মুক্তিযুদ্ধের বিজয় মেলার স্মৃতিচারণে বনমন্ত্রী মহাজোটকে আবারও ক্ষমতায় আনতে হবে

বিজ্ঞপ্তি

সরকারের বন, পরিবেশ ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রী ব্যারিস্টার আনিসুল ইসলাম মাহমুদ বলেন, এ সরকারের বিগত ১০ বছর মেয়াদে দেশের প্রত্যেকটি উন্নয়ন সূচক দৃশ্যমান। দেশের এ উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে হলে আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে মুক্তিযুদ্ধের স্বপড়্গের শক্তি মহাজোট সরকারকে আবারও ড়্গমতায় আনতে হবে। গতকাল ১১ ডিসেম্বর রাত সাড়ে ৮টায় চট্টগ্রাম এম এ আজিজ স্টেডিয়াম সংলগ্ন জিমনেসিয়াম মাঠে অনুষ্ঠিত মুক্তিযুদ্ধের বিজয় মেলার দ্বিতীয় দিনের স্মৃতিচারণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।
মুক্তিযুদ্ধের বিজয় মেলা পরিষদের কো-চেয়ারম্যান কমান্ডার সাহাবউদ্দিনের সভাপতিত্ব্বে অনুষ্ঠিত স্মৃতিচারণ অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন বিজয় মেলা পরিষদের মহাসচিব কমান্ডার মোজাফ্ফর আহমদ।
শাহাব উদ্দিন মজুমদারের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত বিজয় মেলার স্মৃতিচারণ অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন জাতীয় পার্টির সাবেক সংসদ সদস্য সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী ও চট্টগ্রাম উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক ইউনুছ গনি চৌধুরী।
অন্যান্যের মধ্যে স্মৃতিচারণ করেন মুক্তিযুদ্ধের বিজয় মেলা পরিষদের কো- চেয়ারম্যান শহীদুল হক চৌধুরী সৈয়দ, কো চেয়ারম্যান একেএম সরোয়ার কামাল দুলু, কো চেয়ারম্যান এমএন ইসলাম, কো চেয়ারম্যান মো. নুর উদ্দিন, পরিষদের অর্থ সচিব সাধন চন্দ্র বিশ্বাস, বীর মুক্তিযোদ্ধা খোরশেদ আলম (যুদ্ধাহত), চান্দগাঁও থানা কমান্ডার কুতুব উদ্দিন, পাহাড়তলি থানা কমান্ডার হাজী জাফর আহমদ, খুলশী থানা কমান্ডার মো. ইউসুফ, সদরঘাট থানা কমান্ডার জাহাঙ্গীর আলম, পাঁচলাইশ থানা কমান্ডার আহমদ মিয়া, বন্দর থানা কমান্ডার কামরম্নল আলম জতু, স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের শিল্পী মৃনাল ভট্টাচার্য্য, বীর মুক্তিযোদ্ধা প্রদ্যুৎ কুমার পাল, টিএম মাহবুব, আবদুল লতিফ, এম.এ সবুর, এস.এম নজরম্নল ইসলাম তিতাস, রমজান মিয়া প্রমুখ। বিজ্ঞপ্তি
, এমএ মনসুর চৌধুরী, অঞ্জন কুমার সেন, সামসুদ্দোহা আলী, সৈয়দ আহমদ, মো আনোয়ার হোসেন, এম.এ মন্নান খান, লেয়াকত হোসেন, আশীষ গুপ্ত, শম্ভু দাশ, আবদুর রব কায়েস, গোলাম নবী, নুর আহমদ, ওয়াহিদুলস্নাহ, বাবুল দত্ত, রঞ্জন সিংহ, মো সোলায়মান, ওয়াহিদুল হক, শহীদুল হক দুলু, বীর মুক্তিযোদ্ধার সনত্মান হাছান মোহাম্মদ আবু হান্নান প্রমুখ।
মুক্তিযুদ্ধের বিজয় মেলার মঞ্চে বিপুল পাল ও সুরঞ্জনা চৌধুরীর সঞ্চালনায় দলীয় সঙ্গীত পরিবেশন করেন সুন্দরম শিল্পী গোষ্ঠী, প্রতিভা সঙ্গীত একাডেমী, রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটি, সৎসঙ্গ সঙ্গীত নিকেতন অনিমা শিল্পী গোষ্ঠী। দলীয় নৃত্য পরিবেশন করেন সুরাঙ্গন বিদ্যাপীঠ, দ্বীপশিখা নৃত্য গোষ্ঠী। একক সঙ্গীত পরিবেশন করেন বাংলাদেশ বেতার ও টেলিভিশনের বিশিষ্ট শিল্পী বিপাশা ধর, মণিকা ইসলাম, পাপড়ী ভট্টাচার্য্য, হিমেল মন্ডল, মোনালিসা ও ইমন শীল। একক আবৃত্তি করেন ঈশান দাশ।