দৃষ্টিপাত

স্টিফেন হকিং এক বিস্ময়ের নাম

রায়হান আহমেদ তপাদার

স্টিফেন উইলিয়াম হকিং, গ্যালিলিও গ্যালিলাই-এর মৃত্যুর ঠিক তিনশ বছর পরে, ১৯৪২ সালের ৮ জানুয়ারি অক্সফোর্ডে জন্মগ্রহণ করেন। স্টিফেন উইলিয়াম হকিং বিশিষ্ট ইংরেজ তাত্ত্বিক পদার্থ বিজ্ঞানী ও গণিতজ্ঞ হিসেবে বিশ্বের সর্বত্র পরিচিত ব্যক্তিত্ব। তাঁকে বিশ্বের সমকালীন তাত্ত্বিক পদার্থবিদদের মধ্যে অন্যতম হিসাবে বিবেচনা করা হয়। এছাড়াও তিনি কেমব্রিজের গনভিলি এবং কেয়াস কলেজের ফেলো হিসেবে কর্মরত ছিলেন। শারীরিকভাবে ভীষণরকম অচল এবং এএলএসের (যা একপ্রকার মোটর নিউরন রোগ) জন্য ক্রমাগতভাবে সম্পূর্ণ অথর্বতার দিকে ধাবিত হওয়া সত্ত্বেও বহু বছর যাবৎ তিনি তাঁর গবেষণা কার্যক্রম সাফল্যের সঙ্গে চালিয়ে যাচ্ছেন।
পদার্থবিজ্ঞানে হকিংয়ের দুটি অবদানের কথা সবচেয়ে বেশি স্বীকৃত। প্রথম জীবনে সতীর্থ রজার পেনরাজের সঙ্গে মিলে সাধারণ আপেক্ষিকতায় সিংগুলারিটি সংক্রান্ত তত্ত্ব। হকিং প্রথম অনিশ্চয়তার তত্ত্ব ব্ল্যাক হোলের ঘটনা দিগন্তে প্রয়োগ করে দেখান, যে ব্ল্যাক হোল থেকে বিকিরিত হচ্ছে কণা প্রবাহ। এই বিকিরণ এখন হকিং বিকিরণ নামে (অথবা কখনো কখনো বেকেনস্টাইন-হকিং বিকিরণ) অভিহিত। প্রায় ৪০ বছর ধরে হকিং তত্ত্বীয় পদার্থবিজ্ঞানের চর্চা করছেন। লিখিত পুস্তক এবং বিভিন্ন অনুষ্ঠানে হাজির থেকে হকিং একাডেমিক জগতে যথেষ্ট খ্যাতিমান হয়ে উঠেছেন। তিনি রয়েল সোসাইটি অব আর্টসের সম্মানীয় ফেলো এবং পন্টিফিকাল একাডেমি অব সায়েন্সের আজীবন সদস্য ২০১৪ সালে তাকে নিয়ে একটি মুভি তৈরি হয়,নাম থিওরি অব এভরিথিং।
১৯৬০ সালের থেকে তাকে হুইল চেয়ার ব্যবহার করা শুরু করেন। ১৯৮৫ সালে ফ্রান্সে একটি সম্মেলনে যোগ দেয়ার সময় তিনি গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়েন। তার অবস্থা এতটাই খারাপ ছিল যে, ডাক্তাররা তার কষ্ট দেখে শ্বাসনালী খুলে দেয়ার জন্য পরামর্শ দেন। কিন্তু তার স্ত্রীর অস্বীকৃতিতে তা করা হয়নি। এ যাত্রায় হকিং বেঁচে যান, কিন্তু তিনি তার বাকশক্তি হারান। এরপর কিছুদিন তাকে ইংরেজি শব্দ যুক্ত বোর্ডের মাধ্যমে চোখের ইশারায় ভাব প্রকাশ করতে হয়। পরে একটি স্পিচ জেনারেটিং ডিভাইস যুক্ত স্বয়ংক্রিয় কম্পিউটারের মাধ্যমে তিনি ভাব প্রকাশ করার সুযোগ পান যা তিনি এখনও ব্যবহার করছেন। এভাবে জীবনের বহু প্রতিকূলতার মধ্য দিয়ে আজ পৃথিবীর অন্যতম সেরা বিজ্ঞানী হিসাবে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করেছেন।
