মহেশখালীতে পাহাড় নিধন অব্যাহত

ম্যাজিস্ট্রেটের অভিযানে ট্রাক জব্দ, কাজ বন্ধের নোটিশ

নিজস্ব প্রতিনিধি, মহেশখালী

কক্সবাজারের মহেশখালীতে প্রভাবশালী যুবলীগ নেতার নেতৃত্বে অব্যাহতভাবে পাহাড় নিধন চলছে। প্রশাসনের বার বার অভিযানেও বন্ধ করা যাচ্ছে না এই নিধনযজ্ঞ। গত রোববার সন্ধ্যায় নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের নেতৃত্বে পাহাড়ি এলাকায় অভিযান চালিয়ে পাহাড় কেটে মাটি পরিবহণের কাজে নিয়োজিত একটি ট্রাক জব্দ করা হয়। এ সময় পাহাড় কাটাসহ সব ধরনের কাজ বন্ধ রাখার নির্দেশ দেওয়া হয়। বেশ কয়েকদিন ধরে সরকারি আদেশ উপেক্ষা করে ধারাবাহিকভাবে এই পাহাড় নিধনযজ্ঞ চালিয়ে আসার অভিযোগ রয়েছে উপজেলা যুবলীগ নেতা ও শাপলাপুর ইউনিয়ন পরিষদের মেম্বার আব্দুস সালামের বিরুদ্ধে। সূত্র জানায় আব্দুস সালাম মেম্বার সরকারি নিয়ম ও সকল প্রকার আইন অবজ্ঞা করে তার নিজের লোকজন দিয়ে বেশ কয়েকদিন ধরে শাপলাপুরের পাহাড়ি এলাকায় প্রাকৃতিক উঁচু ভূমি কেটে মাটি বিক্রি করে আসছিল। প্রশাসনের কাছ থেকে কোনো প্রকার অনুমোদন না নিয়ে স্কেভেটার দিয়ে মাটি কেটে অন্যস’ানে নিয়ে যাচ্ছিল। পুলিশ এ সময় মাটি কাটার পক্ষে তার কাছে কোনো প্রকার কাগজপত্র থাকলে তা নিয়ে থানায় আসার পরামর্শ দেন। কাগজ না দেখিয়েই তিনি একাজ সঅব্যাহত রাখে বলে জানায় পুলিশ। এদিকে পাহাড় কাটার বিষয়টি সর্বত্র জানাজানি হলে উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) হাসান মারুফ মাটি কাটার স’ান পরিদর্শন করে সব ধরনের কাজ বন্ধ রাখার নির্দেশ দেন। প্রশাসনের এমন নির্দেশনায়ও কোনো প্রকার সাড়া না দিয়ে পাহাড় কাটার কাজ অব্যাহত রেখে মাটি ব্যবসা চালিয়ে যেতে থাকে আব্দুস সালাম ও তার সিন্ডিকেটের লোকজন। এদিকে প্রতিদিন দশটির অধিক ট্রাক পাহাড় কাটা মাটি পরিবহণ করতে গিয়ে কয়েকটি গ্রামীণ সড়ক প্রায় ধ্বংস করে ফেলে।
মাটি পরিবহণ করতে গিয়ে একটি সড়ক ক্ষতিগ্রস্ত হয়। একটি কালভার্ট ও বিদ্যুতের খুঁটিও নষ্ট হয়ে যায়। এ নিয়ে থানা ও উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কাছে লিখিত অভিযোগ করা হয়েছে। গত রোববার সন্ধ্যায় মহেশখালী উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট হাসান মারুফ ঘটনাস’ল পরিদর্শন করেন। এ সময় আব্দুস সালামের ভাই ও তার পরিবারের লোকজন ম্যাজিস্ট্রেটকে তার কাজে বেশ অসহযোগিতা করেন বলে জানা গেছে। পরে একদল পুলিশ ঘটনাস’লে পৌঁছান। এ সময় ম্যাজিস্ট্রেট মাটি পরিবহনের কাজে নিয়োজিত একটি ট্রাক মাটিসহ জব্দ করেন। নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট হাসান মারুফ জানান সম্পূর্ণ অবৈধভাবে এই মাটি কাটা ও পরিবহণ কাজ চলছে। এমন কাজের জন্য তাকে আইনের মুখোমুখি দাঁড় করানো হবে। বিষয়টি গভীর ভাবে খতিয়ে দেখাহচ্ছে উল্লেখ করে তিনি বলেন এ নিয়ে প্রয়োজনে মামলা বা ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে দণ্ড দেওয়া যেতে পারে বলে জানান। এব্যাপারে উপজেলা যুবলীগের আহ্বায়ক আলহাজ্ব সাজেদুল করিম জানান তার এমন জঘন্য কাজের দায় যুবলীগ নেবে না। প্রশাসন সঠিক পথে আছে উল্লেখ বলে তিনি বলেন সকলের উচিৎ এধরনের কাজের বিরুদ্ধে সোচ্চার হওয়া।