শৃ্ঙ্খলা আনতে কঠোর অবস্থানে ট্রাফিক পুলিশ

রুট পারমিট লঙ্ঘন করলেই মামলার মুখোমুখি হচ্ছে অটোরিকশা চালকরা

মোহাম্মদ রফিক

যানজট নিয়ন্ত্রণ এবং ব্যবস্থাপনায় শৃ্ঙ্খলা আনতে কঠোর অবস্থান নিয়েছে সিএমপির ট্রাফিক পুলিশ বিভাগ। গত তিনদিন ধরে নগরের প্রবেশ পথে চট্টগ্রাম জেলা রুটের পারমিট পাওয়া কোনো সিএনজি অটোরিকশা মেট্রোপলিটন এলাকায় ঢুকতে দেওয়া হচ্ছে না। যেসব অটোরিকশা ট্রাফিক আইন লঙ্ঘন করে শহর এলাকা কিংবা মেট্রো রুটের অটোরিকশা জেলার রুটে ঢুকে পড়ছে তাদের বিরুদ্ধে মামলা দেওয়া হচ্ছে। পাশাপাশি আটকও করা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন সিএমপির ট্রাফিক পুলিশ পরিদর্শক (উত্তর) সুভাষ চন্দ্র দে।
নগরের অক্সিজেন-হাটহাজারী সড়কের নতুন পাড়া ব্রিজ এলাকায় গতকাল দুপুরে সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, মেট্রোপলিটন এলাকায় ঢুকতে না দেওয়ায় ব্রিজের উত্তর পাশে জেলা এলাকায় শহরমুখী যাত্রীদের অটোরিকশা থেকে নামিয়ে দিচ্ছেন চালকেরা। অপরদিকে জেলার রুটে ঢুকতে না দেওয়ায় রাউজান, ফটিকছড়ি, হাটহাজারী ও নাজিরহাট অভিমুখী যাত্রীদের অটোরিকশা থেকে নামিয়ে দিচ্ছেন চালকেরা। এসময় এক গাড়িতে করে গন্তব্যে যেতে না পারায় বিপুল সংখ্যক যাত্রী বিপাকে পড়েন।
হাটহাজারী সদর এলাকা থেকে নগরের কাতালগঞ্জ যেতে ৩০০ টাকায় জেলা রুটের পারমিট পাওয়া একটি অটোরিকশা ভাড়া করেছেন সিদ্দিক জামান নামে এক যুবক। পরিবার নিয়ে গতকাল বেলা ১টায় তিনি যাচ্ছিলেন কাতালগঞ্জে শ্বশুরের বাসায়। কিন’ ট্রাফিক পুলিশ তাদের বহনকারী অটোরিকশা আটকে দেন নতুন পাড়া ব্রিজের দক্ষিণ পাশে। বাধ্য হয়ে পরিবারের তিন সদস্য নিয়ে অটোরিকশা থেকে নেমে পড়েন সিদ্দিক। এরপর মেট্রো এলাকার আরেকটি অটোরিকশা ২০০ টাকা দিয়ে ভাড়া করে কাতালগঞ্জের দিকে রওনা দেন সিদ্দিক। এর আগে হাটহাজারী থেকে তাদের নিয়ে আসা অটোরিকশা চালককে ২০০ টাকা দেন তিনি।
একইভাবে বেলা দেড়টার দিকে ট্রাফিক পুলিশ দেখে অটোরিকশা আরোহী তিন যুবককে নতুন পাড়া ব্রিজের কাছে নামিয়ে দিলে এক যুবক ঘটনাস’লে উপসি’ত ট্রাফিক পুলিশ কর্মকর্তা (টিআই) মহিউদ্দিনের কাছে শহর এলাকায় ঢুকতে না দেওয়ার কারণ জানতে চান। এসময় পুলিশ কর্মকর্তা মহিউদ্দিন ওই যুবককে ট্রাফিক আইনমতে অটোরিকশার বিরুদ্ধে ব্যবস’া নেওয়ার কথা জানান। এক পর্যায়ে ওই যুবক ট্রাফিক পুলিশ কর্মকর্তা মহিউদ্দিনের উদ্দেশে বলেন, ‘আপনাদের এ নিয়মটি ঠিক থাকবে তো?’
বেলা ১টার দিকে পুলিশ কর্মকর্তা মহিউদ্দিন সুপ্রভাতকে বলেন, ‘এক ঘণ্টায় (দুপুর ১২টা থেকে ১টা) ট্রাফিক আইন অমান্য করে শহর এলাকায় ঢোকার অপরাধে চারটি অটোরিকশা আটক এবং ১২টি অটোরিকশার বিরুদ্ধে মামলা দেওয়া হয়েছে। অভিযান অব্যাহত রয়েছে। চলবে প্রতিদিন বিকাল চারটা পর্যন্ত।’ গত তিনদিন ধরে নগরের প্রবেশপথ শাহ আমানত সেতু ও নতুন পাড়া ব্রিজ এলাকায় ট্রাফিক পুলিশ কঠোর অবস’ানে রয়েছে। নগরের যানজট নিরসন এবং ট্রাফিক ব্যবস’ায় শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনতে এ পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে বলে জানান ট্রাফিক পুলিশের এ কর্মকর্তা।
নতুনপাড়া ব্রিজ এলাকায় নগর ট্রাফিক পুলিশ অবস’ান করলেও তাদের ফাঁকি দিয়ে জেলা রুট এলাকায় চলাচলরত অন্তত ১৫-২০টি অটোরিকশা দেখা গেছে নগরের অক্সিজেন মোড় এলাকায়। এসময় এক অটোরিকশা চালককে জিজ্ঞাসা করলে জানান, পুলিশকে মাসোহারা দিয়ে অক্সিজেন থেকে রাউজান, ফটিকছড়ি ও নাজিরহাট রুটে গাড়ি চালাই। নতুন পাড়া ব্রিজ এলাকায় আমাদের আটক করেও ছেড়ে দিয়েছে ট্রাফিক পুলিশ। অভিযোগ প্রসঙ্গে নগর ট্রাফিক পুলিশের টিআই সুভাষ চন্দ্র দে বলেন, ‘একটি রিফুয়েলিং স্টেশনে গ্যাস নেয়ার জন্য গাড়িগুলো অক্সিজেন মোড়ে গিয়েছিল। পুলিশকে মাসোহারা দেওয়ার অভিযোগ সঠিক নয়।’