বৃষ্টিদিনে বারণ

দেউড়ি ডেস্ক

বেশ সুন্দর করে কাজল দিয়ে বের হয়েছেন। হঠাৎ বৃষ্টিতে ধুয়ে কাজল লেপটে একাকার! এরকম পরিস্থিতে এড়াতে ভেজা মৌসুমে সাজসজ্জার কিছু পন্থা এড়িয়ে চলুন।
সৌন্দর্যবিষয়ক একটি ওয়েবসাইটের প্রতিবেদনে জানানো হয়, বর্ষায় মেইকআপ নষ্ট হয়ে গেলে দেখতে মোটেও ভালো লাগবে না। তাই এমন বিড়ম্বনা থেকে বাঁচতে কিছু বিষয় খেয়াল রাখলেই যথেষ্ট।
কালো কাজল: চোখ কাজল বা ‘স্মোকি আই’ বেশ সুন্দর দেখালেও এই বর্ষায় চোখের কাজল লেপ্টে আশপাশে ছড়িয়ে গেলে দেখতে মোটেও ভালো লাগে না। তাই বর্ষায় কাজল পুরোপুরি এড়িয়ে চলাই ভালো। অথবা ব্যবহার করতে চাইলে ‘ওয়াটারপ্রুফ লিকুইড লাইনার’ ব্যবহার করা যেতে পারে।
ব্যাংস: সামনের ছোট করে কাটা চুল ব্যাংস নামেই পরিচিত। অন্যান্য সময় এটি বেশ ভালো মানালেও বর্ষায় আর্দ্রতার কারণে চুল প্রাণহীন হয়ে পড়ায় ব্যাংস এলোমেলো হয়ে যেতে পারে। তাই এমন বেসামাল চুল সামলে রাখতে বর্ষায় ব্যাংস এড়িয়ে চলুন।
ফাউন্ডেশন: লিকুউড বা ক্রিম বেইজ ফাউন্ডেশন বৃষ্টির পানি অথবা আর্দ্রতার কারণে ফাউন্ডেশন গলে যেতে পারে। এমন সমস্যা এড়াতে বেছে নিতে পারেন বিবি ক্রিম বা তেল ছাড়া কুশন ফাউন্ডেশন।
মাস্কারা: কাজলের মতো মাস্কারা ব্যবহারের কারণেও একই ধরনের সমস্যায় পড়তে হতে পারে। বৃষ্টির পানিতে মাস্কারা গলে চোখের চারপাশে ছড়িয়ে পড়ার সম্ভাবনা থাকে। তাই ব্যবহার করতে হলে ওয়াটারপ্রুফ মাস্কারা বেছে নিন।
গ্লিটার আইশ্যাডো: চোখের সাজে গ্লিটার আইশ্যাডো দেখতে ভালো লাগলেও এই মৌসুমের জন্য একদমই বেমানান। কারণ আর্দ্র বাতাসের কারণে গ্লিটার ঠিক মতো চোখের পাতায় বসতে চায় না এবং দেখতে ছাড়া ছাড়া দেখায়। আর বৃষ্টি হলে তা পুরো মুখে ছড়িয়ে যেতে পারে। তাই এই মৌসুমে গ্লিটার আইশ্যাডো এড়িয়ে চলাই বুদ্ধিমানের হবে।
ক্রিম বেইজ কনসিলার: আর্দ্রতা এবং গরম আবহাওয়ার কারণে ক্রিম বেইজ কনসিলার সহজেই গলে যায়। ফলে মেইকআপ দেখতে বেমানান দেখায় দিন না পেরোতেই। তাই মেইকআপের বিড়ম্বনা এড়াতে স্টিক কনসিলার বেছে নেওয়া যেতে পারে। এই ধরনের কনসিলার সহজে গলে না এবং দীর্ঘসময় একই রকম থাকে।
চুল স্ট্রেইট বা সোজা করা: বৃষ্টির পানি ও বাতাসে আর্দ্রতা বেশি থাকা চুলের জন্য বেশ অনুপযোগী। এই মৌসুমে শ্যাম্পু করার একদিন পরই চুল রুক্ষ ও প্রাণহীন হয়ে যায়। তাই ‘স্ট্রেইট’ করা হলেও বেশিক্ষণ সুন্দর থাকে না। বরং পুরো কষ্টই বৃথা যায়। তাছাড়া ‘স্ট্রেইট আয়রনের’ তাপের ফলে চুল কিছুটা ক্ষতিগ্রস্ত হয় যায়। ফলে আর্দ্র বাতাসের সংস্পর্শে চুল দ্রুত প্রাণহীন হয়ে পড়ে। এই কারণে সময় ব্যয় করে চুল স্ট্রেইট করানোর প্রয়োজন নেই। পার্লারে গিয়েও সময় ও অর্থ ব্যয় করে চুল স্ট্রেইট করানো খুব একটা উপযোগী নয় এই আবহাওয়ায়।