আইআইইউসি’র বিজ্ঞান অলিম্পিয়াড অনুষ্ঠানে প্রফেসর গোলাম মহিউদ্দিন

ভবিষ্যত প্রজন্মকে বিজ্ঞানমুখী হতে হবে

আন্তর্জাতিক ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় চট্টগ্রাম (আইআইইউসি)’র ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসর কে. এম গোলাম মহিউদ্দিন বলেছেন, প্রকৃত জ্ঞান আহরণের জন্য ভবিষ্যত প্রজন্মকে বিজ্ঞানমুখী হওয়া প্রয়োজন। ভবিষ্যত প্রজন্মকে আরো বিজ্ঞানমনস্ক করার জন্যে বিজ্ঞান অলিম্পিয়াড অবদান রাখবে।
শুক্রবার স্থায়ী ক্যাম্পাস মিলনায়তনে আন্তর্জাতিক ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় চট্টগ্রাম (আইআইইউসি)-এর তত্ত্বাবধানে বাংলাদেশ একাডেমী অব সায়েন্স-এর আয়োজনে জাতীয় পর্যায়ের বিভাগীয় সায়েন্স অলিম্পিয়াড-২০১৮ এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে প্রফেসর কে. এম গোলাম মহিউদ্দিন এ অভিমত ব্যক্ত করেন।
আইআইইউসি’র প্রো ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মো. দেলাওয়ার হোসেনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এ আয়োজনে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন বিজ্ঞানী, আইআইইউসি’র সাবেক ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. এ. কে. এম আজহারুল ইসলাম এবং আইআইইউসি’র বোর্ড অব ট্রাস্টিজের সদস্য এবং ফাইন্যান্স কমিটির চেয়ারম্যান অধ্যাপক আহসানউল্লা।
অতিথি হিসাবে বক্তব্য রাখেন ফার্স্ট সিকিউরিটি ইসলামী ব্যাংক কুমিরা শাখার ব্যবস্থাপক মোহাম্মদ সাইফুদ্দিন। স্বাগত বক্তব্য রাখেন বিজ্ঞান অলিম্পিয়াড কমিটির সদস্য সচিব এবং আইআইইউসি’র সিএসই বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক সামসুল আলম।
জাতীয় পতাকা, বাংলাদেশ একাডেমী অব সায়েন্স ও আইআইইউসি’র পতাকা উত্তোলনের মাধ্যমে সকাল ৯টায় দিনব্যাপী এই বর্ণাঢ্য আয়োজনের সূচনা হয়। এরপর ছিল বিজ্ঞান অলিম্পিয়াডের সারা দেশের সময়সূচি অনুসারে সকাল ১০টা থেকে ১২টা পর্যন্ত লিখিত পরীক্ষা এবং সমাপনী পর্ব ও পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠান।
উল্লেখ্য ৫৬টি স্কুল ও ২৬ টি কলেজের ৪৪৫ জন ছাত্র-ছাত্রী এই বিজ্ঞান অলিম্পিয়াড-এ অংশগ্রহণ করে।
প্রধান অতিথির বক্তব্যে আইআইইউসি’র ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসর কে. এম গোলাম মহিউদ্দিন বলেন, বিজ্ঞান চর্চার পাশাপাশি যদি নৈতিকতার চর্চা করা যায় তাহলে শিক্ষার্জন পূর্ণতা লাভ করবে। উপর মহলের এবং শিক্ষিত লোকের দুর্নীতির কারণে দেশ অনেক পিছিয়ে গেছে। দুর্নীতি রোধ করা গেলে দেশের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি আরো বৃদ্ধি পেত। আইআইইউসিকে একটি অনন্য বিশ্ববিদ্যালয় উল্লেখ করে তিনি বলেন, এখানে জ্ঞানের সাথে নৈতিকতার একটি সমন্বিত শিক্ষা প্রদান করা হয় যাতে প্রজন্ম পরম্পরায় যোগ্য ও সৎ নাগরিক উপহার দেয়া যায়।
বিশেষ অতিথির বক্তব্যে আইআইইউসি’র সাবেক ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. এ. কে. এম আজহারুল ইসলাম বলেন, বিজ্ঞান ছাড়া কিছু ভাবা যায়না। জীবন ও জগৎ বুঝতে হলে বিজ্ঞান জানতে হবে বেশি। তিনি বলেন বিজ্ঞান অলিম্পিয়াড হচ্ছে বুদ্ধির প্রতিযোগিতা যা বিশাল পরিসরে বড় অর্জনের সুযোগ করে দেয়। বিজ্ঞান অলিম্পিয়াড থেকেই বাংলাদেশের ভবিষ্যৎ বিজ্ঞানী গড়ে উঠবে।
বিশেষ অতিথির বক্তব্যে আইআইইউসি’র বোর্ড অব ট্রাস্টিজের সদস্য এবং ফাইন্যান্স কমিটির চেয়ারম্যান অধ্যাপক আহসানউল্লা বলেন, সারাবিশ্ব যে বিজ্ঞান নিয়ে এগিয়ে চলেছে তার সাথে আমরা আছি। বিজ্ঞানের নেতিবাচক প্রয়োগ দুঃখজনক উল্লেখ করে তিনি বলেন, মানুষের কল্যাণে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির আবিষ্কার এবং চর্চা হওয়া উচিত। শান্তির জন্যে বিজ্ঞানের ইতিবাচক প্রয়োগ হওয়া প্রয়োজন।
অধ্যাপক আহসানউল্লা বলেন, শক্তির মহড়া দেয়ার জন্য নয়, মানবকল্যাণেই বিজ্ঞানকে কাজে লাগাতে হবে।
সমাপনী পর্বে প্রধান অতিথি এবং বিশেষ অতিথিরা বিজ্ঞান অলিম্পিয়াডের বিজয়ীদের মাঝে পদক ও সনদপত্র তুলে দেন। বিজ্ঞপ্তি