চবিতে আলোচনা সভায় উপাচার্য

শিক্ষার্থীদের জ্ঞান-বিজ্ঞানে সমৃদ্ধ হতে হবে

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় সনাতন ধর্ম পরিষদের উদ্যোগে গতকাল বিশ্ববিদ্যালয় উত্তর ক্যাম্পাসের মন্দির প্রাঙ্গণে বাণী অর্চনা ২০১৭ উপলক্ষে দিনব্যাপী কর্মসূচি পালিত হয়।
সকাল ১০.৩০ টায় এ উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপসি’ত থেকে ভাষণ দেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. ইফতেখার উদ্দিন চৌধুরী।
উপাচার্য তাঁর ভাষণে বলেন, বাংলাদেশের শান্তিপ্রিয় মানুষ ধর্মীয় সম্প্রীতিতে বিশ্বাস করে। তিনি বাঙালির হাজার বছরের সমাজ-ইতিহাস আলোকপাত করে বলেন, এ দেশের হিন্দু-মুসলমান-বৌদ্ধ-খ্রিস্টানসহ সকল ধর্মের মানুষ ১৯৭১ এ জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর আহ্বানে এবং তাঁরই বলিষ্ঠ নেতৃত্বে অসামপ্রদায়িক চেতনায় উজ্জীবিত হয়ে একটি রক্তক্ষয়ী মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে বিশ্ব মানচিত্রে প্রতিষ্ঠা করেছে স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশ। আজকের বাংলাদেশ বঙ্গবন্ধু তনয়া প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনার সুযোগ্য ও গতিশীল নেতৃত্বে এ দেশের প্রত্যেক ধর্মের মানুষ তাঁদের ধর্মীয় আচার-অনুষ্ঠান স্বাধীনভাবে পালন করছে। একটি মানবিক সমাজ তথা উন্নত-সমৃদ্ধ অসামপ্রদায়িক গণতান্ত্রিক বাংলাদেশ বিনির্মাণে ভূমিকা রেখে চলেছে।
উপাচার্য মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে সমুন্নত রেখে সকল প্রকার অশুভ-অন্ধকারকে পদদলিত করে সমাজ-দেশে সুন্দর-ন্যায়-কল্যাণ প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে বিশ্ববিদ্যালয় তরুণ শিক্ষার্থীদের জ্ঞান-বিজ্ঞানে সমৃদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানান।
অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন চবি কলা ও মানববিদ্যা অনুষদের ডিন প্রফেসর ড. মো. সেকান্দর চৌধুরী, ইঞ্জিনিয়ারিং অনুষদের ডিন প্রফেসর ড. শংকর লাল সাহা, পদার্থ বিদ্যা বিভাগের প্রফেসর ড. অরুণ কুমার দেব, এ.এফ.রহমান হলের প্রভোস্ট প্রফেসর ড. গণেশ চন্দ্র রায় ও শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক সুকান্ত ভট্টাচার্য, চবি রেজিস্ট্রার (ভারপ্রাপ্ত) প্রফেসর ড. মোহাম্মদ কামরুল হুদা ও বিশিষ্ট সমাজসেবক প্রফুল্ল রঞ্জন সিংহ। অনুষ্ঠানে মুখ্য আলোচক হিসেবে বক্তব্য রাখেন চবি অর্থনীতি বিভাগের প্রফেসর ড. জ্যোতি প্রকাশ দত্ত।
এতে স্বাগত বক্তব্য রাখেন সনাতন ধর্ম পরিষদের সভাপতি প্রফেসর ড. তাপসী ঘোষ রায়।
বাণী অর্চনা ২০১৭ এর সভাপতি প্রফেসর ড. অঞ্জন কুমার চৌধুরীর সভাপতিত্বে এবং সনাতন ধর্ম পরিষদের সাধারণ সম্পাদক প্রফেসর সজীব কুমার ঘোষের পরিচালনায় শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন বাণী অর্চণা-২০১৭ এর সাধারণ সম্পাদক রাহুল দাশ।
অনুষ্ঠানে আলোচক হিসেবে বক্তব্য রাখেন লোককবি কল্পতরু ভট্টাচার্য।
দিনব্যাপী অনুষ্ঠিত কর্মসূচির মধ্যে ছিল-সকাল ৭.৩০মিনিটে পূজারাম্ভ, ৯.৩০ মিনিটে পুস্পাঞ্জলি, দুপুর ১টায় মহাপ্রসাদ বিতরণ, বিকাল ৩টায় সম্মিলন, বিকাল ৪টায় মহানামসংকীর্তণ, বিকাল ৫টায় সন্ধ্যারতী এবং সন্ধ্যা ৭টায় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।
অনুষ্ঠানে সর্বস্তরের শিক্ষক-কর্মকর্তা-কর্মচারী ও তাঁদের পরিবারের সদস্যবৃন্দ উপসি’ত ছিলেন।

আপনার মন্তব্য লিখুন