শ্রদ্ধা-ভালোবাসায় সিদ্দিক আহমেদকে বিদায়

সুপ্রভাত ডেস্ক

চট্টগ্রামের সাংবাদিক, শিক্ষক, শিল্পী, রাজনীতিবিদ ও পেশাজীবীরা শ্রদ্ধা আর ভালোবাসার অশ্রুতে শেষ বিদায় জানিয়েছেন তাদের প্রিয় সিদ্দিক আহমেদকে। জানাজা আর শ্রদ্ধা নিবেদনের পর গতকাল বিকালে চট্টগ্রামের রাউজান উপজেলার গশ্চি গ্রামে মাতুব্বর বাড়ির পারিবারিক কবরস’ানে সিদ্দিক আহমেদকে দাফন করা হয়। খবর বিডিনিউজ’র।
এর আগে সকাল সোয়া ৯টায় চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাব প্রাঙ্গণে তার প্রথম জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। জানাজায় অংশ নেন সিটি মেয়র ও নগর আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক আ জ ম নাছির উদ্দিন, দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মোসলেম উদ্দিন আহমদ ও দৈনিক আজাদী সম্পাদক এম এ মালেক।
উপসি’ত ছিলেন প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি আবু সুফিয়ান, বর্তমান সভাপতি কলিম সরওয়ার ও সাধারণ সম্পাদক শুকলাল দাশ, বিএফইউজের সহ-সভাপতি শহীদ উল আলম, চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি রিয়াজ হায়দার চৌধুরী ও সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ আলী।
জানাজা শেষে চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাব, চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়ন ও চট্টগ্রাম ফটো জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশনের পক্ষে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানানো হয়।
এরপর সিদ্দিক আহমেদের মরদেহ চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে ‘সর্বস্তরের নাগরিকদের শ্রদ্ধা নিবেদন’ অনুষ্ঠানে স্মৃতিচারণ করতে গিয়ে কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন তার গুণগ্রাহীরা।
কফিনে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করে কমিউনিস্ট পার্টি, গণজাগরণ মঞ্চ, খেলাঘর চট্টগ্রাম মহানগরী ও খেলাঘর চট্টগ্রাম মহানগর কমিটি, বাংলাদেশ কলেজ বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি, উদীচী শিল্পী গোষ্ঠী, একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটি, বোধন, প্রমাসহ বিভিন্ন সংগঠন।
শহীদ মিনারে শ্রদ্ধা নিবেদন অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টির কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য মৃণাল চৌধুরী, চট্টগ্রাম জেলা কমিটির সভাপতি শাহ আলম ও সাধারণ সম্পাদক অশোক সাহা, রাউজানের সাংসদ ফজলে করিম চৌধুরী, বাগবিশিস কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ মো. জাহাঙ্গীর, বিএফইউজে যুগ্ম মহাসচিব তপন চক্রবর্তী, নারীনেত্রী রেখা চৌধুরী, সাংবাদিক সমরেশ বৈদ্য, দিবাকর ঘোষ, রাশেদ মাহমুদ, আলোকময় তলাপাত্র, কামাল পারভেজ, আলমগীর সবুজ, সেলিম আক্তার পিয়াল, রমেন দাশগুপ্ত ও মিন্টু চৌধুরী।
