সার্ভার সমস্যায় বিদ্যুৎ বিলে ভোগান্তি

নিজস্ব প্রতিবেদক

মোবাইলে বিদ্যুৎ বিল (প্রি- প্রেইড) জমা দিতে না পেরে গত তিন দিন ধরে ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে নগরবাসীকে। কারিগরি ত্রুটির কারণে এ সমস্যা দেখা দিলেও বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড ও সংশ্লিষ্ট মোবাইল অপারেটর কোম্পানির কাছ থেকে কোন সন্তোষজনক উত্তর পাওয়া যায়নি। ফলে বিদ্যুৎ গ্রাহকদের আর কতদিন এ ভোগান্তি পোহাতে হবে তা সঠিক বলা যাচ্ছে না।
মোবাইলে বিদ্যুৎ বিল পরিশোধকারী এজেন্টরা জানান, গত মঙ্গলবার সকাল থেকে কোনো অপারেটর হতে মোবাইলের মাধ্যমে বিদ্যুতের জন্য অগ্রিম টাকা রিচার্জ করা সম্ভব হচ্ছে না। প্রি-পেইড মিটারগুলোর ই-টোকেন নেয়ার জন্য নির্ধারিত অপশনে গিয়ে আবেদন করলে ফিরতি বার্তায় বিষয়টি ‘অপারেশন ফেল’ বা ‘ইনকারেক্ট’ আসছে। প্রতিটি বিদ্যুৎ বিলের ক্ষেত্রেই একই ঘটনা হচ্ছে।
নগরীর বিভিন্ন গ্রাহক ও এজেন্টের সাথে কথা বলে জানা যায়, ইতোমধ্যে যাদের টাকা শেষ হয়েছে তাদের সবাইকে বিদ্যুৎ অফিসে গিয়ে লাইন ধরে ই-টোকেন নিতে হয়েছে। অসহনীয় গরমের মধ্যে রোজা রেখে ঘণ্টার পর ঘণ্টা লাইনে দাঁড়ানোর কারণে হাজার হাজার গ্রাহক ক্ষুব্ধ। কিন’ কারো কাছেই কোনো উত্তর না থাকায় এমন অসহনীয় ভোগান্তি সহ্য করতে হচ্ছে।নগরীর পাহাড়তলী এলাকার কয়েকজন এজেন্ট বলেন, আমাদের কাছে আসা সব মানুষই পরিচিত। তাই যারা এসেছে আমরা তাদের ফেরাতে পারিনি। তাদের প্রি-পেইড মিটারের কার্ডের ফটোকপি সংগ্রহ করে আমরা তাদের বিল বিদ্যুৎ অফিসে গিয়ে রিচার্জ করেছি।
বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের পাহাড়তলী শাখার নির্বাহী প্রকৌশলী বলেন, ‘সার্ভারের ত্রুটির কারণে এ ধরনের সমস্যা সৃষ্টি হচ্ছে। তবে সার্ভারের সমস্যাজনিত বিষয় নিয়ে আমার পক্ষে পরিষ্কারভাবে কিছু বলা সম্ভব নয়।’
তিনি সার্ভার সম্পর্কিত তথ্য প্রদানের জন্য একজন নির্বাহী প্রকৌশলীর মুঠোফোন নাম্বার দেন। কিন’ তাকে অনেকবার কল করেও পাওয়া যায়নি।
গ্রামীণফোনের জনসংযোগ বিভাগের কর্মকর্তার সাথে কথা বলার পর বিষয়টি জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘প্রথমে পুরো বিষয়টি আমাকে ইমেইলে জানাতে হবে। তারপর আমি যাদের সাথে কথা বলে এর উত্তর দিতে পারবো, তাদের সাথে কথা বলে আপানাকে মেইল করবো।’