নুরুল কবির চৌধুরীর অঙ্গীকার

রত্নাপালংয়ে দুটি সাইক্লোন শেল্টার কাম স্কুল নির্মাণ প্রক্রিয়া শুরু

নিজস্ব প্রতিনিধি, উখিয়া

আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে রত্নাপালং ইউনিয়নে বিএনপির একক মনোনীত প্রার্থী নুরুল কবির চৌধুরীর গত ৫ বছরের উন্নয়নের ধারাবাহিকতায় পাল্টে গেছে এলাকার সার্বিক চিত্র। ইতোমধ্যে করইবনিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও ভালুকিয়া তুলাতলি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ৩ তলাবিশিষ্ট দুটি সাইক্লোন শেল্টার কাম স্কুল ভবন নির্মাণ প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। স’ানীয় সরকার মন্ত্রণালয় এ সংক্রান্ত একটি আদেশে উখিয়া এলজিইডি বরাবরে প্রেরণ করে যতদ্রুত সম্ভব স্কুলভবন নির্মাণ কাজ সম্পন্ন করার নির্দেশ দিয়েছে।
নুরুল কবির চৌধুরীর মেয়াদকাল অর্থাৎ ২০১২ সালের সবার জন্য স্বাস’্যসম্মত স্যানিটেশন প্রকল্পটি বাস্তবায়নের লক্ষে এ উপজেলার রত্নাপালং ইউনিয়নকে মনোনীত করে জনস্বাস’্য প্রকৌশল অধিদপ্তর মাত্র এক বছরের ব্যবধানে সবার জন্য স্বাস’্যসম্মত পায়খানা প্রকল্প বাস্তবায়ন করে কক্সবাজার জেলায় দৃষ্টান্ত স’াপন করে। রত্নাপালং ইউনিয়নের বৃহত্তর ভোটারের মতে, সরকার প্রদত্ত অর্থ চাহিদা অনুপাতে সংকুলন না হওয়ায় উক্ত চেয়ারম্যান সরকারের বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ে যোগাযোগ, দেন-দরবার ও নিজস্ব অর্থব্যয়ের মাধ্যমে তিনি অতিরিক্ত উন্নয়ন বরাদ্দ এনে রত্নাপালং ইউনিয়নকে উপজেলার একটি মডেল ইউনিয়নে রূপান্তর করার লক্ষে ৫ বছরে তার স্বাভাবিক জীবনযাত্রা রত্নাপালং ইউনিয়নবাসীর জন্য উৎসর্গ করেছেন।
সরেজমিন রত্নাপালং ইউনিয়নের গ্রামীণ জনপদ ঘুরে ভোটারদের সাথে কথা বলে জানা যায়, নুরুল কবির চৌধুরী আসন্ন ইউপি নির্বাচনে পুনর্বার চেয়ারম্যান নির্বাচিত হলে এলাকায় মান্ধাতার আমলের কাঁচা সড়ক ও বাঁশের সাঁকো বিলুপ্ত হয়ে যাবে। নির্মিত হবে অসমাপ্ত ব্রিজ, কালভার্ট, ফুট ব্রিজ, ব্রিকসলিন ও কার্পেটিং সড়ক। সাধারণ মানুষের দাবি, প্রাকৃতিক দুর্যোগ বা ব্রিজধসে সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হলে রত্নাপালং ইউনিয়নের ওপর দিয়ে গ্রামীণ সড়ক ব্যবহার করে কক্সবাজার-টেকনাফ বিকল্প যোগাযোগ রক্ষা সম্ভব। এতে প্রতীয়মান হ্য, নুরুল কবির চৌধুরী গত ৫ বছরে এলাকায় অভূতপূর্ব উন্নয়ন করেছেন।
উল্লেখ্য, বিশ্বব্যাংকের সহায়তাপুষ্ট এলজিইডি’র অধীন বহুমুখি দুর্যোগ আশ্রয়কেন্দ্র প্রকল্পের আওতায় উখিয়ার রত্নাপালং ইউনিয়নে প্রায় ৬ কোটি টাকা ব্যয়ে দুটি সাইক্লোন শেল্টার কাম স্কুলভবন নির্মাণ প্রকল্প শুরু হয়েছে। উপজেলা প্রকৌশল অধিদপ্তর সূত্র জানায়, রত্নাপালং ইউনিয়নের চেয়ারম্যান নুরুল কবির চৌধুরী সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ে তদবিরসহ ব্যক্তিগত টাকা খরচ করে এদুটি ভবনের বরাদ্দ এনেছেন। তন্মধ্যে রয়েছে করইবনিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও ভালুকিয়া তুলাতলী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়। চেয়ারম্যান প্রার্থী নুরুল কবির চৌধুরী জানান, ৩ তলা বিশিষ্ট এ দুটি স্কুলভবন নির্মাণকাজ সম্পন্ন হলে পর্যায়ক্রমে আরও একাধিক স্কুলভবনসহ মসজিদ, মন্দির, মাদ্রাসা, অসমাপ্ত গ্রামীণ সড়ক, পরিত্যক্ত পুকুর সংস্কার, চাহিদা মোতাবেক স’ানে নলকূপ স’াপন ও রত্নাপালং ইউনিয়নের প্রতিটি ঘরে ঘরে বিদ্যুতায়নের কাজ সম্পন্ন করা হবে।

আপনার মন্তব্য লিখুন