শোক জানিয়ে বক্তব্য রাখেন কোতোয়ালী থানার ওসি জসিম উদ্দিন, অধ্যাপক শীলা দাশগুপ্তা, ড. কুন্তল বড়ুয়া, ডা. জিল্লুর রহমান, ডা. ভাগ্যধন বড়ুয়া, অধ্যাপক মুজিবুর রহমান, গণজাগরণ মঞ্চের সদস্য সচিব ডা. চন্দন দাশ ও সমন্বয়ক শরীফ চৌহান, আবৃত্তিশিল্পী রাশেদ হাসান, কবি আশীষ সেন, কবি মনিরুল মুনির, একাত্তরের ঘাতক দালাল নিমূর্ল কমিটির কেন্দ্রীয় সহ-সাধারণ সম্পাদক শওকত বাঙালি, যুব ইউনিয়নের সভাপতি রিপায়ন বড়ুয়া ও ছাত্র ইউনিয়ন নেতা আতিক রিয়াদ।
শ্রদ্ধা নিবেদনের শেষ পর্যায়ে সিদ্দিক আহমেদের ছেলে এস আর সিদ্দিক সাইফ ক্যান্সার আক্রান্তদের চিকিৎসায় চট্টগ্রামে একটি হাসপাতাল প্রতিষ্ঠার দাবি জানান। পাশাপশি সিদ্দিক আহমেদ ফাউন্ডেশন গড়ার ঘোষণা দেন তিনি।
এরপর তার মরদেহ রাউজানের গশ্চির উদ্দেশ্যে রওনা হয়। বিকালে গশ্চি উচ্চ বিদ্যালয়ের মাঠে তার জানাজা অনুষ্ঠিত হয়।
গশ্চি উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ও পরে শিক্ষক ছিলেন সিদ্দিক আহমেদ।
পরে বিকাল ৫টার দিকে গশ্চি গ্রামের মাতুব্বর বাড়ির পারিবারিক কবরস’ানে তাকে দাফন করা হয়।
গতকাল ঢাকার পিজি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস’ায় মারা যান সাংবাদিক ও মুক্তিযোদ্ধা সংগঠক সিদ্দিক আহমেদ (৭১)।
চট্টগ্রামের নবীন-প্রবীণ সব সাংবাদিকের কাছে ‘বন্ধু’ হিসেবে পরিচিত সিদ্দিক আহমেদ সবার সঙ্গে আড্ডায় মেতে উঠতেন বয়সের সীমা ডিঙ্গিয়ে।
সত্য প্রকাশে নির্ভীক ও সৎ সাংবাদিকতার উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত সিদ্দিক আহমেদ ছিলেন চট্টগ্রামের সাংবাদিকদের শেষ ভরসাস’ল।
১৯৪৬ সালে চট্টগ্রামের রাউজানে জন্ম নেওয়া সিদ্দিক আহমেদ বাষট্টির ছাত্র আন্দোলন ও ঊনসত্তরের গণআন্দোলনের সক্রিয় কর্মী।
ছাত্র জীবনে ছাত্র ইউনিয়নের সঙ্গে যুক্ত সিদ্দিক আহমেদ ১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধে সংগঠকের ভূমিকা পালন করেন। দেশ স্বাধীন হওয়ার পর শিক্ষকতা, কৃষিকাজ ও কৃষক আন্দোলনে যুক্ত ছিলেন।
এ পর্যন্ত সাতটি বই প্রকাশিত হয়েছে সিদ্দিক আহমদের। তার জীবন ও রচনা নিয়ে প্রকাশিত হয়েছে দুটি স্মারক গ্রন’।
প্রধানমন্ত্রীর শোক
চট্টগ্রামের প্রবীণ সাংবাদিক ও মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক সিদ্দিক আহমেদের মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।
প্রধানমন্ত্রীর প্রেস উইং থেকে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, এক শোক বার্তায় প্রধানমন্ত্রী সাংবাদিকতায় সিদ্দিক আহমেদের অবদানের কথা স্মরণ করেন।
প্রধানমন্ত্রী মরহুমের বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা করেন এবং শোক সন্তপ্ত পরিবারের প্রতি আন্তরিক সমবেদনা জানান।
গত বুধবার সন্ধ্যায় রাজধানীর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালে মারা যান ৭১ বছর বয়সী সিদ্দিক আহমেদ।
চট্টগ্রামে সর্বস্তরের মানুষের শ্রদ্ধা নিবেদন ও জানাজার পর গতকাল বিকালে রাউজান উপজেলার গশ্চি গ্রামে মাতুব্বর বাড়ির পারিবারিক কবরস’ানে তাকে দাফন করা হয়।