ভোটের আগে রক্তপাতের আশঙ্কায় অলি

সুপ্রভাত ডেস্ক

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন ঘিরে রক্তপাত এড়াতে সংলাপের উদ্যোগ দ্রুত নিতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোটভুক্ত দল এলডিপির চেয়ারম্যান অলি আহমদ। মঙ্গলবার ঢাকার তেজগাঁও এলাকার দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক অনুষ্ঠানে তিনি বলেন, সংসদ নির্বাচন ঘিরে আগামীতে ‘খুবই কঠিন’ দিন আসছে। ‘যতই দিন যাবে বিশৃঙ্খলা হবে, যতই দিন যাবে রক্তপাত বৃদ্ধি পাবে।’ খবর বিডিনিউজ।
আগামী ডিসেম্বরে একাদশ সংসদ নির্বাচনের প্রস্তুতি চললেও নির্বাচনকালীন সরকার নিয়ে এখনও দুই প্রধান রাজনৈতিক শিবিরে বিরোধ রয়েছে। বিএনপি জোটের দলগুলো সংসদ ভেঙে, খালেদা জিয়াকে মুক্তি দিয়ে নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচনের দাবি জানালেও তা প্রত্যাখ্যান করছে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ।
রক্তপাত এড়াতে সাবেক সেনা কর্মকর্তা অলি বিরোধী দলগুলোকে ‘সচেতন’ হওয়ার পাশাপাশি সরকারকে নমনীয় হওয়ার আহ্বান জানান। সরকারের উদ্দেশে তিনি বলেন, ‘কেউ যদি মনে করে, আমরা একাই দেশ চালাব, এটা হবে না। নির্বাচন হলে সকল দলের অংশগ্রহণ করার প্রয়োজন রয়েছে। সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য রক্তপাত এড়ান। গালি দিয়ে, মন্দ কথা বলে, কাউকে শাসিয়ে, সমালোচনা করে সমস্যার সমাধান হবে না। ‘সবাই বসেন, আলোচনা করেন কীভাবে সুন্দর নির্বাচন হবে। সকলে কীভাবে অংশগ্রহণ করবে, সকলের জন্য কীভাবে সমান সুযোগ নিস্তিত হবে, এগুলো নিয়ে কথা বলেন।’ একদলীয় নির্বাচন দিয়ে ‘ভোটছাড়া ক্ষমতা দখল করার’ সুযোগ আর হবে না বলে ঁ ৭ম পৃষ্ঠার ৪র্থ কলাম
ঁ শেষ পৃষ্ঠার পর
হুঁশিয়ার করেন এলডিপি নেতা।
গণফোরাম সভাপতি কামাল হোসেনের উদ্যোগে গঠিত জাতীয় ঐক্যফ্রন্টে বিএনপি যোগ দিলেও এখনও সিদ্ধান্ত জানায়নি এলডিপি। উল্টো দলটির বিএনপি জোট ছাড়ার গুঞ্জনও রয়েছে।
এই প্রসঙ্গে সাংবাদিকদের প্রশ্নে এলডিপি চেয়ারম্যান অলি বলেন, ‘আমরা জোটে আছি। আমি বিদেশ যাব, ২৯ অক্টোবর ফিরব। এর মধ্যে জোটের সভায় দলের মহাসচিব রেদোয়ান আহমেদ প্রতিনিধিত্ব করবেন।’ ২৬ অক্টোবর এলডিপির প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালনের অনুষ্ঠান আয়োজনে বিভিন্ন জেলায় পুলিশ অনুমতি দিচ্ছে না বলে অভিযোগ করেন তিনি।
অনুষ্ঠানে এলডিপি মহাসচিব রেদোয়ান আহমেদ বলেন, ‘জাতীয় ঐক্যফ্রন্টে আমরা কীভাবে থাকব, না থাকব না, সেটার সিদ্ধান্ত এখনও হয়নি।’ জাতীয় পার্টিসহ বিভিন্ন দল থেকে কয়েকজন নেতাকর্মীর এলডিপিতে যোগদান উপলক্ষে ওই অনুষ্ঠান আয়োজন করা হয়।