চকরিয়ায় যানজট নিরসনে অভিযান

রমজান মাসজুড়ে বাজার মনিটরিং কার্যক্রম জোরদার

নিজস্ব প্রতিনিধি, চকরিয়া

মাহে রমজান উপলক্ষে জনগণের অবাধ চলাচল নিশ্চিতে চকরিয়া পৌরশহর থেকে যানজট নিরসনকল্পে প্রতিদিনের অভিযানে নেমেছেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নুরউদ্দিন মুহাম্মদ শিবলী নোমান। ইতোমধ্যে তিনি অভিযান চালিয়ে শহর থেকে অন্তত তিন শতাধিক অবৈধ ভাসমান দোকান উচ্ছেদ করেছেন। পাশাপাশি ঝাড়- হাতে নিয়ে পৌরসভার বাণিজ্যিক জনপদে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা অভিযান করেছেন। বর্তমানে তিনি প্রতিদিন সরকারি দাপ্তরিক কাজের ফাঁকে পৌরশহরে যানজট নিরসন অভিযানে রয়েছেন। অপরদিকে আসন্ন রমজান উপলক্ষে সকল ধরনের পণ্য বিক্রিতে যাতে ক্রেতাসাধারণ প্রতারণার শিকার না হয় সেই জন্য উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ইতোমধ্যে তাঁর দপ্তরে সকল স্তরের ব্যবসায়ীদের সাথে মতবিনিময় করেছেন। সভায় ইউএনও ব্যবসায়ী নেতৃবৃন্দকে অতিরিক্ত মুনাফা আদায়ের লক্ষ্যে সিন্ডিকেট না করতে এবং তালিকা মতে কম দামে ভালোমানের পণ্য বিক্রি করতে আহবান জানান। পাশাপাশি পণ্য বিক্রিতে ওজনের কারচুপি যাতে না ঘটে সেদিকে নজর রাখার নির্দেশ দেন। ভোক্তা সাধারণের মাঝে সেবা নিশ্চিতে উপজেলা ভ্রাম্যমাণ আদালত ও উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে রমজান মাসজুড়ে বাজার মনিটরিং কার্যক্রম জোরদার করা হবে বলেও সভায় জানান ইউএনও । চকরিয়া পৌরসভার বাণিজ্যিক শহরে আইনশৃঙ্খলা পরিসি’তি, যানজট নিরসন ও পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা অভিযানে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার সাথে উপসি’ত ছিলেন চকরিয়া পৌরসভার মেয়র ও উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক আলমগীর চৌধুরী, সচিব মাস-উদ মোর্শেদ, চকরিয়া থানার এসআই আলমগীর আলম, চিরিঙ্গা সমিতির সম্পাদক ও চকরিয়া পৌরসভা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক সেলিম সিকদার লিটন। অপরদিকে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত মতবিনিময় সভায় উপসি’ত ছিলেন চকরিয়া ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি রেজাউল হক সওদাগর, আনোয়ার শপিং কমপ্লেঙ মার্কেট মালিক আনোয়ার হোসেন, সোসাইটি কাঁচাবাজার মার্কেট মালিক মুজিবুল হক মনু, ব্যবসায়ী নেতা মনজুর হোসেন চৌধুরী, চকরিয়া বিমানবন্দর রোড ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি আবুল কালাম আবু সওদাগর, সাধারণ সম্পাদক এম. নুরুস শফি, চিরিঙ্গা ফল ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি আবুল হোসেন, ওশান সিটির ম্যানেজার হাফেজ আনোয়ার। চকরিয়া পৌরসভার মেয়র আলমগীর চৌধুরী বলেন, প্রশাসনের ধারাবাহিক অভিযানের পরও কতিপয় লোক ফুটপাত দখলে নিয়ে ভাসমান দোকান বসিয়ে বেচাকেনা ও অবৈধ পরিবহন কাউন্টার খুলে যানবাহনে যাত্রী ওঠানামা করার ফলে দীর্ঘদিন ধরে চকরিয়া পৌরশহর যানজটের নগরীতে পরিণত হয়েছে। উপজেলা প্রশাসন ও পৌরসভার সমন্বয়ে শহরের যানজট নিরসনে বারবার উদ্যোগ নেয়া হলেও জড়িতদের অসহযোগিতার কারণে সত্যিকার অর্থে পরিচ্ছন্ন শহর গড়ে তোলা সম্ভব হচ্ছে না। মেয়র বলেন, আসন্ন রমজান মাস সামনে রেখে চকরিয়া শহরকে যানজটমুক্ত করতে এবং কঙবাজার-চট্টগ্রাম মহাসড়কে সব ধরনের যানবাহন চলাচল নির্বিঘ্ন করতে প্রশাসনের সিদ্ধান্তের আলোকে চকরিয়া শহরে অভিযান শুরু হয়েছে। অভিযানের শুরুতে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নুরউদ্দিন মুহাম্মদ শিবলী নোমান, থানার ওসি বখতিয়ার উদ্দিন চৌধুরী ও পৌরসভার সকল কাউন্সিলর এবং বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা ঝাড়- হাতে শহরে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা অভিযান উদ্বোধন করেন। এরপর ফুটপাতে অবৈধভাবে গড়ে তোলা ভাসমান দোকান উচ্ছেদ করা হয়।
বর্তমানে অভিযানের পাশাপাশি আসন্ন রমজান মাসে নিত্যপণ্যের বাজার সি’তিশীল রাখতে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মনিটরিং কার্যক্রম জোরদার করেছে।