সিটি গভর্ন্যান্স প্রজেক্টের কর্মশালা

হালিশহরে বায়োগ্যাস প্ল্যান্ট স্থাপনের রিপোর্ট উপস্থাপন

স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের অধীনে জাইকা সাহায্যপুষ্ট সিটি গভর্ন্যান্স প্রজেক্টের এসএফএমপি’র আওতায় ৬ ডিসেম্বর চসিক কেবি আবদুচ ছাত্তার মিলনায়তনে কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়। এতে হালিশহরে বায়োগ্যাস প্ল্যান্ট স্থাপনের ফিজিবিলিটি স্টাডি রিপোর্টসহ বর্জ্য ব্যবস্থাপনা এবং পাবলিক টয়লেট বিষয়ে রিপোর্ট উপস্থাপিত হয়েছে।
গতকাল বুধবার সকালে অনুষ্ঠিত কর্মশালায় প্রধান অতিথি ছিলেন চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের মেয়র আলহাজ আ জ ম নাছির উদ্দীন। চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের প্রধান নির্বাহী মো. সামসুদ্দোহার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয় সেমিনার।
এতে উপস্থিত ছিলেন প্যানেল মেয়র চৌধুরী হাসান মাহমুদ হাসনী, চসিক সচিব মো. আবুল হোসেন, এলজিইডি মন্ত্রণালয় ডিপিডি প্রকৌশলী মঞ্জুরুল ইসলাম, প্রধান শিক্ষা কর্মকর্তা নাজিয়া শিরিন, প্রধান প্রকৌশলী লে. কর্নেল মহিউদ্দিন আহমদ, প্রধান নগর পরিকল্পনাবিদ রেজাউল করিম, ওয়ার্ড কাউন্সিলর, সংরক্ষিত ওয়ার্ড কাউন্সিলরসহ সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাবৃন্দ।
কর্মশালায় বিষয়ের ওপর তথ্য-উপাত্ত তুলে ধরেন সালমা এ শফি, হাসিনা খাতুন, জাহিদ হোসেন, মাসাবাইয়ু তাকাসুজি। প্রধান অতিথি সিটি মেয়র আলহাজ আ জ ম নাছির উদ্দীনের কাছে প্রস্তাবসমূহ তুলে ধরেন তারা।
কর্মশালায় নগরীর হালিশহরের ডাম্পিং স্টেশনের পাশে ২ হেক্টর জায়গার উপর নির্মিতব্য বায়োগ্যাস প্ল্যান্ট স্থাপনের ব্যাপারে প্রস্তুতকৃত ফিজিবিলিটি স্টাডি রিপোর্টটি সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীনকে দেয়া হয়েছে। এ প্ল্যান্টের মাধ্যমে বর্জ্য থেকে উৎপাদিত গ্যাস সিএনজিসহ সম্পর্কিত পরিবহনে ব্যবহার করা যাবে।
ড্রাই (শুকনা) প্রসেসে প্রতি দিনে ২৫ টন ও ওয়েট (আর্দ্র) প্রসেসে ২৫ টন সংগৃহিত বর্জ্য এই প্ল্যান্টের মাধ্যমে বায়োগ্যাসিফিকেশন করা যাবে। প্রকল্পের ব্যয় ধরা হয়েছে ২১ মিলিয়ন মার্কিন ডলার । প্রকল্প বাস্তবায়নের মেয়াদ ২৭ মাস। ৪ বছর মেয়াদী এই প্রকল্প প্রাথমিক পর্যায়ে পাইলট প্ল্যান্ট হিসেবে চালু করা হতে পারে। বিজ্ঞপ্তি