মিরসরাইয়ের আক্তার হোসেন ডেইরি ফার্মে স্বাবলম্বী

রাজু কুমার দে, মিরসরাই

শুরুটা করেছিলেন ২০১৭ সালের ডিসেম্বরে। মাত্র ১টি গাভী দিয়ে শুরু করেন তিনি। সেই থেকে শুরু। গড়ে তোলেন একটি ডেইরি ফার্ম। দৈনিক দুধ পান প্রায় ১শ৮০ লিটার। এভাবে চট্টগ্রামের মিরসরাইয়ের করেরহাট ইউনিয়নের পশ্চিম জোয়ার গ্রামের শেখ আক্তার হোসেন এসআই নামে একটি ডেইরি ফার্ম গড়ে তোলেন। বর্তমানে তার ফার্মে ৮জন বিভিন্ন পর্যায়ে কর্মরত। সম্প্রতি এসআই ডেইরি ফার্মে গিয়ে দেখা যায়, গাভীর পরিচর্য়ায় ব্যস্ত আক্তার হোসেন। এসময় তিনি জানান, ২০১৭ সালে ডিসেম্বরে ১ লাখ ৩০ হাজার টাকায় একটি গাভী কিনে শখের বশে পালন শুরু করেন। ২০১৮ সালে ঈদুল আযহা উপলক্ষে আত্মীয় স্বজনদের কাছ থেকে টাকা ধার নিয়ে ৩৭টি গরু কিনেন। ওই গরু বিক্রি করে প্রায় ৮ লাখ টাকা লাভ হয়। পরবর্তীতে ওই টাকায় দিয়ে ৬টি গাভী কিনেন। বর্তমানে তার ডেইরি ফার্মে ৩৬টি গাভী ও ৫টি ষাঁড় রয়েছে। এগুলো জার্সি, ফিজিয়ান, মুন্ডি ও রানী জাতের। প্রতিটি গাভী দৈনিক ১২ থেকে ১৯ লিটার দুধ দেয়। দৈনিক প্রায় ১শ৮০ লিটার দুধ পান তিনি। ওই দুধ বিক্রি করে গাভীদের খাদ্যসহ যাবতীয় খরচ মিটে যায়। এ দুধ স’ানীয়ভাবে বাজারজাত করা হয়। তিনি আরো জানান, দৈনিক গাভীগুলোর খাদ্য ও ওষুধ বাবদ ৭হাজার ২শ টাকা খরচ হয়। খাদ্যে ব্যবহার করা হয় ভূষি, পাতা ভূষি, ডালের কণা, ভুট্টা, মসুরী, মাশকলাই, খেসারী, খৈল ও কাঁচা শুকনা ঘাস। দৈনিক দুধ বিক্রি হয় প্রায় সাড়ে ৮ হাজার টাকার। ঘাসের চাহিদা মেটাতে তিনি ৩ একর জমিতে ঘাস চাষ করেন। এছাড়া রয়েছে বড় দুইটি শুকনো ঘাসের গাদা। জানা গেছে, বর্তমানে মিরসরাইয়ে প্রায় ১৫টি ডেইরি ফার্ম রয়েছে। উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা শ্যামল পোদ্দার জানান, আক্তার হোসেন স্বল্প পরিসরে শুরু করে বর্তমানে একটি ডেইরি ফার্ম গড়ে তুলেছেন। এলাকার সচেতন যুব উদ্যোক্তারা ধীরে ধীরে ডেইরি ফার্মের দিকে ঝুঁকছে। উপজেলা প্রাণিসম্পদ কার্যালয় থেকে তাদের প্রশিক্ষণ, চিকিৎসাসেবাসহ সবধরনের সহযোগিতা করা হয়।