লংগদুতে হাজারো পরিবার পানিবন্দি

নিজস্ব প্রতিনিধি, লংগদু

গত কয়েকদিন ধরে টানা অবিরাম বর্ষণে ও ভারত থেকে পাহাড় বেয়ে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলের কারণে কাপ্তাই হ্রদের পানি অস্বভাবিকভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে।
ওপর থেকে নেমে আসা পানিতে সৃষ্ট বন্যায় লংগদু উপজেলার সাতটি ইউনিয়নের কয়েক হাজার পরিবার তাদের বাড়িঘর পানিতে তলিয়ে যাওয়ায় নিকট আত্মীয়স্বজনের উঁচু জায়গায় এবং বিভিন্ন স্কুল-মাদ্রাসায় আশ্রয় নিয়েছে বলে খবর পাওয়া গেছে। আবার অনেকে পানি বন্দি হয়ে দুর্ভোগ পোহাচ্ছে।
খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, উপজেলার কাট্টলী বাজারটি হ্রদবেষ্টিত হওয়ায় বাজারটি পানির ঢেউয়ে ভাঙনের ঝুঁকিতে রয়েছে।
এলাকার জনপ্রতিনিধি সূত্র জানায়, বিভিন্ন এলাকায় চলাচলের রাস্তাঘাট পানিতে তলিয়ে যাওয়ায় এবং অবিরাম বৃষ্টির কারণে ছাত্রছাত্রী ও জনসাধারণের চলাচলে বিঘ্ন সৃষ্টি হচ্ছে।
এদিকে আটারকছড়া ইউনিয়নের উত্তর ইয়ারিংছড়ি সেনামৈত্রী আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয় ও সংলগ্ন প্রাথমিক বিদ্যালয়টি হ্রদের পানিতে তলিয়ে গেছে। ফলে ঐ এলাকার কয়েক শ ছাত্রছাত্রীর পড়ালেখা বন্ধ রয়েছে। এছাড়া ঐ এলাকার স’ানীয় ইয়ারিংছড়ি বাজারের অনেক দোকানপাট ও ঘরবাড়ি পানিতে তলিয়ে গেছে।
প্রশাসনের পক্ষ থেকে এসব ব্যাপারে খোঁজখবর নেওয়া হচ্ছে বলে জানা গেছে। তবে পানিবন্দিদের কাছে এখনও পর্যনআত কোনো প্রকার ত্রাণসমগ্রী পৌঁছানোর খবর পাওয়া যায়নি।
উপজেলার ফোরেরমুখ, সাধুর টিলা, জারুল বাগান, রাঙ্গীপাড়া, বগাচতর, ভাসাইনা্যাদম, কালাপাকুজ্জা, গুলশাখালী, গাঁথাছড়া, মাইনীমুখসহ সাত ইউনিয়ন কম-বেশি বন্যায় ভাসছে।
খেত-ফসলের ক্ষতি হয়েছে। মৎস্যবাঁধেরও ক্ষতি হয়েছে বলে খবর পাওয়া গেছে।
প্রশাসন সূত্র জানায়, অতিবৃষ্টি হওয়ায় হ্রদের পানি বৃদ্ধি পাচ্ছে। একারণে কাপ্তাই বাঁধের ষোলটি স্পিলওয়ের দরজা খোলা রাখা হয়েছে। বৃষ্টি বন্ধ হলে পানি কমে যাবে।