ওয়েস্টার্ন মেরিন শিপইয়ার্ডের জাহাজ হস্তান্তর অনুষ্ঠানে অর্থমন্ত্রী

স্থবিরতা কাটিয়ে বিনিয়োগ বাড়ছে

নিজস্ব প্রতিবেদক

অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত বলেছেন, ‘দেশে রাজনৈতিক অসি’রতার কারণে বিনিয়োগে স’বিরতা দেখা দিয়েছিল। তবে বর্তমানে তা কাটিয়ে দিনদিন বিনিয়োগ বাড়ছে।’
গতকাল রোববার দুপুরে কর্ণফুলী এক নম্বর ঘাটে ওয়েস্টার্ন মেরিন শিপইয়ার্ডের নির্মাণকৃত জাহাজ ‘দরিয়া’ হস্তান্তর অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন।
সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, ‘মারামারি-কাটাকাটি, হরতাল হলে বিনিয়োগ বাড়বে কীভাবে? ২০১৫ সাল থেকে এ অবস’া চলে আসছে। বর্তমানে আবার বিনিয়োগে উচ্চগতি ফিরছে। তবে একটু সময় লাগবে।’
প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি আরো বলেন, ‘জাহাজ নির্মাণশিল্প একটি গুরুত্বপূর্ণ সেক্টর। অর্থনৈতিক উন্নয়নে এ সেক্টর ভূমিকা রাখছে। লেদার ও টেক্সটাইল শিল্পের মতো জাহাজ নির্মাণ শিল্প এগিয়ে যাচ্ছে। আমরা আর পেছনে ফিরে যেতে চাই না। সরকার এ খাতে ভর্তুকীসহ অন্যান্য সুবিধা দিয়ে যাচ্ছে।’
এই খাত এগিয়ে নিতে সরকারের পক্ষ থেকে কোনো আলাদা তহবিল গঠন করা হবে কিনা সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে মুহিত জানান, ‘এ রকম চিন্তা-ভাবনা সরকারের নেই। তবে সরকার এ খাতকে উৎসাহিত করছে।’
এর আগে মন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত ফিতা কেটে ও বেলুন উড়িয়ে জাহাজ হস্তান্তর অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন। পরে মন্ত্রী রফতানিকৃত জাহাজ ‘দরিয়া’ পরিদর্শন করেন।
ওয়েস্টার্ন মেরিন শিপইয়ার্ড লিমিটেডের সিনিয়র ম্যানেজার মো. শহিদুল বাশারের সঞ্চালনায় জাহাজ হস্তান্তর অনুষ্ঠানে উপসি’ত ছিলেন- নৌ মন্ত্রণালয়ের সচিব অশোক মাধব রায়, ওয়েস্টার্ন মেরিনের ব্যবস’াপনা পরিচালক মো. সাখাওয়াত হোসেন, কর্মকর্তা সাইফুল ইসলাম, চট্টগ্রামের নেভাল এরিয়ার কমান্ডার রিয়ার অ্যাডমিরাল এম আশরাফুল হক, ব্যাংক এশিয়ার কর্মকর্তা এসএম ইকবাল হোসেন, কেনিয়ার মৎস্য, প্রাণিসম্পদ ও কৃষি মন্ত্রণালয়ের ক্যাবিনেট ও প্রধান সচিবসহ ওয়েস্টার্ন মেরিনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।
প্রতিষ্ঠানটির ব্যবস’াপনা পরিচালক সাখাওয়াত হোসেন বলেন, ‘সরকার এগিয়ে এলে জাহাজ নির্মাণ শিল্প হবে বাংলাদেশের পরবর্তী গন্তব্য। এটাকে আমরা রকেট শিল্প বলবো।’
অনুষ্ঠানে জানানো হয়, প্রথমবারের মতো দেশে নির্মিত অফশোর পেট্রোল ভেসেল ‘দরিয়া’ কেনিয়ায় রফতানি হচ্ছে।
অনুষ্ঠানে কেনিয়ার মৎস্য, প্রাণিসম্পদ ও কৃষি মন্ত্রণালয়ের ব্ল-ইকোনমি উইংয়ের প্রতিনিধির কাছে জাহাজটি হস্তান্তর করা হয়। ৫৪ দশমিক ৭০ মিটার দীর্ঘ জাহাজটি নির্মাণ করেছে ওয়েস্টার্ন মেরিন শিপইয়ার্ড লিমিটেড।
‘দরিয়া’র সার্বিক নির্মাণকাজের তদারকিতে ছিল ক্ল্যাসিফিকেশন সোসাইটি ‘ক্লাস বি ভি’। ২০১২ সালে জাহাজটি নির্মাণে জেজিএইচ মেরিন এ/এস এবং কেনিয়ার মৎস্য, প্রাণিসম্পদ ও কৃষি মন্ত্রণালয়ের ব্লু-ইকোনমি উইংয়ের মধ্যে চুক্তি হয়।
‘দরিয়া’য় একটি হেলিপ্যাডসহ অত্যাধুনিক যন্ত্রপাতি রয়েছে। অটোমেটিক জাহাজটিকে দূরনিয়ন্ত্রণের মাধ্যমে পরিচালনা করা যাবে। ঘণ্টায় ৩৫ নটিক্যাল মাইল বেগে ছুটতে সক্ষম দরিয়া ব্যবহার করবে কেনিয়ার মৎস্য, প্রাণিসম্পদ ও কৃষি মন্ত্রণালয়ের ব্ল ইকোনমি উইং। প্রথমবারের মতো জাহাজটি পানিতে ভাসানোর মধ্য দিয়ে দেশে অফশোর পেট্রোল ভেসেল নির্মাণের মাইলফলক স’াপন হলো বলে মনে করেছেন সংশ্লিষ্টরা।