প্রকৌশলীদের কাজে মেয়রের চরম অসন্তোষ

১৫ দিনের মধ্যে সড়ক মেরামতের নির্দেশ

নিজস্ব প্রতিবেদক
নগরীর আগ্রাবাদ এক্সেস রোডের অবস্থা এখনো বেহাল। বৃষ্টি ও জোয়ারের পানিতে রাস্তা ভেঙে গিয়ে সৃষ্টি হয়েছে বড় বড় গর্তের। আর এসব বড় বড় গর্তের মধ্যে জমে আছে পানি। এতে এ পথ দিয়ে গাড়ি চলাচল ব্যাহত হচ্ছে। রোববার দুপুরে তোলা ছবি -রনী দে
নগরীর আগ্রাবাদ এক্সেস রোডের অবস্থা এখনো বেহাল। বৃষ্টি ও জোয়ারের পানিতে রাস্তা ভেঙে গিয়ে সৃষ্টি হয়েছে বড় বড় গর্তের। আর এসব বড় বড় গর্তের মধ্যে জমে আছে পানি। এতে এ পথ দিয়ে গাড়ি চলাচল ব্যাহত হচ্ছে। রোববার দুপুরে তোলা ছবি -রনী দে

১৫ দিনের মধ্যে নগরীর সকল সড়কে সৃষ্ট গর্ত ও খানা-খন্দ সংস্কার করার জন্য বিভাগীয় প্রকৌশলীদের কঠোর নির্দেশ দিয়েছেন চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন। তিনি বলেন, ‘আগামী ১৫ দিনের মধ্যে সকল সড়কে সৃষ্ট গর্ত ও খানা-খন্দকের চলমান সংস্কার কার্যক্রম সম্পন্ন করতে হবে। সংস্কার প্রকল্পের জন্য দ্রুত টেন্ডার প্রক্রিয়া সম্পন্ন করে বাস্তবায়ন শুরু করতে হবে।’
গতকাল সোমবার সকালে নগর ভবনের কেবি আবদুচ ছাত্তার মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত প্রকৌশল বিভাগের ১৬তম মাসিক সমন্বয় সভায় মেয়র এসব কথা বলেন।
সভায় মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন ভাঙা সড়কের মেরামতে প্রকল্প কাজের ডেভেলপমেন্ট প্রজেক্ট প্রোফর্মা (ডিপিপি) তৈরি করার ক্ষেত্রে দায়িত্বপ্রাপ্ত প্রকৌশলীদের দীর্ঘসূত্রতায় চরম অসন্তোষ প্রকাশ করেন।
মেয়র প্রকৌশলীদের উদ্দেশে প্রশ্ন করেন, ‘প্রকল্প কাজের ডিপিপি তৈরিতে এত দেরি হবে কেন? তিনি এসময় প্রধান প্রকৌশলী লে. কর্নেল মহিউদ্দিন আহমেদকে প্রকল্পের জন্য প্রশাসনিক অনুমোদন নিয়ে ডিপিপি তৈরিতে দায়িত্বপ্রাপ্ত প্রকৌশলীদেরকে সময় বেঁধে দেওয়ার নির্দেশ দেন। তিনি বলেন, ‘মন্ত্রণালয়ে প্রকল্প অনুমোদনে কোন দীর্ঘসূত্রতা হচ্ছে না। কিন’ আমাদের প্রকল্প পাঠাতে দেরি হচ্ছে।’
সভায় আ জ ম নাছির উদ্দীন আরো বলেন, ‘প্রকৌশলীদের দায়িত্ব পালনের উপরই নগরের সিংহভাগ উন্নয়ন ও সিটি করপোরেশনের ভাবমূর্তি নির্ভরশীল। করপোরেশনের লোকবল এবং লজিস্টিক সাপোর্ট কি পরিমাণ রয়েছে; তা নগরবাসীর বিবেচ্য বিষয় নয়। নগরবাসী চায় কাজ। এটিই আমাদের চ্যালেঞ্জ।’
রাস্তায় ধুলাবালিতে নগরবাসীর দুর্ভোগ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘সেবাসংস’া ওয়াসার পাইপ লাইন প্রকল্প বাস্তবায়নের জন্য রাস্তা খোঁড়াখুঁড়ি হচ্ছে। একারণে রাস্তায় নতুন করে ধুলাবালিতে দুর্ভোগে নগরবাসী কষ্ট পাচ্ছে।’
মেয়র এসময় প্রধান পরিচ্ছন্ন কর্মকর্তা শফিকুল মান্নান সিদ্দিকী যীশুকে এ বিষয়টি দ্রুত সমাধানের জন্য নির্দেশনা প্রদান করেন।
প্রধান প্রকৌশলী লে. কর্নেল মহিউদ্দিন আহমেদের সভাপতিত্বে সভায় প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো. সামসুদ্দোহা, তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী রফিকুল ইসলাম, মো. মাহফুজুল হক, আনোয়ার হোছাইন, মনিরুল হুদা এবং সিভিল, যান্ত্রিক, বিদ্যুৎ শাখার দায়িত্বরত নির্বাহী, সহকারী, উপসহকারী প্রকৌশলীরা উপসি’ত ছিলেন।