বিদ্যুৎ থাকলেও লো ভোল্টেজ চলে না বৈদ্যুতিক যন্ত্রপাতি

লামা-আলীকদমে বিদ্যুতের ভেল্কিবাজি

গরমে অতিষ্ট জনজীবন

নিজস্ব প্রতিনিধি,লামা

গ্রীষ্মের প্রচণ্ড তাবদাহে অসি’র সবাই। এর সাথে প্রতিযোগিতা দিয়ে বেড়েছে লামা-আলীকদমে বিদ্যুতের তীব্র লোডশেডিং। এতে অতীষ্ট হয়ে উঠেছে জনজীবন। বিশেষ করে এই সমস্যার জন্য কোমলমতি শিক্ষার্থীরা বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। বিদ্যুতের এমন লুকোচুরিতে তাদের লেখাপড়া বিঘ্নিত হচ্ছে।প্রচণ্ড গরমে শিশু ও বৃদ্ধরা আক্রান্ত হচ্ছে বিভিন্ন রোগে।বর্তমান সরকারের সময়ে যথেষ্ট পরিমাণ বিদ্যুৎ উৎপাদন এবং নতুন নতুন বিদ্যুৎ কেন্দ্র স’াপন হলেও পার্বত্য লামা-আলীকদম উপজেলার ভিন্নরুপ। বিদ্যুতের অবস’া এই আছে-এই নেই।অতীষ্ট হয়ে উঠেছে জনজীবন।এ ব্যাপারে লামা বিদ্যুৎ বিতরণ কেন্দ্রের আবাসিক বিদ্যুৎ প্রকৌশলী জানান, সারাদেশে বিদ্যুতের কোন লোডশেডিং নেই। জাতীয় গ্রিডে বিদ্যুৎ রয়েছে পর্যাপ্ত। লামা-আলীকদমে বিদ্যুতের প্রয়োজনীয় ট্রান্সফরমার,মিটার না থাকা ও হাইভোল্টেজ খুঁটির উপর এবং পাশে বড় বড় গাছসহ জঙ্গলাকীর্ণ থাকায় সামান্য বাতাসে বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে। বিশেষ করে এপ্রিল মে দু’মাস তীব্র বাতাস-ঘূর্ণিঝড়প্রবণ হওয়ায় সমস্যা হয়ে থাকে। তিনি জানান জুন মাস থেকে সমস্যা কমে আসবে।ভোল্টেজ কম থাকার ব্যাপারে তিনি বলেন, এলাকায় যথেষ্ট ক্ষুদ্রশিল্প যেমন স’মিল, ওয়েল্ডিং মেশিন, অটো রাইস মিল, হলুদ-মরিচ গুঁড়া করার মেশিন ইত্যাদি সংযোগ রয়েছে।একইসাথে এই দু’ উপজেলায় প্রায় হাজার খানেক অটো রিক্সা ও টমটমের ব্যাটারি চার্জ করা হচ্ছে প্রতিনিয়ত। এর ফলে ঘাটতিজনিত প্রভাব সবার উপর পড়ছে।বিদ্যুৎ বিভাগ সূত্র জানায়, পুরাতন কিছু লাইনে তারের ইন্সুলেশন নষ্ট হয়েও সমস্যা দেখা দিয়েছে। এ সূক্ষ্ম সমস্যাটি খুঁজে বের করতেও অনেক সময় লেগে যায়। তিনি জানান, রাতদিন পরিশ্রম করেও মানুষের মন রক্ষা করা যায়না। ‘বিদ্যুৎ বন্ধ হলে সবাই ভাবেন আমরা কিছু করছিনা বা ইচ্ছে করলে আমরা নিরবিচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ দিতে পারি’। লামা-আলীকদম উপজেলার ভূ-অবস’া, যোগযোগ ব্যবস’ার সাথে সমন্বয় করে সবেমাত্র বিদ্যুৎ সরবরাহ ব্যবস’া চালু হয়েছে। অপরদিকে জনবল সংকটও রয়েছে। সব মিলিয়ে সমস্যা নিরসনে দ্রুত ব্যবস’া নেয়া হচ্ছে বলে জানাগেছে।এদিকে প্রয়োজনীয় মাত্রার চেয়ে একেবারে কম ভোল্টেজ হওয়ায় গ্রাহকদের বাসাবাড়ি ও বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানে- ফ্রিজ, কম্পিউটার, ফটোকপি মেশিন, মোবাইল, পানির মোটর, টিভিসহ মূল্যবান ইলেক্ট্রনিক সামগ্রী নষ্ট হচ্ছে। বাসাবাড়িতে নিভু নিভু আলো, বৈদ্যূতিক পাখার কচ্ছপ গতি, পানির মোটর না চলা ইত্যাদি বিষয়ে অতিষ্ট হয়ে চরম ক্ষুদ্ধ হয়ে পড়েছে সর্বস্তরের গ্রাহক। বিদ্যুৎ সংকট নিরসনের বিষয়টি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ নজর দেবেন-এমনটি দাবি করেছেন লামা-আলীকদমবাসী।