স্বস্তি-অস্বস্তির বৃষ্টি

নিজস্ব প্রতিবেদক
Havvy-Rain-(3)

গত কয়েকদিনের গরমে হাঁপিয়ে উঠেছিলেন নগরবাসী। গতকাল বুধবার দেশের বিভিন্ন স’ানে হালকা বৃষ্টি শুরু হয়। বাণিজ্যিক রাজধানীতে বৃষ্টি নামে দুপুর দেড়টার দিকে। বিনা মেঘের এই বৃষ্টিতে স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলেছেন বহু মানুষ।
বৃষ্টি হওয়ায় আগের মতো আর গরম ছিল না বিকালের দিকে। তাই কিছুটা হলেও স্বস্তি পান নগরবাসী। রিকশা-গাড়িতে থাকা যাত্রীরা হাত দিয়ে স্পর্শ করছেন বৃষ্টির ফোঁটা।
অন্যদিকে, বৃষ্টির জন্য প্রস’তি না থাকায় ভোগান্তিতেও পড়েন নানা শ্রেণির মানুষজন। অনেকে অনাকাঙ্ক্ষিত বৃষ্টির হাত থেকে বাঁচতে ছুটে চলেন নিরাপদ স’ানে। বৃষ্টির মধ্যে যানজট বাড়তি ভোগান্তি সৃষ্টি করেছে পথচারী ও যাত্রীদের। গন্তব্যে পৌঁছাতে অধিকাংশ যাত্রীরই অবলম্বন ছিল রিকশা। এছাড়া সন্ধ্যার পর ভ্যাপসা গরমেও অস্বস্তিতে পড়েন নগরবাসী।
জাহাঙ্গীর আলম নামের এক ব্যক্তি বলেন, ‘প্রচণ্ড গরমের কারণে হাঁপিয়ে উঠেছিলাম। এখন বৃষ্টিতে একটু স্বস্তি পাচ্ছি। কষ্টও কম মনে হচ্ছে। এই বৃষ্টি খুবই দরকার ছিল।’
হঠাৎ বৃষ্টিতে অস্বস্তির কথা জানান একটি বেসরকারি কোম্পানির মার্কেটিং কর্মকর্তা ফরিদ আহমদ। তিনি বলেন, ‘দুপুরে বৃষ্টিতে ভিজেই কাজ করতে হয়েছে। চকবাজার এলাকার সড়কের বিভিন্ন স’ান পিচ্ছিল হয়ে গেছে। পানিও জমেছে কিছুটা। বৃষ্টিতে জামা-প্যান্ট ভিজে গেছে।’
তবে বৃষ্টিই আবার গরম ডেকে এনেছে বলে অনেকের অভিযোগ। খুরশেদ আলম বলেন, ‘দুপুরে বৃষ্টির পর কিছু স্বস্তি পেয়েছিলাম। কিন’ রাতে আবার গরম পড়তে শুরু করেছে।’
এদিকে বৃষ্টিতে ভেজার ছবি বা বৃষ্টি নিয়ে লেখা অনুভূতি ফেসবুকে পোস্ট করেছেন অনেকে।
গতকাল দুপুরে প্রায় আধ ঘণ্টায় মাত্র শুন্য দশমিক ৬ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত হয়েছে বলে জানিয়েছে চট্টগ্রাম প্রধান আবহাওয়া অফিস। এই অফিসের আবহাওয়াবিদ বিজন রায় সুপ্রভাত বাংলাদেশকে জানান, সকাল ৯টার দিকে তাপমাত্রার পরিমাণ ছিল ২৯ দশমিক ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস। বৃষ্টির পরে দুপুর ৩টায় তা কমে দাঁড়িয়েছে ২৯ ডিগ্রি সেলসিয়াসে।
তিনি বলেন, ‘আজকে (বুধবার) সামান্য বৃষ্টি হয়েছে। সাগরের অবস’া এখনো ভালো যাচ্ছে না। নিম্নচাপের আনাগোনা রয়েছে। তার প্রভাবে এই বৃষ্টিপাত। তবে আগামীকাল (বৃহস্পতিবার) ভারী বৃষ্টিপাতের তেমন সম্ভাবনা নেই।’