দেশগ্রামে শোক দিবস

‘স্বাধীন বাংলাদেশের স্থপতি বঙ্গবন্ধু’

দেশগ্রাম ডেস্ক: দেশগ্রামে নানা কর্মসূচির মধ্য দিয়ে জাতীয় শোক দিবস পালিত হচ্ছে। কর্মসূচির মধ্যে ছিল শোকর্যালি,আলোচনা সভা,বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ,চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা ইত্যাদি। সভায় বক্তারা বলেন, ১৯৭৫ সালের এই দিনে আমরা বাঙালি জাতি হারিয়েছি আমাদের গর্ব, আবহমান বাংলা ও বাঙালির সিংহ পুরুষ, স্বাধীন বাংলাদেশের স’পতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে। দেশদ্রোহী খুনিরা বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যা করে তার নাম চিরতরে মুছে ফেলতে চেয়েছিল।

চন্দনাইশ: আমাদের চন্দনাইশ প্রতিনিধি জানায়,চন্দনাইশ উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে যথাযথ মর্যাদা ও ভাবগাম্ভীর্য়ের মধ্যদিয়ে জাতীয় শোক দিবস ও বঙ্গবন্ধুর ৪৩তম শাহাদাত বার্ষিকী পালন করা হয়। সকালে আলহাজ্ব নজরুল ইসলাম চৌধুরী এমপি’র নেতৃত্বে শোকর্যালি বের করা হয়। এসময় উপসি’ত ছিলেন উপজেলা চেয়ারম্যান আবদুল জব্বার চৌধুরী, দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগ সহ-সভাপতি হাবিবুর রহমান, উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি জাহিদুল ইসলাম জাহাঙ্গীর, মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার জাফর আলী হিরু, দক্ষিণ জেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক পার্থ সারথী চৌধুরী, উপজেলা যুবলীগের আহবায়ক মো. তৌহিদুল আলম, যুগ্ম আহবায়ক এএসএম মুছা তছলিম,মুরিদুল আলম মুরাদ। পরে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পনের মধ্যদিয়ে উপজেলা অডিটোরিয়াম হলে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আ.ন.ম. বদরুদ্দোজার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে নজরুল ইসলাম চৌধুরী এমপি বলেন, ১৯৭৫ সালের এই দিনে আমরা বাঙালি জাতি হারিয়েছি আমাদের গর্ব, আবহমান বাংলা ও বাঙালির সিংহ পুরুষ, স্বাধীন বাংলাদেশের স’পতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে। দেশদ্রোহী খুনিরা বঙ্গবন্ধুকে স্বপরিবারে হত্যা করে তার নাম চিরতরে মুছে ফেলতে চেয়েছিল। কিন’ জীবিত মুজিবের চেয়ে মৃত মুজিব অনেক শক্তিশালী হয়ে উঠেছেন। তিনি বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন সুখী, সমৃদ্ধশালী, অসামপ্রদায়িক বাংলাদেশ গড়তে আমরা ঐক্যবদ্ধভাবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পাশে থেকে তার হাতকে শক্তিশালী করতে পারলেই বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়ে তোলা সম্ভব হবে। আলোচনা সভায় উপজেলা আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগসহ অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীসহ উপজেলার বিভিন্ন স্তরের সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীবৃন্দ উপসি’ত ছিলেন। পরে বঙ্গবন্ধুর রুহের মাগফেরাত কামনায় বিশেষ দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। এর আগে পর্যায়ক্রমে উপজেলা প্রশাসন, উপজেলা আওয়ামী লীগ, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ, চন্দনাইশ থানা, চন্দনাইশ পৌরসভা, উপজেলা যুবলীগ, উপজেলা ছাত্রলীগের পক্ষ থেকে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পন করা হয়।

ফটিকছড়ি: আমাদের ফটিকছড়ি প্রতিনিধি জানায়, সমগ্র দেশের ন্যায় ফটিকছড়িতে হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৩তম শাহাদাত বার্ষিকী বিভিন্ন কর্মসূচির মধ্য দিয়ে পালিত হয়েছে। এদিকে সকাল থেকে উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়। কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে, চিত্রাঙ্গন প্রতিযোগিতা ও রচনা প্রতিযোগিতা, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ, দিনব্যাপী কোরআন খতম।এদিকে নাজিরহাট নুরকাজী হালিমিয়া মহিলা মাদ্রাসা, নাজিরহাট জেএম আহমদিয়া মাদ্রাসা, ফটিকছড়ি করোনেশন উচ্চ বিদ্যালয়, ফটিকছড়ি পাইলট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়, হেঁয়াকো বাংলা পাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের চিত্রাঙ্গন প্রতিযোগিতা এবং বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণ করেছে বলে এ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি সাংবাদিক মো. আবু মনসুর এবং শিক্ষকরা জানিয়েছেন। অন্যদিকে ক্ষমতাসীন দল উপজেলা আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে ফটিকছড়ি উপজেলায় ১শ৮ স’ানে বঙ্গবন্ধুর জন্য বঙ্গবন্ধুর শাহাদাত বার্ষিকীতে মিলাদের আয়োজন করেছে করা হয়। এছাড়াও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নাজিম উদ্দিন মুহুরী জানিয়েছেন আগামী ১৭ আগস্ট বঙ্গবন্ধুর শাহাদাত বার্ষিকী উপলক্ষে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হবে। অন্যদিকে ফটিকছড়ি উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে আলোচনা সভা ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা প্রধান নির্বাহী আয়োজনে আলোচনা সভা ও নির্বাহী কর্মকর্তা দীপক কুমার রায়ের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন চট্টগ্রাম উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এবং উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান তৌহিদুল আলম বাবু। উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান এ্যাডভোকেট উত্তম কুমার মহাজন, সাবেক সাবেক উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আফতাব উদ্দিন চৌধুরী,এটিএম পেয়ারুল ইসলাম, ফটিকছড়ি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জাকির হোসেন মাহমুদ, ভুজপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) বায়েছ আলমসহ যুবলীগ ছাত্রলীগ ও অঙ্গ সংগঠনের নেতৃবৃন্দ নেতৃবৃন্দ। সভায় বক্তারা বলেন আজ ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধুর শাহাদাত বার্ষিকী। ঘাতকরা বঙ্গবন্ধুর কন্যা শেখ হাসিনাকে বার বার হত্যার চেষ্টা চালিয়েছে। হত্যাকারীরা বারবার ষড়যন্ত্র করে চলছে।