নগরে হরতালের দৃশ্যপট

হাঁকডাক দিয়ে চলেছে যাত্রীবাহী যানবাহন পাঁচ থানা এলাকায় জামায়াতের ঝটিকা মিছিল

নিজস্ব প্রতিবেদক
new-market-area-station-roa

ঘড়ির কাঁটায় তখন সকাল ১১টা। নগরীর ব্যস্ততম এলাকা জিইসি মোড় দিয়ে একের পর এক যাচ্ছিল ভাটিয়ারী, বহদ্দারহাট ও বিশ্ববিদ্যালয় হয়ে আসা নিউমার্কেট ও ইপিজেডগামী যাত্রীবাহী বাস। সিএনজিচালিত অটোরিকশাও ছিল চোখে পড়ার মতো।
তবে এ সড়ক দিয়ে প্রাইভেট কারের যাতায়াত খুব একটা দেখা যায়নি। অন্যদিনে প্রাইভেট কারের কারণে এ এলাকাটিতে যানজট লেগে থাকলেও গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে এখানে এক ঘণ্টা অবস’ান করে দেখা গেছে, সড়ক ছিল যানজটমুক্ত।
দুপুরে সোয়া ১২টার দিকে লালখান বাজার ও কাজীর দেউড়ি মোড় হয়ে নিউ মার্কেট এলাকায় যাওয়ার পথে দেখা গেছে, রাস্তায় প্রাইভেট কারের সংখ্যা ছিল কম। তবে হাঁকডাক করেই চলাচল করেছে যাত্রীবাহী বাসগুলো। বিভিন্ন যানবাহনে করে কর্মস’লে ছুটতে দেখা গেছে কর্মজীবী মানুষজনকে।
খোঁজ নিয়ে জানা যায়, নগরী থেকে বিভিন্ন দূরপাল্লার বাস ছেড়ে গেলেও যাত্রী ছিল কম। চট্টগ্রাম জেলা সড়ক পরিবহন মালিক গ্রুপের মহাসচিব মঞ্জুরুল আলম সুপ্রভাত বাংলাদেশকে এ তথ্য জানান। তবে চট্টগ্রাম রেল স্টেশন থেকে ছেড়ে যাওয়া ট্রেনে যাত্রীর কমতি ছিল না।
জানা যায়, নগরীর ব্যস্ততম সর্ববৃহৎ পাইকারি বাণিজ্যকেন্দ্র খাতুনগঞ্জে দোকানপাট সব খোলা থাকলেও ক্রেতার সংখ্যা ছিল কম। তবে হরতালের মধ্যেও সিইপিজেড ও
কর্ণফুলী ইপিজেডের বিভিন্ন শিল্প কারখানায় শ্রমিকরা যথারীতি কাজ করেছে। চট্টগ্রাম বন্দরে পণ্য ওঠা-নামাও স্বাভাবিক ছিল।
হরতালের কারণে নগরীর অনেক স্কুল -কলেজ বন্ধ ছিল। যেসব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলা ছিল সেগুলোতে ক্লাস-পরীক্ষা হয়নি।
দেখা গেছে, হরতালের ভীতি উপেক্ষা করে নগরের নিউ মার্কেট, কাজীর দেউড়ি অ্যাপোলো শপিং সেন্টার, ভিআইপি টাওয়ার, লালখান বাজার মোড়ের আমীন সেন্টার ও জিইসি মোড়ের সেন্ট্রাল প্লাজা খোলা থাকলেও গতকাল দুপুর পর্যন্ত সেখানে ক্রেতাদের আনাগোনা খুব একটা ছিল না।
দলের আমির, নায়েবে আমির ও সেক্রেটারি জেনারেলসহ শীর্ষ ৮ নেতাকে গ্রেফতারের প্রতিবাদে এবং তাদের মুক্তির দাবিতে জামায়াতে ইসলামীর সকাল-সন্ধ্যা এ হরতালে নগরীর কোথাও কোনো পিকেটিং হয়নি। ফলে কোনো অপ্রীতিকর ঘটনাও ঘটেনি। নগরীর চকবাজার, ডবলমুরিং, খুলশী, সদরঘাট ও আকবর শাহ এলাকায় হাতেগোনা ১০-১৫ জন নেতাকর্মী নিয়ে ঝটিকা মিছিল করেই দায় সেরেছে জামায়াত।
জামায়াত-শিবির নেতা-কর্মীরা আড়ালে থাকলেও হরতালের মাঠে সরব ছিল নগর ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীরা। নগরের বিভিন্ন স’ানে হরতালবিরোধী মিছিল ও সমাবেশ করে তারা।
হরতালে অপ্রীতিকর পরিসি’তি মোকাবেলায় নগরজুড়ে সতর্ক অবস’ানে ছিল পুলিশ।