২১ মার্চ-’৭১ স্বাধীন বাংলাদেশের পতাকা উত্তোলন আহ্বান

২১ মার্চ স্বাধীন বাংলা ছাত্র সংগ্রাম পরিষদ এক বিবৃতিতে ২৩ মার্চ প্রতিরোধ দিবস পালনের আহ্বান জানায়। তারা সারা দেশে স্বাধীন বাংলাদেশের পতাকা উত্তোলনের আহ্বান জনানসহ আরো অন্যান্য কর্মসূচি ঘোষণা করে। নারায়ণগঞ্জের ছাত্র-জনতা শীতলড়্গ্যার বুকে স্বাধীনতার দাবিতে এক জাহাজ মিছিল বের করে।
ইয়াহিয়া-বঙ্গবন্ধু বৈঠক
২১ মার্চ ইয়াহিয়া-বঙ্গবন্ধুর এক অনির্ধারিত বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। কতিপয় বিষয়ের ব্যাখ্যার জন্য ইয়াহিয়ার আমন্ত্রণে তাজউদ্দিনসহ মুজিব ইয়াহিয়ার সাথে আলোচনায় বসেন। বঙ্গবন্ধু তাঁর বাসভবনের সামনে এক জনসভায় ঘোষণা করেন, দাবি পূরণ না হওয়া পর্যনত্ম আন্দোলন শিথিল হবে না। তিনি এদিন ভাসানীর কাছে দূত পাঠান। এ কে ব্রোহী শেখ মুজিবের সাথে সাড়্গাৎ করেন।
ভুট্টোর ঢাকায় আসা
কড়া প্রহরায় ১৪ জন্য সদস্যসহ ভুট্টো ঢাকায় আসেন। ভুট্টোর আসাকে কেন্দ্র করে ঢাকায় দু’ধরণের সেস্নাগান ও কর্মকা- দেখা যায়। অবাঙালিরা ভুট্টোর পড়্গে সেস্নাগান দেয়। অপর পড়্গ ভুট্টোর গমনপথে ঁ ৭ম পৃষ্ঠার ৭ম কলাম
‘ভুট্টোর মাথায় লাথি মার-বাংলাদেশ স্বাধীন কর’, ‘ভিয়েতনামের পথ ধর-বাংলাদেশ স্বাধীন কর’ সেস্নাগানে রাজপথ মুখরিত করে। প্রচলিত নিয়ম অনুযায়ী পুলিশ প্রহরায় থাকার কথা থাকলেও তিনি সেনাবাহিনীর প্রহরায় হোটেলে অবস’ান করেন। সন্ধ্যায় তিনি ইয়াহিয়ার সাথে বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের বলেন, ‘সব কিছুই ঠিক হয়ে যাবে, আপনাদের কাছে এখন শুধু এটুকুই বলতে পারি।