বিশ্ব নাটকের সাথে বাংলা নাটকের মেলবন্ধন

শিল্পকলায় চলছে আন্তর্জাতিক নাট্যোৎসব

নিজস্ব প্রতিবেদক

‘নানা রঙের আলোয় বিশ্ব নাটক’ এ স্লোগান সামনে রেখে নাট্য সম্প্রদায় নান্দীমুখের আয়োজনে শিল্পকলা একাডেমিতে শুরু হয়েছে আন্তর্জাতিক নাট্যোৎসব। বিশ্ব নাটকের সাথে বাংলা নাটকের মেলবন্ধন তৈরি এবং সেই সাথে নাটকের নতুন দর্শক সৃষ্টিই হল এ আয়োজনের মূল উদ্দেশ্য বলে জানান আয়োজকরা।
বাংলাদেশ, ভারত, নরওয়ে এবং ইরানের প্রথিতযশা বিভিন্ন নাট্য সম্প্রদায়ের অংশগ্রহণের মধ্য দিয়ে নগরীর শিল্পকলা একাডেমিতে শুরু হয়েছে আন্তর্জাতিক নাট্যোৎসব। ২০ অক্টোবরে শুরু হওয়া এ উৎসব চলবে ২৮ অক্টোবর পর্যন্ত।
আন্তর্জাতিক এ উৎসবে বাংলাদেশ থেকে অংশগ্রহণকারী নাটকের দলগুলো হল-নাগরিক নাট্য সম্প্রদায় নান্দীমুখ, উত্তরাধিকার, দৃষ্টিপাত নাট্যদল, ফেইম স্কুল অব ডান্স ড্রামা অ্যান্ড মিউজিক; ভারত থেকে আসা নাটকের দলগুলো গণকৃষ্টি, ঋত্বিক, নয়ে নাটুয়া; ইরানের নাট্যদল ভারবাটিম এবং নরওয়ের নাট্যদল ড্রাগ প্রোডাকশন।
গতকাল সন্ধ্যায় মঞ্চস্থ হয়েছে ইরানের নাট্যদল ‘ভারবাটিম’ এর ‘মানাস’। একদল শরণার্থীর স্বদেশ ছেড়ে অভিবাসী হবার প্রাণপণ চেষ্টায় যে অগুণিত বাঁধা তারই মর্মন্তুদ কাহিনী নিয়ে এ নাটক। দেখা যায়, অবৈধ পথে অস্ট্রেলিয়া যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেয় ৮ জন শরণার্থী। তারপর তারা আটকা পড়ে ‘মানাস’ ও ‘নাউরু’ কারাগারে। প্রত্যেকে তারা বিবরণ দেয় কেন তারা স্বদেশ ত্যাগ করছে এবং কি অবস্থায় আছে কারাগারে। দ্বীপটির নাম ‘মানাস’ এবং কারাগারের নাম দ্বীপটির নামেই।
আন্তর্জাতিক নাট্যোৎসবের আয়োজক দল নান্দীমুখের দলনেতা অভিজিৎ সেনগুপ্ত সুপ্রভাতকে বলেন, বিশ্বব্যাপী আগ্রাসনের বিরুদ্ধে একটা বার্তা দেওয়া, নাটকের নতুন দর্শক সৃষ্টি করা এবং সেই সাথে বিশ্ব নাটকের সাথে বাংলা নাটকের মধ্যে একটা মেলবন্ধন সৃষ্টি করাই হল আমাদের এ আয়োজনের মূল উদ্দেশ্য।