সেন্টমার্টিন দ্বীপের জেটি ধসে পড়ার আশংকা

নিজস্ব প্রতিবেদক, কক্সবাজার

দেশের একমাত্র প্রবালদ্বীপ টেকনাফের সেন্টমার্টিনে নির্মাণের মাত্র ১০ বছর যেতে না যেতেই ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে উঠেছে জেটি। এটি পুনঃসংস্কার করা না হলে যেকোনো সময় বড় ধরনের দুর্ঘটনার আশংকা করছেন পর্যটকসহ স’ানীয়রা। অবশ্য জেলা পরিষদের কর্মকর্তা বলছেন, বিশেষজ্ঞ দল জেটি পরিদর্শন করে গেছে, তাদের মতামতের ভিত্তিতে ব্যবস’া নেয়া হবে।
জানা যায়, প্রবালদ্বীপে ভ্রমণপিপাসু লোকজন ও স’ানীয়দের সুবিধার্থে ২০০৫ সালে তৈরি করা হয় সেন্টমার্টিনের জেটিটি। পর্যটনের ভরা মৌসুমে এদ্বীপে প্রতিদিনই ভ্রমণে আসছেন হাজার হাজার পর্যটক। তারা ট্রলার কিংবা জাহাজ থেকে ওঠানামা করেন এ জেটি দিয়েই। কিন’ নির্মাণের ১০ বছরের মাথায় প্রবল ঢেউয়ের আঘাতে পল্টুনের তিন পাশ সম্পূর্ণ বিধ্বস্ত হয়ে গেছে। মূল জেটির নিচে নতুন করে ফাটল দেখা দিয়েছে। এতে যেকোনো মুহূর্তে জেটিটি ধসে পড়ার আশংকা করছেন সংশ্লিষ্টরা।
দ্রুত জেটিটি পুনঃ মেরামত করা না হলে সেন্টমার্টিনে পর্যটক আসা বন্ধ হয়ে যাবে বলে জানান সেন্টমার্টিন ইউনিয়ন পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান আব্দুর রহমান।
কক্সবাজার জেলা পরিষদের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা খন্দকার জহিরুল ইসলাম জানান, বিশেষজ্ঞ দল ঝুঁকিপূর্ণ জেটিটি পরিদর্শন করে গেছে। তাদের মতামতের ভিত্তিতে ব্যবস’া নেয়া হবে।
পর্যটনের এ মৌসুমে টেকনাফ-সেন্টমার্টিন নৌ-রুটে প্রতিদিন যাতায়াত করছে পর্যটকবাহী ৫টি জাহাজ। আর এতে ৩ থেকে ৫ হাজার পর্যটক আসা যাওয়া করছেন।

আপনার মন্তব্য লিখুন