রাশিয়ার সঙ্গে সৈন্য প্রশিক্ষণের চুক্তি পাকিস্তানের

সুপ্রভাত বহির্বিশ্ব ডেস্ক

রাশিয়ার সামরিক প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউটগুলোতে পাকিস্তানি সেনাদের প্রশিক্ষণের বিষয়ে দুই দেশের মধ্যে একটি চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়েছে বলে জানিয়েছে ইসলামাবাদ। মঙ্গলবার রাশিয়া- পাকিস্তান যৌথ সামরিক পরামর্শদাতা কমিটির (জেএমসিসি) প্রথম বৈঠক শেষে এই চুক্তি হয় বলে পাকিস্তানের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের এক বিবৃতির বরাতে জানিয়েছে ডন। খবর বিডিনিউজের।

‘পাকিস্তানের সেনাবাহিনীর সদস্যদের রাশিয়ান ফেডারেশনের সামরিক প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউটগুলোতে ভর্তির বিষয়ে চুক্তিতে স্বাক্ষর করেছে দুই দেশ,’ বিবৃতিতে বলেছে পাকিস্তানের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়। জেএমসিসিকে রাশিয়া ও পাকিস্তানের প্রতিরক্ষা সহযোগিতার সর্বোচ্চ পরিষদ হিসেবেও অ্যাখ্যা দিয়েছে তারা। চলতি বছরের শুরুর দিকে পাকিস্তানের সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী খাজা আসিফের মস্কো সফরের সময় দুই দেশ সামরিক সহযোগিতা বাড়াতে একটি কমিশন গঠনের প্রস্তাবে সম্মত হয়েছিল।

রাওয়ালপিন্ডিতে জেএমসিসির প্রথম বৈঠকে রাশিয়ার উপ-প্রতিরক্ষামন্ত্রী কর্নেল জেনারেল আলেক্সান্দার ফোমিন তার দেশের প্রতিনিধিদলের নেতৃত্ব দেন বলে জানিয়েছে ডন।
পাকিস্তানের প্রতিনিধিদের নেতৃত্বে ছিলেন দেশটির প্রতিরক্ষা সচিব অবসরপ্রাপ্ত লেফটেনেন্ট জেনারেল জামিরুল হাসান শাহ। বৈঠকে ২০১৪ সালের নভেম্বরে দুই দেশের মধ্যে স্বাক্ষরিত প্রতিরক্ষা সহযোগিতা চুক্তির আলোকে হওয়া অগ্রগতিতে সন্তোষ জানানো হয়। চার বছর আগের ওই চুক্তির ধারাবাহিকতাতেই ২০১৫ সালের অক্টোবরে রাশিয়া ও পাকিস্তানের মধ্যে অস্ত্র সরবরাহ এবং যুদ্ধাস্ত্র আধুনিকায়নে সহযোগিতা বিষয়ক সামরিক- প্রযুক্তিগত সহযোগিতা বিষয়ক সমঝোতা হয়।

দ্বিপক্ষীয় সামরিক সহযোগিতার অংশ হিসেবে গত তিন বছরে রাশিয়া পাকিস্তানকে চারটি এমআই-৩৫ হেলিকপ্টার দিয়েছে; ‘বন্ধুত্ব’ নামে দুই দেশের মধ্যে একটি যৌথ মহড়াও অনুষ্ঠিত হয়েছে। জেএমসিসির বৈঠকে মধ্যপ্রাচ্য ও আফগানিস্তান প্রসঙ্গেও আলোচনা হয়েছে বলে জানিয়েছে ডন।
আফগানিস্তানে মধ্যপ্রাচ্যভিত্তিক জঙ্গিগোষ্ঠী ইসলামিক স্টেটের (আইএস) উত্থান ও সিরিয়া-ইরাক থেকে চলে আসা জঙ্গিদের অবস’ানের বিষয়ে রাশিয়ার উদ্বেগ নিয়েও যৌথ সামরিক পরামর্শদাতা কমিটির বৈঠকে কথা হয়েছে।