, ক্যাম্পাসে গণপরিবহন চলাচল নিষিদ্ধ করা, রিকশা ও সাইকেলের জন্য পৃথক লেন, একমুখী চলাচল, গণরুম ও গেস্টরুম সংস্কৃতি বিলোপ, হলে অবৈধভাবে অবস’ানকারী বহিরাগতদের বের করা এবং মেধার ভিত্তিতে সিট বরাদ্দের বিষয়ে বৈঠকে আলোচনা হয়েছে বলে ডাকসু নেতারা জানান।
প্রধানমন্ত্রীর সদস্যপদের বিষয়ে ভিপি নূর ছাড়া সবাই একমত হয়েছে বলে রাব্বানী দাবি করলেও নূর বলছেন, তার প্যানেল থেকে নির্বাচিত আখতার হোসেনও এই প্রস্তাবের বিরোধিতা করেছেন।
আপত্তির কারণ হিসেবে নূর বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী রাষ্ট্রের সর্বোচ্চ নির্বাহী প্রধান। এখানে ডাকসুর আজীবন সদস্যপদ দেওয়াটা তার জন্য বড় কিছু নয়। যেহেতু এই নির্বাচনটি সার্বজনীনভাবে সব শিক্ষার্থীদের কাছে গ্রহণযোগ্য হয়নি। একটি অংশ এই নির্বাচন বর্জন করেছে। আটজন শিক্ষক, যারা একেবারেই নিরপেক্ষ, তারা এই নির্বাচন পর্যবেক্ষণ করে এখানে অনিয়মের কথা বলেছেন। সুতরাং এই বিতর্কিত নির্বাচনে চাই না প্রধানমন্ত্রীকে আজীবন সদস্য হিসাবে ঘোষণা করা হোক।’
পরে ‘ভালো’ নির্বাচন হলে প্রধানমন্ত্রীকে আজীবন সদস্য হিসাবে চাইবেন কি না- এ প্রশ্নের উত্তরে নূর বলেন, ‘সেটা নিয়ে অগ্রীম কিছু বলতে চাই না। যখন হবে তখন দেখা যাবে।’
হলগুলোতে গণরুম, গেস্টরুম, মেধার ভিত্তিতে সিট বরাদ্দ ও বহিরাগতদের বের করে দেওয়ার মতো বিষয়গুলো নূর প্রস্তাব করেছিলেন বলে তিনিই সাংবাদিকদের জানিয়েছেন। তবে এ বিষয়ে কিছুই বলেননি ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ও ডাকসুর জিএস রাব্বানী।
পরে ডাকসু নেতারা ধানমন্ডির ৩২ নম্বরে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন ও শিখা চিরন্তণীতে শ্রদ্ধা নিবেদনের জন্য বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি বাসে করে রওয়ানা হন।