আঞ্চলিক টাস্কফোর্স সভায় চট্টগ্রাম বিভাগীয় কমিশনার

রমজানে নিত্যপণ্য মজুদ করে দাম বাড়ালে ব্যবস’া

বিজ্ঞপ্তি

চট্টগ্রাম বিভাগীয় কমিশনার মো. আবদুল মান্নান বলেছেন, আসন্ন পবিত্র রমজানে কোনো অসাধু ব্যবসায়ী চক্র নিত্যপণ্য মজুদ করে মূল্য বৃদ্ধি করলে তা মানবো না। কাঁচা মরিচের দাম হঠাৎ করে ২’শ টাকা তা হতে দেবো না। বাজার মনিটরিং কার্যক্রম চলমান থাকবে। সাধারণ জনগণকে জিম্মি করে নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যের মূল্য বৃদ্ধি করলে চিহ্নিত ব্যবসায়ীদের আইনের আওতায় আনা হবে। সরকার এ ব্যাপারে সতর্ক রয়েছে।
এছাড়া মিয়ানমারের কোনো নাগরিক বা রোহিঙ্গাও যাতে নতুন করে এদেশে অনুপ্রবেশ করতে না পারে সেজন্য বিজিবিসহ সংশিস্নষ্ট আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীকে কঠোর অবস’ানে থাকতে হবে।
সোমবার সকাল ১০টা থেকে বিকেল ৩টা পর্যনত্ম চট্টগ্রাম সার্কিট হাউসে পৃথকভাবে অনুষ্ঠিত চট্টগ্রাম আঞ্চলিক টাস্কফোর্স সভা, বিভাগীয় আইন-শৃঙ্খলা কমিটির সভা, জেলা প্রশাসকগণের সাথে সমন্বয় সভা ও বিভাগীয় রাজস্ব সম্মেলনে সভাপতির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। চট্টগ্রাম বিভাগীয় কমিশনার অফিস পৃথক সভাগুলোর আয়োজন করেন।
পুলিশের চট্টগ্রাম রেঞ্জ ডিআইজি খন্দকার গোলাম ফারম্নক বলেন, মাদক রোধে পুলিশের পড়্গ থেকে থাকবে জিরো টলারেন্স।
সিএমপি কমিশনার মোহাম্মদ মাহাবুবুর রহমান বলেন, চট্টগ্রাম মহানগরীর আইন-শৃঙ্খলা স্বাভাবিক রয়েছে।
চট্টগ্রাম বিভাগীয় কমিশনার মোহাম্মদ আবদুল মান্নানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত পৃথক সভাগুলোতে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার (সার্বিক) শংকর রঞ্জন সাহা, পুলিশের চট্টগ্রাম রেঞ্জ ডিআইজি খন্দকার গোলাম ফারম্নক, চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশ (সিএমপি) কমিশনার মো. মাহাবুবুর রহমান, বিভাগীয় পরিচালক (স’ানীয় সরকার) দীপক চক্রবর্তী, বিজিবির চট্টগ্রাম রিজিয়নের ডেপুটি কমান্ডার কর্ণেল

মো. আরেফিন, ডিজিএফআই’র চট্টগ্রাম শাখার কর্মকর্তা বি. জেনারেল মোহাম্মদ এমদাদ, বিজিবি বান্দরবানের সেক্টর কমান্ডার মো. জহিরম্নল হক, অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার (উন্নয়ন) মো. নুরম্নল আলম নিজামী, জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ ইলিয়াস হোসেন (চট্টগ্রাম), তন্ময় দাস (নোয়াখালী), মো. মাজেদুর রহমান খান (চাঁদপুর), আবুল ফজল মীর (কুমিলস্না), মোহাম্মদ দাউদুল ইসলাম (বান্দরবান), অঞ্জন চন্দ্র পাল (লক্ষ্মীপুর), একেএম মামুনুর রশিদ (রাঙামাটি), মো. কামাল হোসেন (কক্সবাজার), মো. শহিদুল ইসলাম (খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা), মো. ওয়াহিদুজ্জামান (ফেনী), হায়াত-উদ-দৌলা খাঁন (ব্রাহ্মণবাড়িয়া), চট্টগ্রাম অঞ্চলের বন সংরড়্গক ড. মো. জগলুল হোসেন, কাস্টমস্ কমিশনার কাজী মোসত্মাফিজুর রহমান, মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের অতিরিক্ত পরিচালক মো. মুজিবুর রহমান পাটওয়ারী, কোস্ট গার্ড পূর্ব জোনের কমান্ডার মোহাম্মদ হাসান, কাস্টমস্, এক্সাইজ ও ভ্যাট কমিশনার মোহাম্মদ এনামুল হক ও শুল্ক গোয়েন্দা অধিদপ্তরের ডেপুটি ডিরেক্টর মোহাম্মদ মারম্নফুর রহমান প্রমুখ।