ভর্তি পরীক্ষার আবেদন শুরু

চবি সংবাদদাতা

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে (চবি) স্নাতক প্রথম বর্ষের (২০১৮-১৯ শিক্ষাবর্ষ) ভর্তি পরীক্ষার অনলাইন আবেদন শুরু হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার সকাল ১১টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের আইটি ভবনে অবসি’ত ভার্চুয়াল ক্লাসরুমে অনলাইনে ভর্তি প্রক্রিয়ার উদ্বোধন করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. ইফতেখার উদ্দিন চৌধুরী। ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থীরা আজ থেকে ৬ অক্টোবর রাত ১১টা ৫৯ মিনিট পর্যন্ত অনলাইনে আবেদন করতে পারবে।
অনুষ্ঠানে একাডেমিক রেজিস্ট্রার এস এম আকবর হোছাইনের সঞ্চালনায় আরও উপসি’ত ছিলেন উপ উপাচার্য অধ্যাপক ড. শিরীণ আখতার, রেজিস্ট্রার (ভারপ্রাপ্ত) এ কে এম নূর আহামদ, প্রক্টর আলী আজগর চৌধুরী ও বিভিন্ন অনুষদের ডিনবৃন্দ।
ভর্তি পরীক্ষা কমিটি সূত্রে জানা যায়, প্রথমবারের মতো বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের নিজস্ব তত্ত্বাবধানে অটোমেশন পদ্ধতিতে ভর্তির কার্যক্রম সম্পন্ন করা হবে। ৪টি ইউনিট ও ২টি উপ-ইউনিটের মাধ্যমে ৯টি অনুষদের অধীনে ৪৮টি বিভাগ ও ৫টি ইনিস্টটিউটে ৪১৮৯টি সাধারণ ও ৭৩৭ টি কোটাসহ সর্বমোট ৪৯২৬টি আসনের বিপরীতে অনুষ্ঠিত হবে এই ভর্তি কার্যক্রম। ২০১৫-১৬ সালে মাধ্যমিক ও ২০১৮ সালে উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষায় উত্তীর্ণ (মান উন্নয়নসহ) শিক্ষার্থীরা আবেদন করতে পারবে। অনলাইনে ভর্তির আবেদনপত্র ৬ অক্টোবর রাত ১২টা হলেও পরীক্ষার ফি জমা দেয়া যাবে ৭ অক্টোবর রাত ১১ টা ৫৯ মিনিট পর্যন্ত। দেশবাসীর কষ্ট লাঘব ও আর্থিক সাশ্রয়ের জন্য প্রসেসিং ফি ৯০ টাকা থেকে কমিয়ে ৭৫ টাকা করেছে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। পরীক্ষার প্রসেসিং ফিসহ ৫৫০ টাকা বিকাশ ও রকেটের মাধ্যমে জমা দিতে হবে।
‘এ’ ইউনিট: মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক মাধ্যমিকের (বিজ্ঞান/কৃষি বিজ্ঞান গ্রুপ) শিক্ষার্থীরা ‘এ’ ইউনিটের মাধ্যমে বিজ্ঞান অনুষদ, জীববিজ্ঞান অনুষদ, ইঞ্জিনিয়ারিং অনুষদ ও মেরিন সায়েন্স অ্যান্ড ফিশারিজ অনুষদভুক্ত সকল বিভাগ/ ইনিস্টটিউটে আবেদন করার সুযোগ পাবে। ‘এ’ ইউনিটে মোট সাধারণ আসন ১২১৪টি। আবেদনের ন্যূনতম যোগ্যতা মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিকে চতুর্থ বিষয়সহ মোট জিপিএ ৭.০০ ও যেকোনো একটি পরীক্ষায় ন্যূনতম জিপিএ ৩.০০ থাকতে হবে।
‘বি’ ইউনিট: কলা ও মানববিদ্যা অনুষদভুক্ত ‘বি’ ইউনিটে উচ্চ মাধ্যমিকে উত্তীর্ণ সকল গ্রুপের শিক্ষার্থীরা আবেদন করতে পারবে। আবেদনের ন্যূনতম যোগ্যতা মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিকে চতুর্থ বিষয়সহ মোট জিপিএ ৬.৫০ ও যেকোনো একটি পরীক্ষায় ন্যূনতম জিপিএ ৩.০০ থাকতে হবে। কলা অনুষদভুক্ত ‘বি’ ইউনিটের অধীনে (নাট্যকলা, চারুকলা ও সংগীত বিভাগ ব্যতীত) মোট সাধারণ আসন ১২২১টি।
