চন্দনাইশে রজভীয়া হেফজখানা ও এতিমখানার সভা

সন্ত্রাসবাদ রুখতে প্রয়োজন নৈতিক শিক্ষা

বিজ্ঞপ্তি

চন্দনাইশ উপজেলা মাওলানা ক্বারী মুহাম্মদ ফেরদৌসুল আলম খান আলকাদেরী প্রতিষ্ঠিত কাদেরীয়া সুন্নিয়া ট্রাস্ট পরিচালনাধীন রজভীয়া হেফজখানা ও এতিমখানার ১১তম বার্ষিক সভা, পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠিত হাফেজদের দস্তারবন্দী ও পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী (দ.) মাহফিল ১২ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত হয়।
সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন চন্দনাইশ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ মুহাম্মদ আবদুল জব্বার চৌধুরী। উদ্বোধক ছিলেন বরকল ইউপি চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা মোহাম্মদ হাবিবুর রহমান। মাদ্রাসা পরিচালনা কমিটির সিনিয়র সহ-সভাপতি ডা. মোহাম্মদ নুরুল আবছার খানের সভাপতিত্বে এবং শাহজাদা মুহাম্মদ কিবরিয়া হোসেন আজম ও জিএম শাহাদত হোসাইন মানিকের যৌথ সঞ্চালনায় বিশেষ অতিথি ছিলেন চসিক প্যানেল মেয়র চৌধুরী হাসান মাহমুদ হাসনী, চন্দনাইশ উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মাওলানা মুহাম্মদ সোলাইমান ফারুকী, উপাধ্যক্ষ আল্লামা মুফতি কাজী মুহাম্মদ আব্দুল ওয়াজেদ, অধ্যক্ষ আল্ল্লামা শাহ খলিলুর রহমান নিজামী, শাহজাদা সৈয়দ আবু মুহাম্মদ মোতাছিম বিল্লাহ সম্পদ সুলতানপুরী (মজিআ), পীরজাদা আলহাজ খোরশেদ উল্লাহ রজায়ী, মুহাম্মদ শওকত হোসেন ফিরোজ, ডা. মোস্তফা মুহাম্মদ আকাশ, শাহজাদা আবদুল হাই মুহাম্মদ আসাদুজ্জামান খান, লায়ন মুহাম্মদ সেলিম উদ্দিন সিকদার, হাজী আহমদ হোসেন। প্রধান বক্তা ছিলেন পীরে তরিকত আল্লামা আবুল কাশেম নুরী (মজিআ)। বিশেষ বক্তা ছিলেন মাওলানা বখতেয়ার হামিদ আলকাদেরী, মাওলানা মুহাম্মদ আব্দুর রহমান আলকাদেরী, মাওলানা হাফেজ মুহাম্মদ ইসমাইল। সভায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন মাদ্রাসার প্রতিষ্ঠাতা ও সভাপতি মাওলানা কারী মুহাম্মদ ফেরদৌসুল আলম খান আলকাদেরী। সভায় বক্তারা বলেন, নৈতিক শিক্ষার মাধ্যমে ধর্মের সঠিক ব্যাখ্যা ও চর্চাই পারে তরুণ প্রজন্মকে জঙ্গিবাদ-সন্ত্রাসবাদ থেকে দূরে রাখতে।
সভায় আরও উপসি’ত ছিলেন ইঞ্জিনিয়ার মুহাম্মদ নজরুল ইসলাম খান, মুহাম্মদ আবু নাছের চৌধুরী, কেএ এম রাশেদ, মুহাম্মদ কায়কোবাদ, গাজী মুহাম্মদ জাহেদুল আলম, সাংবাদিক গোলাম সরওয়ার, মাওলানা মুহাম্মদ আব্দুল গফুর, মুহাম্মদ সাখাওয়াত হোসেন সুমন, মো. ফোরকান উদ্দিন চৌধুরী, মাওলানা মুহাম্মদ শফিকুল্লাহ হালেমী, মাওলানা মুহাম্মদ আবু হানিফ, মাওলানা মুহাম্মদ কামাল উদ্দিন আলকাদেরী, মুহাম্মদ আব্দুল মুবিন, হাফেজ মুহাম্মদ সৈয়দ নুর, হাফেজ মুহাম্মদ আব্দুর রহমান প্রমুখ। উল্লেখ্য, জলসায় হেফজ বিভাগের দুই ছাত্রকে কোরআন হেফজ করায় পাগড়ি পরিধান করানো হয়।