যুব এশিয়া কাপ ভারতের

সুপ্রভাত ক্রীড়া ডেস্ক

শ্রীলঙ্কাকে উড়িয়ে দিয়ে যুব এশিয়া কাপের শিরোপা পুনরুদ্ধার করেছে ভারত। ফাইনালে ব্যাটসম্যানদের দৃঢ়তায় তিনশ ছাড়ানো সংগ্রহ গড়া দলটি অনায়াস জয় পেয়েছে হার্শ তিয়াগির দারুণ বোলিংয়ে। শিরোপা নির্ধারণী ম্যাচে ১৪৪ রানে জিতেছে ভারত। ৩০৫ রানের লক্ষ্য তাড়ায় শ্রীলঙ্কা থমকে ১৬০ যায় রানে। অনূর্ধ্ব-১৯ এশিয়া কাপে এটি ভারতের ষষ্ঠ শিরোপা। প্রথম পাঁচ আসরের চ্যাম্পিয়ন ভারত গত আসরে প্রথমবারের মতো ফাইনালে উঠতে ব্যর্থ হয়। সেবার পাকিস্তানকে হারিয়ে শিরোপা জেতে আফগানিস্তান। এবার অপরাজিত চ্যাম্পিয়ন হল ভারত। খবর বিডিনিউজ’র।
মিরপুর শের-ই-বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে রোববার টস জিতে ব্যাট করতে নেমে দুই ওপেনারের শতরানের জুটিতে শুরুটা ভালো করে ভারত। যশ্বসী জয়সওয়ালের সঙ্গে অনুজ রাওয়াতের ২৫.১ ওভার স’ায়ী ১২১ রানের জুটি ভাঙেন দুলিথ ওয়েলালাগে। ৭৯ বলে তিন ছক্কা আর চার চারে ৫৭ রান করে ফিরে যান রাওয়াত।
দ্বিতীয় উইকেটে দেবদত্ত পাদিক্কালের সঙ্গে ৫৯ রানের জুটি গড়ে ফিরে যান জয়সওয়াল। ৮ চার ও ১ ছক্কায় ১১৩ বলে এই ওপেনার করেন ৮৫ রান। তার বিদায়ের পর দ্রুত ফিরে যান পাদিক্কাল। টপ অর্ডারের সাজানো মঞ্চে শেষটায় ঝড় তুলেন অধিনায়ক সিমরান সিং ও আয়ুশ বাদোনি। তাদের বিস্ফোরক ব্যাটিংয়ে শেষ ১০ ওভারে ১১৩ রান তুলে তিনশ ছাড়ায় ভারতের সংগ্রহ।
কিপার ব্যাটসম্যান সিমরান ৩৭ বলে তিন চার আর চার ছক্কায় অপরাজিত থাকেন ৬৫ রানে। ২৮ বলে ৫ ছক্কা আর দুই চারে বাদোনি খেলেন ৫২ রানের টর্নেডো ইনিংস। তার পাঁচ ছক্কার চারটিই আসে বাঁহাতি স্পিনার শাশিকা দুলশানের এক ওভার থেকে।
বড় রান তাড়ায় যে শুরু দরকার ছিল তা পায়নি শ্রীলঙ্কা। অধিনায়ক নিপুন পেরেরার বিদায়ে ২০ রানে ভাঙে শুরুর জুটি। টপ অর্ডারের অন্য দুই ব্যাটসম্যান নিশান ফার্নন্দো ও পাসিন্দু সুরিয়াবান্দারা ফিরেন থিতু হয়ে।
দুই ছক্কা ও এক চারে ৬৭ বলে ৪৯ রান করে ফিরে যান নিশান ফার্নান্দো। ৩২ বলে ৩১ রান করে তাকে অনুসরণ করেন সুরিয়াবান্দারা। দুই থিতু ব্যাটসম্যানকে বিদায়ের পর দ্রুত কালানা পেরেরা ও নুভানিদু ফার্নান্দোকে বিদায় করেন হার্শ। বাঁহাতি এই স্পিনারের চার উইকেটে ম্যাচ থেকে অনেকটাই ছিটকে যায় শ্রীলঙ্কা।
সেখান থেকে আর ম্যাচে ফিরতে পারেনি দলটি। শেষ আট ব্যাটসম্যানের মধ্যে দুই অঙ্কে যান কেবল নাবোদ পারানাভিথানা। শেষ ব্যাটসম্যান হিসেবে ফেরার আগে ৬১ বলে দুটি করে ছক্কা-চারে ৪৮ রান করেন তিনি। শেষটাতেও ছোবল দেন হার্শ। ৩৮ রানে ৬ উইকেট নিয়ে বাঁহাতি এই স্পিনার প্রায় একাই গুঁড়িয়ে দেন লঙ্কানদের।