বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোটের ৪১তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীর অনুষ্ঠানে ড. অনুপম সেন

সংস্কৃতির চেতনা থেকে স্বাধীনতা

বিজ্ঞপ্তি

চট্টগ্রাম প্রিমিয়ার বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. অনুপম সেন বলেন, সাংস্কৃতিক চেতনা ও জাগরণের উৎস থেকেই বাঙালি জাতীয়তাবাদী রাজনৈতিক দর্শনের ভিত্তি থেকেই স্বাধীন ও সার্বভৌম বাংলাদেশ রাষ্ট্রের অভ্যুদয় ঘটে। পৃথিবীতে বাংলাদেশই একমাত্র রাষ্ট্র যার উৎস মূল সংস্কৃতির শিকড় থেকে।
গতকাল বিকেলে জেলা শিশু একাডেমি মিলনায়তনে বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোটের ৪১ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে চট্টগ্রাম জেলা শাখা আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব বলেন।
চট্টগ্রাম বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের প্রধান প্রকৌশলী প্রবীর কুমার সেন বলেন, আমরা তখনই শুদ্ধাচারী হবো যখন আমরা সংস্কৃতিবোধকে অন্তরে ধারণ করতে পারব।
সংস্কৃতির অর্থই হচ্ছে মানসিক শুদ্ধি ও পরিশীলিত আচার-আচরণ, এতেই একটি জনগোষ্ঠির পরিচয় নির্ণয় হয়। এই সত্যটিকে উপলব্ধি করা প্রয়োজন।
চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের প্যানেল মেয়র প্রফেসর নিছার উদ্দিন আহমেদ মঞ্জু বলেন, বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোট বঙ্গবন্ধুর দর্শন ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে ধারণ করে চার দশক ধরে নতুন প্রজন্মকে শুদ্ধাচারী করে যাচ্ছে।
বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোট চট্টগ্রাম সহ সভাপতি ও চসিক কাউন্সিলর এইচ এম সোহেল সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক খোরশেদ আলমের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত জোটের ৪১ তম প্রতিষ্ঠাবর্ার্ষিকীর প্রীতি সম্মেলনে বিশেষ অতিথি ছিলেন আইইবি চট্টগ্রাম কেন্দ্রের সহ-সভাপতি প্রকৌশলী প্রবীর কুমার দে, আওয়ামী লীগ নেতা আলী আকবর, নগর যুবলীগের সদস্য সুমন দেবনাথ, কর্মাস কলেজ ছাত্রলীগের সাবেক সহ সভাপতি এম এ মান্নান শিমুল, নগর ছাত্রলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক আবুল বশর, আবদুর রশিদ লোকমান, কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাবেক সহ সম্পাদক ইয়াছির আরাফাত।
আরো উপসি’ত ছিলেন শিল্পী অনামিকা তালুকদার, চিত্রশিল্পী তানভীরুল ইসলাম নাহিদ, সংস্কৃতিকর্মী সজল দাশ, অ্যাডভোকেট জয় গোপাল দাশ টিপু, মোরশেদ কুতুবী, মো ইসমাইল প্রমুখ।
পায়রা ও বেলুন উড়িয়ে জাতীয় সঙ্গীতের মাধ্যমে বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোটের ৪১ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর সূচনা করেন প্রধান অতিথি ও আমন্ত্রিত অতিথিবৃন্দ। পরে একটি আনন্দ শোভাযাত্রা শিশু একাডেমি থেকে বের হয়।