বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস পালন

সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়ার তাগিদ

মহানগর ডেস্ক
বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে মাল্যদান করে শ্রদ্ধা নিবেদন করছেন চবি উপাচার্য প্রফেসর ড. ইফতেখার উদ্দিন চৌধুরী ও বিশ্ববিদ্যালয় পরিবারের সদস্যবৃন্দ
বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে মাল্যদান করে শ্রদ্ধা নিবেদন করছেন চবি উপাচার্য প্রফেসর ড. ইফতেখার উদ্দিন চৌধুরী ও বিশ্ববিদ্যালয় পরিবারের সদস্যবৃন্দ

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে বিভিন্ন সংগঠন আয়োজিত আলোচনা সভায় বক্তারা স্বাধীনতার সুফল বাস্তবায়নে সকলকে একযোগে স্ব স্ব অবস’ান থেকে ভূমিকা রাখার আহ্বান জানান।
চবি
মহাকালের মহানায়ক স্বাধীন বাংলাদেশের মহান স’পতি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস (১০ জানুয়ারি) উপলক্ষে ১১ জানুয়ারি সকাল ১০.৩০ টায় চবি বঙ্গবন্ধু চত্বরে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে মাল্য দান করে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. ইফতেখার উদ্দিন চৌধুরী।
এ সময় চবি বিভিন্ন অনুষদের ডিনবৃন্দ, সিন্ডিকেট সদস্যবৃন্দ, শিক্ষক সমিতির নেতৃবৃন্দ, রেজিস্ট্রার, হলের প্রভোস্টবৃন্দ, প্রক্টর ও সহকারী প্রক্টরবৃন্দ, বিভিন্ন বিভাগীয় সভাপতি ও ইনস্টিটিউটের পরিচালকবৃন্দ, বিভিন্ন অফিস প্রধানবৃন্দ, অফিসার সমিতি, কর্মচারী সমিতি, কর্মচারী ইউনিয়নের নেতৃবৃন্দসহ বিশ্ববিদ্যালয় পরিবারের বিপুল সংখ্যক সদস্য উপসি’ত ছিলেন।
উপাচার্য তাঁর ভাষণে বলেন, মহান মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে দীর্ঘ নয়মাস স্বৈরাচার পাকিস্তানিদের কারাগারে বন্দিদশায় জীবন-মৃত্যুর মুখোমুখি হয়ে বাঙালির স্বাধীনতাকামী ও বিশ্ব নেতৃবৃন্দের চাপের মুখে মহান নেতা রাজনীতির মহাকবি ১৯৭২ এর ১০ জানুয়ারি কারাগার থেকে মুক্ত হয়ে স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশের পবিত্র ধুলিতে পা রেখে বাঙালির হাজার বছরের কাঙ্খিত স্বাধীনতাকে পূর্ণতা দান করেন। তিনি বলেন, রাজনীতির এই মহাকবির জন্ম না হলে বিশ্ব দরবারে আমরা আজ একটি স্বাধীন ভূখণ্ড পেতাম না। তিনি আরও বলেন, জাতির জনকের বলিষ্ঠ ও আপোষহীন নেতৃত্বে অর্জিত স্বাধীনতার সুফল বাস্তবায়নে প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনা দেশের উন্নয়ন ও অগ্রগতিতে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন, যা বর্তমান বিশ্বে বাংলাদেশ একটি উন্নয়নের রোল মডেল হিসেবে স্বীকৃতি লাভ করেছে। উপাচার্য এ উন্নয়ন ও অগ্রযাত্রার ধারা অব্যাহত রাখতে সকলকে একযোগে দেশপ্রেমে উদ্বুদ্ধ হয়ে ঐক্যবদ্ধ প্রয়াসে দেশের উন্নয়নে স্ব স্ব অবস’ান থেকে দৃশ্যমান ভূমিকা রাখার আহ্বান জানান।
মহানগর মহিলা আওয়ামী লীগ
বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে চট্টগ্রাম মহানগর মহিলা আওয়ামী লীগের উদ্যোগে সংগঠনের সভানেত্রী মিসেস হাসিনা মহিউদ্দিনের সভাপতিত্বে তাঁর চশমা হিলস’ নিজ বাসভবনে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় বক্তারা বলেন, দেশকে জঙ্গিবাদমুক্ত করতে আমাদের লড়াই অব্যাহত রাখতে হবে।
নারী নেত্রী আঞ্জুমান আরা চৌধুরী আনজী’র সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন মমতাজ খান, কাউন্সিলর নীলু নাগ, নাজমা মাওলা, হাসিনা বেগম টুনু, আয়েশা ছিদ্দিকী, মিলি বড়-য়া, ঝর্ণা বড়-য়া, মুন্নি জাফর, আয়েশা আলম, শারমীন ফারুক, আয়েশা আলম, আয়েশা, খুরশিদা বেগম, স্বপ্না, লাকী বেগম প্রমুখ।
বঙ্গবন্ধু ও জাতীয় চারনেতা
স্মৃতি পরিষদ
বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা, সাবেক গণ পরিষদ ও সংসদ সদস্য হাজী মোহাম্মদ ইসহাক মিয়া বলেছেন, স্বাধীন বাংলাদেশকে যে বাঙালি গড়তে পারবে সে সম্পর্কে বঙ্গবন্ধুর আত্মবিশ্বাস ছিল সুদৃঢ়। তিনি বলেন, একটি দেশ স্বাধীন হওয়ার পর দেশটির জন্য করণীয় থাকে দুটো কাজ রাষ্ট্র গঠন এবং জাতি গঠন। ১০ জানুয়ারি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান তাঁর ভাষণে ১৫ টি বিষয়বস’র প্রতি দৃষ্টি আকর্ষণ করে রাষ্ট্রগঠন এবং জাতি গঠনের প্রক্রিয়া সম্পর্কে সুস্পষ্ট ইঙ্গিত দিয়েছিলেন। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট জাতির পিতাকে স্ব পরিবারে হত্যার মধ্য দিয়ে বঙ্গবন্ধুর আশা-আকাংখা, চিন্তা চেতনাকে হত্যা করা হয়।
জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে বঙ্গবন্ধু ও জাতীয় চারনেতা স্মৃতি পরিষদ এর আয়োজনে নগরীর থিয়েটার ইনস্টিটিউট গ্যালারিতে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভা ও রচনা প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির ভাষণে তিনি এসব কথা বলেন।
আলোচনা সভা ও পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন সিটি করপোরেশন কায়সার-নিলুফার কলেজের অধ্যক্ষ শেখ মোহাম্মদ ওমর ফারুক।
বঙ্গবন্ধু ও জাতীয় চারনেতা স্মৃতি পরিষদের প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক মো. আবদুর রহিম এতে স্বাগত বক্তব্য রাখেন।
‘জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও বাংলাদেশ’ বিষয়ে রচনা প্রতিযোগিতায় ১ম, দ্বিতীয় ও তৃতীয় স’ান প্রাপ্তসহ একাদশ ও দ্বাদশ শ্রেণীর ২০ জন প্রতিযোগীদের হাতে বঙ্গবন্ধুর অসমাপ্ত আত্মজীবনী বই, সনদ ও ক্রেস্ট তুলে দেন অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি সাবেক গণ পরিষদ সদস্য ও সাংসদ হাজী মোহাম্মদ ইসহাক মিয়া। বিশেষ অতিথি ছিলেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাচ্য বিভাগের প্রফেসর ড. জিনবোধী ভিক্ষু, পদার্থ বিজ্ঞান বিভাগের সাবেক প্রফেসর ড. বিকিরণ প্রসাদ বড়-য়া, কাউন্সিলর হাসান মুরাদ বিপ্লব, চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক চৌধুরী ফরিদ।
