চার কিশোর গ্রেফতার

স্কুলছাত্রকে অপহরণের পর হত্যাচেষ্টা

নিজস্ব প্রতিবেদক

নগরে দশ লাখ টাকা মুক্তিপণ আদায়ের লক্ষ্যে সপ্তম শ্রেণি পড়-য়া এক স্কুলছাত্রকে অপহরণের পর হত্যাচেষ্টার অভিযোগে চার কিশোরকে গ্রেফতার করেছে সদরঘাট থানা পুলিশ। গ্রেফতারকৃতদের মধ্যে কেউ এসএসসি, কেউ এইচএসসি পরীক্ষার্থী। ঘটনার শিকার ছাত্রের নাম মেহেদী হাসান মিসতাদ। সে পশ্চিম মাদারবাড়ির সেন্ট্রাল পাবলিক স্কুল অ্যান্ড কলেজের সপ্তম শ্রেণির ছাত্র।
গ্রেফতার কিশোররা হলো-ইসলামিয়া কলেজের এইচএসসি প্রথম বর্ষের ছাত্র শাকিল (১৮), মাদারবাড়ি সেন্ট্রাল পাবলিক স্কুল অ্যান্ড কলেজের এসএসসি পরীক্ষার্থী মো. মুক্তাদির রহমান অপি (১৮), পলোগ্রাউন্ড রেলওয়ে বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির ছাত্র শাহিদ আজ-মাঈন সিয়াম (১৮) এবং সরকারি সিটি কলেজের একই শ্রেণির ছাত্র এ আল কিবরিয়া ওরফে তুষার (১৮)।
সদরঘাট থানার ওসি নেজাম উদ্দিন জানিয়েছেন, গত শনিবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে স্কুল থেকে বাসায় ফেরার পথে শুভপুর বাসস্ট্যান্ডের সামনে থেকে চারজনে মিলে মেহেদীকে অপহরণ করে। এরপর কলেজিয়েট স্কুলের পাশে পুকুর পাড়ে নার্সারির পেছনে নিয়ে মেহেদীকে মারধর করে গুরুতর আহত করা হয়। এসময় মেহেদীকে মাটিতে ফেলে গলায় রশি পেঁচিয়ে হত্যা চেষ্টা চালায় অপহরণকারীরা। এক পর্যায়ে শ্বাস বন্ধের উপক্রম হলে অজ্ঞান হয়ে লুটিয়ে পড়ে মেহেদী। এরপর তাকে মৃত ভেবে চলে যায় অপহরণকারীরা।
এরপর মোবাইল ফোনে মেহেদীর মায়ের কাছে ১০ লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি করে অপহরণকারীরা। রাতে জ্ঞান ফেরার পর মেহেদী নিজেই বাসায় চলে যায়। থানায় এজাহার দেয়ার পর রাতেই অভিযান চালিয়ে মেহেদীকে অপহরণের সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে চার কিশোরকে গ্রেফতার করে পুলিশ।
সদরঘাট থানার ওসি মো. নেজাম উদ্দিন আর জানান, মৃত্যুর মুখ থেকে ফিরে মেহেদী অপহরণকারীদের সঙ্গে কথাবার্তা চালিয়ে যায়। রাত আনুমানিক আড়াইটার দিকে মুক্তিপণের টাকা দেয়ার কথা বলে পুলিশ কৌশলে অপহরণকারীদের মধ্যে তিনজনকে ডেকে আনে মাদারবাড়ির বালুর মাঠ এলাকায়। এসময় তাদের গ্রেফতার করা হয়। এরপর তাদের দেওয়া তথ্যমতে গতকাল রোববার ভোরে আরও একজনকে পশ্চিম মাদারবাড়ি থেকে গ্রেফতার করে পুলিশ। এদিকে ঘটনাস’ল থেকে মেহেদীর পরনের প্যান্ট ও পরে স্কুলব্যাগ উদ্ধার করেছে পুলিশ। মারধরে আহত মেহেদী এখন আগ্রাবাদ মা ও শিশু হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে বলে জানিয়েছেন ওসি নেজাম উদ্দিন।