এ ছাড়া ‘বি’ ইউনিটের উপ-ইউনিট বি-১ ইউনিটে ভর্তি আবেদনের যোগ্যতাও অভিন্ন। সংগীত, চারুকলা ও নাট্যকলা বিভাগে ভর্তি পরীক্ষা দিতে আগ্রহী শিক্ষার্থীদের আলাদাভাবে বি-১ ইউনিটে আবেদন করতে হবে। এই ইউনিটে মোট সাধারণ আসন ১২৫টি।
‘সি’ ইউনিট: ব্যবসায় প্রশাসন অনুষদভুক্ত ‘সি’ ইউনিটে উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষায় উত্তীর্ণ ব্যবসায় শিক্ষা গ্রুপের শিক্ষার্থীরা আবেদন করতে পারবে। এই ইউনিটে মোট সাধারণ আসন ৪৪২টি। আবেদনের ন্যূনতম যোগ্যতা মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিকে চতুর্থ বিষয়সহ মোট জিপিএ ৭.৫০ ও যেকোন একটি পরীক্ষায় ন্যূনতম জিপিএ ৩.৫০ থাকতে হবে।
‘ডি’ ইউনিট (বিভাগ পরিবর্তন): উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষায় সকল গ্রুপের শিক্ষার্থীরা ‘ডি’ ইউনিটের মাধ্যমে সমাজ বিজ্ঞান অনুষদভুক্ত সকল বিভাগ, আইন অনুষদবুক্ত আইন বিভাগ, ব্যবসায় প্রাসন অনুষদভুক্ত সকল বিভাগ (বিজ্ঞান ও মানবিক গ্রুপ), জীববিজ্ঞান অনুষদভুক্ত ভূগোল ও পরিবেশবিদ্যা এবং মনোবিজ্ঞান বিভাগে (মানবিক গ্রুপ) আবেদন সুযোগ পাবে। আবেদনের যোগ্যতা হিসেবে মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিকে চতুর্থ বিষয়সহ মোট জিপিএ ৬.৫০ ও যেকোনো একটি পরীক্ষায় ন্যূনতম জিপিএ ৩.০০ থাকতে হবে। এ ইউনিটে মোট সাধারণ আসন ১১৫৭টি। এছাড়া শিক্ষা অনুষদভুক্ত ডি-১ উপ-ইউনিটের মাধ্যামে শিক্ষা অনুষদভুক্ত ফিজিক্যাল অ্যাডুকেশন অ্যান্ড স্পোর্টস সায়েন্স বিভাগে আবেদন করার সুযোগ পাবে। এ ইউনিটে সাধারণ আসন ৩০টি।
ভর্তি পরীক্ষার সময়সূচি: চারটি ইউনিটের মধ্যে ‘সি’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা ২৭ অক্টোবর, ‘ডি’ ইউনিটের ২৮ অক্টোবর, ‘বি’ ইউনিটের ২৯ অক্টোবর, ‘এ’ ইউনিটের ৩০ অক্টোবর ও ডি-১ ও বি-১ উপ ইউনিটের পরীক্ষা ৩১ অক্টোবর অনুষ্ঠিত হবে। প্রতিটি পরীক্ষা সকাল ১০টায় শুরু হবে। ভর্তিও বিস্তারিত তথ্য (যঃঃঢ়://ধফসরংংরড়হ.পঁ.ধপ.নফ) ওয়েবসাইট থেকে জানা যাবে।
এদিকে বরাবরের মতো এবারও পরীক্ষা কেন্দ্রে ক্যালকুলেটর, মোবাইল ফোন বা টেলিযোগাযোগে সক্ষম কোনো ইলেক্ট্রনিক ডিভাইস, যন্ত্র ও ঘড়ি সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ থাকবে। এছাড়া কোনো ধরনের অসদুপায় অবলম্বন করলে পরীক্ষা বাতিলসহ আইনানুগ ব্যবস’া নেওয়া হবে এবং জালিয়াতি ঠেকাতে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালিত হবে।
প্রসঙ্গত, গতবারের মত এবারও দ্বিতীয়বার ভর্তিপরীক্ষা দেয়ার কোন সুযোগ থাকছে না।