বেলজিয়ামের গোল-উৎসব

সুপ্রভাত ক্রীড়া ডেস্ক

জোড়া গোল করলেন এদেন আজার ও রোমেলু লুকাকু। অনেকগুলো সুযোগ নষ্ট হওয়ার পর গোল পেলেন আরেক ফরোয়ার্ড মিচি বাতসুয়াই। তিউনিসিয়াকে উড়িয়ে দিয়ে রাশিয়া বিশ্বকাপের শেষ ষোলোয় ওঠার পথে অনেকটাই এগিয়েছে বেলজিয়াম। মস্কোর স্পার্তাক স্টেডিয়ামে গতকাল ৫-২ গোলে জিতেছে বেলজিয়াম। দুই ম্যাচে ৬ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে রয়েছে দলটি। ‘জি’ গ্রুপে নিজেদের প্রথম ম্যাচে পানামাকে ৩-০ গোলে হারিয়েছিল তারা। খবর বিডিনিউজ’র।
অন্যদিকে টানা দুই ম্যাচ হারা তিউনিসিয়ার পরের রাউন্ডে যাওয়ার স্বপ্ন প্রায় শেষ; প্রথম ম্যাচে ইংল্যান্ডের কাছে ২-১ গোলে হেরেছিল তারা।
মস্কোর স্পার্তাক স্টেডিয়ামে গতকাল ম্যাচে সপ্তম মিনিটে আজারের সফল স্পট কিকে এগিয়ে যায় বেলজিয়াম। ডি-বক্সের মধ্যে চেলসির এই ফরোয়ার্ডকেই ফাউল করেছিলেন সিয়াম বেন ইউসুফ। ভিডিও রিভিউয়ের পর চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত আসে পেনাল্টির।
শুরু থেকেই আক্রমণাত্মক খেলা বেলজিয়াম ষোড়শ মিনিটে ব্যবধান দ্বিগুণ করে নেয়। ড্রিস মের্টেন্সের দারুণ পাস থেকে পাওয়া বল কোনাকুনি শটে দূরের পোস্ট দিয়ে লক্ষ্যভেদ করেন ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের ফরোয়ার্ড রোমেলু লুকাকু।
দুই মিনিট পর ব্যবধান কমায় তিউনিশিয়া। ওয়াহবি খাজরির ফ্রি-কিকে নিখুঁত হেডে গোলরক্ষককে পরাস্ত করেন দাইলান ব্রন। ২২তম মিনিটে টবি অল্ডারভাইরেল্ডের শট ফিরিয়ে তিউনিশিয়াকে ম্যাচে রাখেন গোলরক্ষক।
প্রথমার্ধের যোগ করা সময়ে কেভিন ব্রুইনের বাড়ানো বল এগিয়ে আসা গোলরক্ষকের মাথার উপর জালে পাঠিয়ে ব্যবধান আরও বাড়িয়ে নেন লুকাকু। রাশিয়া বিশ্বকাপে ক্রিস্তিয়ানো রোনালদোর মতো বেলজিয়ামের এই ফরোয়ার্ডেরও গোল হলো ৪টি।
৫১তম মিনিটে আজারের দুর্দান্ত গোলে জয় অনেকটাই নিশ্চিত করে নেয় বেলজিয়াম। উঁচু করে বাড়ানো বল বুক দিয়ে নামিয়ে ডান পায়ের আলতো টোকায় এগিয়ে আসা গোলরক্ষককে কাটিয়ে বাঁ পায়ের শটে বল জালে পাঠিয়ে দেন চেলসির এই ফরোয়ার্ড।
৬৮তম মিনিটে আজারের বদলি হিসেবে নামা বাতসুয়াই এরপর গোল পেতে পারতেন আরও তিনটি। একবার গোললাইন থেকে ফেরে তার শট। একবার শটে বল ফেরে ক্রসবারে লেগে। আরেকবার খুব কাছ থেকেও গোলরক্ষককে পরাস্ত করতে পারেননি চেলসির এই ফরোয়ার্ড।
ম্যাচের শেষ দিকে একটি করে গোল পায় দুই দলই। ৯০তম মিনিটে ইউরি টেলমানসের উঁচু করে বাড়ানো বল লক্ষ্যে পৌঁছে দিয়ে আগের তিনটি সুযোগ নষ্টের ক্ষতে কিছুটা প্রলেপ দেন বাতসুয়াই। যোগ করা সময়ে তিউনিশিয়াকে ব্যবধান কমানো গোল এনে দেন ওয়াহবি।