মাছের দাম স্থিতিশীল

সবজির ও মাংসের বাজারে আগুন!

নিজস্ব প্রতিবেদক

মাছের বাজারে কিছুটা স্বস্তি মিললেও মাংস এবং বিভিন্ন সবজির দাম অস্বাভাবিক হারে বৃদ্ধি পেয়েছে। নগরীর চকবাজার, বহদ্দারহাট, কর্ণফুলী মার্কেট, কাজির দেউড়িসহ বিভিন্ন বাজারে সপ্তাহের ব্যবধানে প্রায় সবধরনের সবজি ও মাংসের দাম বেড়েছে।
গতকাল শুক্রবার বাজার ঘুরে দেখা যায়, দেশী মুরগী প্রতি কেজি ৪৬০ টাকা, ফার্মের মুরগী ১৬৫, সোনালী মুরগী ৩২০ টাকা, গরুর মাংস ৬৫০, খাসির মাংস ৭৫০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।
বহদ্দারহাটের মাংস ব্যবসায়ী আবুল হোসেন জানান, এক সপ্তাহে ১০০ থেকে ১২০ টাকা বেড়ে গেছে গরু ও খাসির মাংস। চকবাজেরর মুরগী ব্যবসায়ী সাদ্দাম হোসেন বলেন, কিছু ব্যবসায়ী সিন্ডিকেট করে হঠাৎ করে বাজার অস্বাভাবিকভাবে দাম বৃদ্ধি করেছে। অথচ তাদের কাছে মুরগী বেশ মজুদ রয়েছে। ফলে আমরা খুচরা ব্যবসায়ীরা বেশি দাম দিয়ে কিনে তা বিক্রি করছি।
এদিকে বাজারগুলোতে সবজির দাম অস্বাভাবিকহারে বৃদ্ধি পেয়েছে। প্রতি কেজি কাঁকরোল ৮০, তিতকরলা প্রকারভেদে ৭০ থেকে ৮০ টাকা, শসা ৭০ থেকে ৮০ টাকা, বরবটি ৭০ থেকে ৮০ টাকা, ঢেড়ঁস ৭০ টাকা, বেগুন ৫০ টাকা, লাউ ৫০ টাকা, আলু ৩০ টাকা, কাঁচামরিচ ৬০ টাকা, ধনেপাতা ৫০-৬০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। তবে প্রতি কেজি টমেটোর দাম প্রকারভেদে ২০ থেকে ৩০ টাকা। গত সপ্তাহের তুলনায় কিছু সবজি ছাড়া অন্যগুলোর দাম প্রায় দ্বিগুণ হয়েছে।
মাছের বাজারে গিয়ে দেখা গেল রুই প্রতি কেজি ২৮০ টাকা, কাতলা ৩০০, লইট্টা ১৩০, তেলাপিয়া ১৫০, কোরাল ৩০০ থেকে ৪০০ টাকা, সিলভার কার্প ১০০-১৩০ টাকা, পাঙ্গাস ১১০-১৩০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। কেজি প্রতি বড় আকারের চিংড়ি এক হাজার টাকা, মাঝারি চিংড়ি ৭০০-৭২০ টাকা ও ছোট চিংড়ি ৫০০ টাকয় বিক্রি হচ্ছে।
রিয়াজউদ্দিন বাজারে সবজি কিনতে আসা মো. শাহাদাত জানান, গত সপ্তাহ থেকে সবজির দাম কেজিতে ৩০ থেকে ৪০ টাকা বৃদ্ধি পেয়েছে। মাছের বাজারে কিছুটা স্বস্তি মিললেও মাংসের বাজারে আগুন। বাজার মনিটরিং কমিটির নিয়মিত তদারকির অভাবে অসাধু ব্যবসায়ীরা সবজি ও মাংসের দাম ইচ্ছেমতো বৃদ্ধি করে রেখেছে। তিনি জেলা প্রশাসনসহ বাজার মনিটরিং কমিটির হন্তক্ষেপ চেয়েছেন।