‘যাকাত তহবিলের কার্যক্রম অনুকরণীয়’

হতদরিদ্র মানুষদের রিকশা প্রদান, সেলাই মেশিন, বিদেশ গমনে সহায়তা, কর্জ পরিশোধে সহায়তা, পঙ্গুদের জন্য ট্রলি প্রদান, বিবাহ সহায়তা, দূরারোগ্য রোগীদের চিকিৎসা ব্যয়ে সহায়তা, এমনকি চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসারত হত দরিদ্র রোগীদের ওষুধপত্র এবং চিকিৎসা সরঞ্জমাদি কেনার জন্য রোগীকল্যাণ সমিতিকে আর্থিক সাহায্য দিয়ে শাহানশাহ হযরত সৈয়দ জিয়াউল হক মাইজভাণ্ডারী (ক.) ট্রাস্ট এর দারিদ্র্য বিমোচন প্রকল্প যাকাত তহবিল ব্যাপকভাবে কাজ করে চলেছে। তাদের ব্যাপক কর্মকান্ড অবশ্যই প্রশংসার দাবীদার এবং এ ধরণের সমাজ হিতৈষী ও মানবতাবাদী প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশের জন্য অতীব গুরুত্বপূর্ণ। কারণ বাংলাদেশ সরকারের পক্ষে এককভাবে দারিদ্র্য বিমোচন করা সম্ভব নয়। এ জন্য আমাদের সমাজের ধনী ব্যাক্তিবর্গ এবং বিভিন্ন সামাজিক সংগঠনকে দারিদ্র্য বিমোচনে ব্যাপকভাবে এগিয়ে আসতে হবে। এ প্রতিষ্ঠানের কর্মকান্ড অন্যান্য সামাজিক প্রতিষ্ঠানের জন্য অনুকরণীয় দৃষ্টান্ত।
৬ আগস্ট দারিদ্র্যবিমোচন প্রকল্প (যাকাত তহবিল) এর পক্ষ থেকে দুস্থ রোগীদের চিকিৎসা সহায়তায় এক লক্ষ টাকার চেক গ্রহণকালে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক বিগ্রেডিয়ার জেনারেল মো. জালাল উদ্দীন এ কথা বলেন।
এ সময় পর্ষদ সভাপতি লায়ন দিদারুল আলম বলেন, ২০০৩ সাল থেকে এসজেডএইচএম ট্রাস্টের যাকাত তহবিল দারিদ্র্যবিমোচন প্রকল্পের আওতায় এ পর্যন্ত ১৩৪১ জনকে তিন কোটি একচল্লিশ হাজার নয়শত ত্রিশ টাকা প্রদান করেছে।
এসময় অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন যাকাত তহবিল পরিচালনা পর্ষদের সভাপতি আলহাজ লায়ন দিদারুল আলম চৌধুরী, সমাজসেবা অফিসার ও রোগীকল্যাণ সমিতির সাধারণ সম্পাদক অভিজিৎ সাহা, পর্ষদ সাধারণ সম্পাদক আবদুল হালিম আল মাসুদ, সহ সাধারণ সম্পাদক মো. গিয়াস উদ্দীন চৌধুরী ও আল্লামা গোলাম মোহাম্মদ শায়েস্তা খান আল আজহারী প্রমুখ। বিজ্ঞপ্তি