সমপ্রতি এক সাক্ষাৎকারে তিনি জানান, ১৯৮০ সালে তিনি নিজের শ্বাসরোধ করে আত্মহত্যার চেষ্টা করেছিলেন। সিদ্ধান্তটা ভুল ছিল। তিনি মানেন যে, কেউ যদি আত্মহত্যা করতে চায় তাহলে তাকে তা করতে দেয়া উচিত, কারন সমাজের বোঝা হয়ে বেঁচে থাকার চেয়ে মৃত্যুই ভাল। তবে তিনি এটাও বিশ্বাস করেন যতক্ষণ জীবন বেঁচে আছে ততক্ষণ সম্ভাবনা আছে। আমাদের সবারই যেকোনো পরিস্থিতি থেকে ঘুরে দাঁড়ানোর সুযোগ আছে। হকিংয়ের একটি প্রকাশনা থেকে জানা গেছে তাদের বসতবাড়ির কয়েকটি গলি পরেই জার্মানির ভি-২ মিসাইল আঘাত হানে। স্টিফেনের জন্মের পর তাঁরা আবার লন্ডনে ফিরে আসেন। স্টিফেনের বাবা ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট ফর মেডিক্যাল রিসার্চের প্যারাসাইটোলজি বিভাগের প্রধানের দায়িত্ব পালন করেন।
বিজ্ঞানে হকিংয়ের সহজাত আগ্রহ ছিল। হকিংয়ের বাবার ইচ্ছে ছিল হকিং যেন তার মতো ডাক্তার হয়। কিন্তু হকিং গণিত পড়ার জন্য অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের ইউনিভার্সিটি কলেজে ভর্তি হন। কিন্তু যেহেতু সেখানে গণিতের কোর্স পড়ানো হতো না, সেজন্য হকিং পদার্থবিজ্ঞান বিষয় নিয়ে পড়া শুরু করেন। সে সময়ে তার আগ্রহের বিষয় ছিল তাপগতিবিদ্যা, আপেক্ষিকতা এবং কোয়ান্টাম বলবিদ্যা। তত্ত্বীয় কসমোলজি আর কোয়ান্টাম মধ্যাকর্ষ হকিংয়ের প্রধান গবেষণা ক্ষেত্র।
১৯৬০ এর দশকে ক্যামব্রিজের বন্ধু ও সহকর্মী রজার পেনরোজের সঙ্গে মিলে হকিং আইনস্টাইনের আপেক্ষিকতার তত্ত্ব থেকে একটি নতুন মডেল তৈরি করেন। সেই মডেলের ওপর ভিত্তি করে ১৯৭০ এর দশকে হকিং প্রথম তাদের (পেনরোজ-হকিং তত্ত্ব নামে পরিচিত) তত্ত্বের প্রথমটি প্রমাণ করেন। এই তত্ত্বগুলো প্রথমবারের মতো কোয়ান্টাম মহাকর্ষে এককত্বের পর্যাপ্ত শর্তসমূহ পূরণ করে। আগে যেমনটি ভাবা হতো এককত্ব কেবল একটি গাণিতিক বিষয়। এই তত্ত্বের পর প্রথম বোঝা গেল, এককত্বের বীজ লুকানো ছিল আপেক্ষিকতার সাধারণ তত্ত্বে। ১৯৮৫ সালে মৃত্যুর মুখ থেকে ফিরে আসেন হকিং?
