কক্সবাজার-চট্টগ্রাম মহাসড়কে মানববন্ধন

যাত্রী পরিবহনে পৃথক সিট বরাদ্দের দাবি

নিজস্ব প্রতিনিধি, চকরিয়া

কক্সবাজার-চট্টগ্রাম মহাসড়কে চলাচলরত যাত্রীবাহী বাসগুলোতে চকরিয়াসহ আশপাশের ছয় উপজেলার যাত্রীদের জন্য প্রয়োজনীয় সংখ্যক সিট বরাদ্দ রাখা ও চট্টগ্রাম থেকে সরাসরি চকরিয়া পর্যন্ত আলাদা বিআরটিসি বাস সার্ভিস চালুর দাবিতে মানববন্ধন হয়েছে চকরিয়া পৌর শহরে।
গতকাল শুক্রবার সকালে অনুষ্ঠিত মানববন্ধনে বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ অংশ নেন। স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন স্বাধীন মঞ্চ’র এই কর্মসূচির সঙ্গে একাত্মতা প্রকাশ করেন বেশ কয়েকটি সামাজিক ও স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন।
মানববন্ধনে বক্তারা অভিযোগ করেন, চট্টগ্রাম-কক্সবাজার থেকে যাত্রীবাহী বাসে করে চকরিয়ায় আসার জন্য পদে পদে ভোগান্তি পোহাতে হয় চকরিয়া, পেকুয়া, মহেশখালী, কুতুবদিয়া এবং বান্দরবানের লামা ও আলীকদম উপজেলার যাত্রীদের।
এসব উপজেলার যাত্রীদের জন্য প্রয়োজনীয় সংখ্যক আসন (সিট) বরাদ্দ না থাকা, থাকলেও একেবারে পেছনে বসতে বাধ্য করা, এসব যাত্রীকে চট্টগ্রাম থেকে কক্সবাজার পর্যন্ত ভাড়া দিয়ে আসন নিতে বাধ্য করাসহ অতিরিক্ত ভাড়া আদায়। বছরের পর বছর ধরে বৈষম্যমূলক ও অমানবিক এই আচরণ করছে এই সড়কে চলাচলরত বাসগুলো। এতে সঠিক সময়ে গন্তব্যে পৌঁছুতে না পারা, চরম বৈষম্যের শিকার হওয়াসহ প্রতিনিয়ত ভোগান্তি নিয়ে যাতায়াত করতে হচ্ছে চকরিয়াসহ আশপাশের উপজেলার যাত্রীসাধারণের।
মানববন্ধনে বক্তব্য দেন চকরিয়া উপজেলা পরিষদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান সাফিয়া বেগম শম্পা, চকরিয়া সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ আ ক ম গিয়াস উদ্দিন, স্বাধীন মঞ্চ’র তানভীর আহমদ সিদ্দিকী তুহিন, সাংবাদিক ছোটন কান্তি নাথ, শুভ সংঘের জ্যেষ্ঠ সহ-সভাপতি আরিফুল ইসলাম ও সহ-সভাপতি বিপ্লব দাশগুপ্ত, পিস ফাইন্ডারের প্রতিষ্ঠাতা আদনান রামিম, উপজেলা যুবলীগ নেতা হেলাল উদ্দিন হেলালী, যুবলীগ নেতা নাঈমুল সিকদার। উপসি’ত ছিলেন সাইফুল করিম শিমুল, হাসনাত মো. ইউসুফ, নাহিয়ান, বাসু দাশ, রনজয় দাশ, আবদুল আজিজ আজাদ, তানভীর হাসান রিফাত, আমজাদ শাহরিয়ার জুয়েল, ছাত্রলীগ নেতা আবদুল বারেক টিপু, আবির মোহাম্মদ, সাদ্দাম হোসেন, এস এ শামীম, উত্তম দে, প্রকাশ দাশ প্রমুখ।
স্বাধীন মঞ্চ’র প্রতিষ্ঠাতা তানভীর আহমদ সিদ্দিকী তুহিন বলেন, ‘যুগ যুগ ধরে চকরিয়াসহ আশপাশের উপজেলার যাত্রী-সাধারণ প্রতিদিন চট্টগ্রামে যাতায়াতের ক্ষেত্রে চরম বৈষম্যের শিকার হয়ে আসছেন। তাই এই দাবিতে আমরা মাঠে নেমেছি মানববন্ধন কর্মসূচির মাধ্যমে। এই মহাসড়কে চলাচলরত এস আলম, সৌদিয়া, হানিফ, শ্যামলী, ইউনিক পরিবহনসহ অন্যান্য বাসগুলোতে চকরিয়াসহ এই অঞ্চলের যাত্রীদের জন্য আলাদা আসন সংরক্ষিত রাখতে হবে।
চট্টগ্রাম থেকে চকরিয়া পর্যন্ত সরাসরি আলাদা বাস সার্ভিস চালুর বিষয়ে জানতে চাইলে এমপি জাফর আলম বলেন, ‘এই অঞ্চলের যাত্রীদের দীর্ঘদিনের সমস্যা নিরসনে উদ্যোগ নেওয়া হবে। প্রয়োজনে বিষয়টি জাতীয় সংসদেও উত্থাপন করে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রীর দৃষ্টিতে আনবো।’