এতে আলোচনা করেন আওয়ামী যুবলীগ মহানগর নেতা সুমন দেবনাথ, নুরুল আলম, মোহাম্মদ সেলিম, সাইফুদ্দিন আহমেদ, মো. খোরশেদ আলম, জাবেদুল ইসলম শিপন, ইয়াছির আরাফাত, নোমান উল্লাহ বাহার, মোহাম্মদ শফিকুর রহমান সফিক, আসিফ ইকবাল, বোরহান উদ্দিন গিফারী, সাখাওয়াত হোসেন সওকত, মোরশেদুল আলম, মোহাম্মদ আলী হোসেন, রাশেদ মাহমুদ পিয়াস, আজিজুল করিম, মোসলেম উদ্দিন, আবু তৈয়ব মিজানসহ অন্যরা।
আলোচনা সভা ও পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথিবৃন্দ বলেন, বাংলা, বাঙালি ও বাংলাদেশের প্রতি বঙ্গবন্ধুর ছিল নিখাদ ও গভীর ভালোবাসা। তারা বঙ্গবন্ধুর অসাম্প্রদায়িক, ক্ষুধা-দারিদ্রমুক্ত ও সুখী সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়ে তুলতে সকলকে শপথ নেয়ার আহ্বান জানান।
রচনা প্রতিযোগিতায় বিজয়ীরা হলেন তুলি দত্ত, তারেক আজিজ, সুদীপ্ত আচার্য্য, তানবিনা পারভীন , সৌরভ বিশ্বাস, তাকলিমা জাফর সায়মা, পায়েল মিত্র, অর্পিতা নন্দী, অরিত্র ঘোষ , তানজিনা আক্তার আঁখি, দিলরুবা খানম জুলি, সাইমুন হাসান, তুষার সেন ও বৃষ্টি দে।
মহানগর শ্রমিক লীগ
অদ্য বিকাল ২টায় কোতোয়ালী চউক ভবন সম্মুখস’ চত্বরে জাতীয় শ্রমিক লীগ চট্টগ্রাম মহানগর এর উদ্যোগে বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উদযাপন উপলক্ষে জাতীয় শ্রমিক লীগ চট্টগ্রাম মহানগরের উদ্যোগে শ্রমিক সমাবেশ সংগঠনের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি হাবিবুর রহমান হাবিবের সভাপতিত্বে ও চট্টগ্রাম জেলা সড়ক পরিবহন শ্রমিক লীগের সাধারণ সম্পাদক নজরুল ইসলাম খোকনের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত হয়।
সভায় বক্তব্য রাখেন সংবাদপত্র হর্কাস শ্রমিক লীগের সভাপতি সরওয়ার আলম, জয়নাল আবেদীন, শহিদুল ইসলাম বকুল, উজ্জ্বল বিশ্বাস, গোলাম মোস্তফা, কালিম শেখ, ফেরদৌস জামান মুকুল, মো. নুরুল ইসলাম, বিমান বড়-য়া, মো. ইমরান হোসেন মিয়া, আবদুর রহমান, নুরুল কবির স্বপন, কামরুদ্দিন, কামাল উদ্দিন ভান্ডারী, মো. টিপু, আবুল হোসেন মিয়া, আকতার হোসেন, চট্টগ্রাম জেলা নির্মান শ্রমিক লীগের সভাপতি ইকবাল হোসেন, মো. সেলিম, কামাল উদ্দিন, আবু তৈয়ব, মাঈনুল মাজেদীন মিঠু, এম.আই ফারুক, আবদুস সালাম, আবদুল কাদের, নুরুল আমিন।
এতে অন্যদের মধ্যে আরও বক্তব্য রাখেন মোহাম্মদ রিপন, নজরুল ইসলাম,রাসেল দাশ, মিন্টু হাওলাদার, মো. জাকেরিয়া, মো. আদু, মো. বাহার, লিয়াকত আলী প্রমুখ নেতৃবৃন্দ।
বাংলাদেশ এলিমেন্টারি স্কুল
জাতির জনকের স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে দামপাড়া বাংলাদেশ এলিমেন্টারি স্কুল ও কাতালগঞ্জ ডিও ড্রপস্ প্রিপারেটরি স্কুলে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের অসমাপ্ত আত্মজীবনী অবলম্বনে এলেমান্টারি স্কুলে গ্রাফিক নভেল ১ এবং ডিও ড্রপস্ প্রিপারেটরি স্কুলে গ্রাফিক নভেল ১ ও ২ বিতরণ করেন সংসদ সদস্য ওয়াসিকা আয়শা খান।
এ সময় উপসি’ত ছিলেন প্রিন্সিপাল নাদেরা বানু বেগম, বেগম হুসনুল কামরাইন খান, তসলিমা আহম্মেদ, সামিনা হুদা চুমকি, আনিকা তাজিব, অজিত কুমার, মাহফুজা বেগম প্রমুখ।

আপনার মন্তব্য লিখুন