১৯৮৫ সালের গ্রীষ্মে জেনেভার ঈঊজঘ এ অবস্থানকালে নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত হয়েছিলেন বিজ্ঞানী। চিকিৎসকরাও তাঁর কষ্ট দেখে একসময় লাইফ সাপোর্ট সিস্টেম বন্ধ করে দেওয়ার প্রস্তাব দিয়েছিলেন। সমপ্রতি হকিং-এর জীবন নিয়ে তৈরি হয়েছে এক তথ্যচিত্র। সেখানেই এই তথ্য জানিয়েছেন হকিং। তিনি বলেছেন, নিউমোনিয়ার ধকল আমি সহ্য করতে পারিনি, কোমায় চলে গিয়েছিলাম? তবে চিকিৎসকরা শেষ অবধি চেষ্টা চালিয়ে গিয়েছিলেন, হাল ছাড়েননি? কিন্তু চেষ্টা সত্ত্বেও অবস্থার উন্নতি না হওয়ায় যন্ত্রণা থেকে মুক্তি দিতে চিকিৎসকরা হকিংয়ের স্ত্রী জেনকেও লাইফ সাপোর্ট সিস্টেম বন্ধ করে দেয়ার কথা জানান? তবে সে প্রস্তাবে অবশ্য রাজি হননি জেন। পাঁচ দশক ধরে মোটর নিউরোনের ব্যাধির শিকার জগৎখ্যাত এই পদার্থবিদ। গত দু’দশকের সঙ্গী জেন বলেছেন, হকিংয়ের এই ব্যাধি আমাদের ব্যক্তিজীবনের ব্ল্যাকহোল। যে গহ্বরে বাঁচার আশা হয়ত তলিয়ে যেতে পারত অনেক আগেই? কিন্তু সম্পর্কে আস্থা আর পরস্পরের প্রতি অগাধ ভালবাসা তলিয়ে যেতে দেয়নি। তথ্যচিত্রে কর্মজীবনের চেয়ে হকিংয়ের ব্যক্তিজীবনকে বেশি গুরুত্ব দেওয়ায় বিজ্ঞানীদের একাংশ অসন্তোষ প্রকাশ করেছেন। তাঁদের দাবি, বিজ্ঞানে অবদান ছাড়া হকিংয়ের জীবনকে দেখানো মানে বকলমে তাঁকেই গুরুত্বহীন করে তোলা। তবে তথ্যচিত্রে এমন কিছু তথ্যও পরিবেশিত হয়েছে, যা হকিংয়ের একটা অদেখা দিক আমাদের সামনে তুলে ধরে? কালো কিন্তু কালো নয়! বলছি কৃষ্ণবিবরের কথা। মহাবিশ্বের সৃষ্টিরহস্যের তাত্ত্বিক ব্যাখায় কৃষ্ণবিবর আর এমন এক বিকিরণ তত্ত্বের ব্যাখা দিলেন স্টিফেন হকিং,যা তাঁকে পদার্থ বিজ্ঞানের বর্তমান সময়ের শ্রেষ্ঠ বিজ্ঞানীর মর্যাদার আসন এনে দিয়েছে।
স্টিফেন হকিং, জীবন্ত এক কিংবদন্তি। মহাবিশ্ব সৃষ্টির রহস্য ‘বিগ ব্যাং থিউরি’র প্রবক্তা স্টিফেন হকিং। হকিং ক্যামব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয়ের লুকাসিয়ান অধ্যাপক পদ থেকে ২০০৯ সালে অবসর নেন। তিনি ক্যামব্রিজের গনভিলি এবং কেয়াস কলেজের ফেলো হিসেবে কর্মরত ছিলেন। রয়্যাল সোসাইটি অব আর্টসের সম্মানীয় ফেলো এবং পন্টিফিকাল একাডেমি অব সায়েন্সের আজীবন সদস্য তিনি। ২১ বছর বয়স থেকেই দুরারোগ্য মটর নিউরন রোগে ভুগছেন হকিং। কিন্তু শারীরিক অক্ষমতা তাঁকে বিখ্যাত হওয়া থেকে রুখতে পারেনি। হকিংয়ের বাবা ফ্র্যাঙ্ক হকিং ছিলেন জীববিজ্ঞানের গবেষক। আর মা ইসাবেল হকিং ছিলেন একজন রাজনৈতিক কর্মী। বাবা চেয়েছিলেন হকিং বড় হয়ে চিকিৎসক হোক। কিন্তু ছেলেবেলা থেকেই হকিংয়ের আগ্রহ বিজ্ঞানে আর গণিতে। ১৯৮৮ সালে ‘অ্যা ব্রিফ হিস্ট্রি অব টাইম’ বইয়ের মাধ্যমে বিশ্বব্যাপী বিখ্যাত হয়ে ওঠেন হকিং। বইটিতে তিনি মহাবিশ্বের সৃষ্টি রহস্য নিয়ে তত্ত্ব দেন। আন্তর্জাতিক ভাবে বেস্ট সেলার হিসেবে বইটির এক কোটি কপি বিক্রি হয়। মহাবিশ্ব নিয়ে প্রকাশিত তাঁর সর্বশেষ বই ‘দ্য গ্র্যান্ড ডিজাইন’। আইনস্টাইনের পর হকিংকে বিখ্যাত পদার্থবিদ হিসেবে গণ্য করা হয়।

লেখক : লেখক ও কলামিস্ট,