মেলা নতুন প্রজন্মকে বই পড়ার প্রতি আগ্রহী করে তুলবে

বিজ্ঞপ্তি

চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের আয়োজনে সম্মিলিত উদ্যোগে অমর একুশে বই মেলা উপলড়্গে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীনকে প্রধান উপদেষ্টা ও প্রিমিয়ার বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. অনুপম সেন ও চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. ইফতেখার উদ্দিন চৌধুরীকে উপদেষ্টা করে একটি পূর্ণাঙ্গ আহ্বায়ক কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটির আহ্বায়ক করা হয়েছে চসিক শিড়্গা স্বাস’্য স্ট্যান্ডিং কমিটির চেয়ারম্যান কাউন্সিলর নাজমুল হক ডিউককে। যুগ্ম আহ্বায়ক করা হয়েছে চট্টগ্রাম সৃজনশীল প্রকাশক পরিষদের সভাপতি মহিউদ্দিন শাহ আলম নিপুকে। আহ্বায়ক কমিটির সদস্যরা মেলার সার্বিক প্রস’তি ও পরিকল্পনা নিয়ে গতকাল বৃহস্পতিবার বিকেলে চসিক কনফারেন্স হলে এক সভায় মিলিত হন।
সভায় প্রধান উপদেষ্টা মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন উপসি’ত ছিলেন।
এতে অন্যদের মধ্যে প্রফেসর মোহীত উল আলম, চসিক প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো. সামসুদ্দোহা, কাউন্সিলর নাজমুল হক ডিউক, প্রধান শিড়্গা কর্মকর্তা সুমন বড়-য়া, মাধ্যমিক ও উচ্চ শিড়্গা চট্টগ্রাম অঞ্চলের উপ পরিচালক ড. আজাদ বুলবুল, অধ্যাপক প্রকৌশলী এম আলী আশরাফ, আগ্রাবাদ মহিলা কলেজের সাবেক অধ্যাড়্গ আনোয়ারা আলম, জেলা শিল্পকলা একাডেমির সাধারণ সম্পাদক সাইফুল আলম বাবু, ইউনেস্কো চট্টগ্রাম জেলা সাংগঠনিক সম্পাদক কোহিনূর শাকি, চট্টগ্রাম মুক্তিযুদ্ধ গবেষণা কেন্দ্র ট্রাস্টের ডা. মাহফুজুর রহমান, প্রথম আলোর যুগ্ম সম্পাদক বিশ্বজিৎ চৌধুরী, নাট্যকার আহমেদ ইকবাল হায়দার, চট্টগ্রাম সৃজনশীল প্রকাশক পরিষদের সাধারণ সম্পাদক জামাল উদ্দীন, সংগঠক দেওয়ান মাকসুদ আহমেদ, প্রমা আবৃত্তি সংগঠনের সভাপতি রাশেদ হাসান, চসিক কৃষ্ণকুমারী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রাক্তন প্রধান শিড়্গক মর্জিনা আখতার ইউসুফ মোহাম্মদ, প্রকাশক রেহেনা চৌধুরী, দৈনিক বীর চট্টগ্রাম মঞ্চের প্রধান প্রতিবেদক আরিফ রায়হান, শিশু সাহিত্যিক আবুল কালাম বেলাল, আবির প্রকাশনের মো. নুরম্নল আবছার, সাদার্ন ইউনিভার্সিটির মুশফিক হোছাইন, উপসচিব আশেকরসুল চৌধুরী টিপু, সাহাবুদ্দিন মজুমদার প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।
এ সময় মেয়র বলেন, প্রকাশকরা মেলা উপলড়্গে তাদের প্রকাশিত বই নিয়ে অংশগ্রহণ করতে পারবেন। এজন্য চসিক এর পড়্গ থেকে লেখক, প্রকাশকদের সার্বিক নিরাপত্তাসহ সর্বোতভাবে সহযোগিতা করা হবে। তবে এবারের চট্টগ্রামের বই মেলায় অন্যান্যবারের তুলনায় ভিন্ন। ঢাকা বাংলা একাডেমির আদলে আয়োজিত হবে এই মেলা। প্রকাশকরা তাদের নিজ নিজ স্টলে সাজ সজ্জা করবেন।
মেয়র বলেন, দেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম নগরী হিসেবে চট্টগ্রামের বই মেলা যাতে সর্ব মহলে সমাদৃত হয়। এতে করে নতুন প্রজন্ম বই কেনা ও পড়ার প্রতি আগ্রহী হয়ে উঠবে বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন।
সভায় ২১ জানুয়ারি থেকে বই মেলার স্টল ফরম বিতরণ, সরকারি বন্ধের দিন সকাল ১০টা থেকে রাত ৯টা এবং অন্যান্য দিন বিকেল ৩টা থেকে রাত ৯টা পর্যনত্ম জনসাধারণের জন্য উন্মুক্ত রাখার সিদ্ধানত্ম গৃহীত হয়।