জোয়ারিয়ানালা এইচ.এম.সাঁচি উচ্চ বিদ্যালয়ে অভিভাবক সমাবেশ

সুশিক্ষা নিশ্চিতে অভিভাবক-শিক্ষকের দায়িত্ব অপরিহার্য : রিয়াজ উল আলম

নিজস্ব প্রতিনিধি, রামু

কক্সবাজারের রামু উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান রিয়াজ উল আলম বলেন, সরকার শিক্ষাবান্ধব। শিক্ষার মান উন্নয়নে সরকার নানা উদ্যোগ হাতে নিয়েছে। শিক্ষাক্ষেত্রে সর্বোচ্চ বরাদ্দ দিচ্ছে। উচ্চ শিক্ষা অর্জনের পাশাপাশি মানবিক গুণাবলি অর্জন করে আদর্শ মানুষ হতে হবে। যোগ্যতা, দক্ষতা, সততা ও মানবিক গুণাবলিতে সমৃদ্ধ হয়ে সমাজকে আলোকিত করতে হবে। তাই শিক্ষার্থীদের মানুষের মত মানুষ হিসেবে গড়ে তুলতে অভিভাবক-শিক্ষক উভয়ের ভূমিকা থাকতে হবে।
তিনি বলেন, উপজেলার প্রতিটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে উন্নয়নের জন্য বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। শিক্ষার্থীদের খেলাধুলার মান উন্নয়নে উপকরণ দেওয়া হয়েছে। ২১ আগস্ট সকাল ১১টায় বেসরকারি কেন্দ্রীয় সংস্থা কোডেকের সহযোগিতায় উগ্রবাদ, সহিংসতামুক্ত সমাজ ও মানসম্মত শিক্ষা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে জোয়ারিয়ানালা এইচ.এম.সাঁচি উচ্চ বিদ্যালয়ে অভিভাবক সমাবেশ ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপরের কথাগুলো বলেন।
বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক এম আজিজুল হক সিকদারের সভাপতিত্বে ও শিক্ষার্থী ফয়সালের কোরআন তেলাওয়াতের মাধ্যমে অনুষ্ঠান শুরু হয়। বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন জোয়ারিয়ানালা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি কামাল শামসুদ্দিন আহমদ প্রিন্স, রামু উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিস একাডেমিক সুপারভাইজার মোহাম্মদ তৈয়ব চৌধুরী, সদস্য আবছার কামাল সিকদার, কোডেকের উপ-পরিচালক তাসাদ্দুক হোসেন দুলু, কোডেকের প্রকল্প সমন্বয়কারী মো. হেলাল উদ্দিন, জোয়ারিয়ানালা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. আমজাদ হোসেন, অভিভাবক আব্দুর রহিম। এতে উপস্থিত ছিলেন যুবলীগ নেতা মাসুদুর রহমান মাসুদ, নবীউল হক আরকান, সদস্য মোহাম্মদ হোসেন, রশিদ সওদাগর, বদিউজ্জামান মেম্বার, উত্তম মহাজন, শিক্ষানুরাগী এম এম আবছার, সাংবাদিক খালেদ হোসেন টাপু প্রমুখ। শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন বিদ্যালয়ের সহকারী প্রধান শিক্ষক মোহাম্মদ তালিব উল্লাহ ছিদ্দিকী। সঞ্চালনায় ছিলেন বিদ্যালয়ের সিনিয়র শিক্ষক মুজিবুল আলম। পরে অতিথিদের হাতে সম্মাননা ক্রেস্ট তুলে দেন অতিথিবৃন্দ। শেষে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিবেশিত হয়। সহযোগিতায় ছিলো তরুণ আলো প্রকল্প, কোডেক ও মানুষের জন্য ফাউন্ডেশন।