‘বিদ্যুৎ আইটি ও আবাসনে বিনিয়োগ করবে সিঙ্গাপুর’

সুপ্রভাত ডেস্ক

বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ বলেছেন, সিঙ্গাপুরের ব্যবসায়ীরা বাংলাদেশের বিশেষ ইকোনমিক জোনে বড় ধরনের বিনিয়োগের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এজন্য প্রাথমিকভাবে ৫০০ একর জমি বরাদ্দের কথা বলেছেন। সিঙ্গাপুরের বিনিয়োগ সন্তোষজনক হলে জমির পরিমাণ আরও বাড়ানো হবে।
গতকাল বুধবার ঢাকায় প্যান প্যাসিফিক সোনারগাঁও হোটেলে বাংলাদেশে সফররত সিঙ্গাপুর বিজনেস ফেডারেশনের ব্যবসায়ীদের সঙ্গে মতবিনিময় শেষে সাংবাদিকদের এসব কথা জানান তিনি। বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, সিঙ্গাপুর বাংলাদেশের ঘনিষ্ঠ বন্ধু ও ব্যবসায়িক অংশীদার। সিঙ্গাপুরের সঙ্গে বাংলাদেশের চলমান বাণিজ্য চার বিলিয়ন মার্কিন ডলারের বেশি। বাংলাদেশের ১৫০টির বেশি কোম্পানি সিঙ্গাপুরে বাণিজ্য করছে।
তিনি বলেন, সিঙ্গাপুর বিজনেস ফেডারেশনের ব্যবসায়ীরা বাংলাদেশ সফরে এসেছেন ৭ জুলাই। ১৩ জুলাই পর্যন্ত তারা বাংলাদেশে থাকবেন। সিঙ্গাপুরের ব্যবসায়ীরা বাংলাদেশে বিনিয়োগ করলে লাভবান হবেন। তারা বাংলাদেশে আইটি, পাওয়ার ও হাউজিং সেক্টরে বিনিয়োগ করতে বেশি আগ্রহী বলেও জানান তিনি। খবর বাংলা ট্রিবিউন এর।
তোফায়েল আহমেদ বলেন, দেশের বিদ্যুৎ উৎপাদন ১৮ হাজার মেগাওয়াট ছাড়িয়ে গেছে। নতুন নতুন গ্যাসক্ষেত্র আবিষ্কৃৃত হয়েছে। এলএনজি আমদানি শুরু হয়েছে। পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র গড়ে তোলা হচ্ছে। শিল্প কলকারখানায় বিদ্যুৎ ও গ্যাসের কোনও সমস্যা হবে না।
তিনি বলেন, দ্রুত অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির পথে থাকা বাংলাদেশে চীন, ভারত, যুক্তরাষ্ট্রসহ পৃথিবীর বিভিন্ন দেশ বিনিয়োগ করছে। ভৌগোলিক কারণে সিঙ্গাপুর বাংলাদেশে বিনিয়োগ করে অধিক সুফল পাবে।
বাংলাদেশে ভবিষ্যতে বিদ্যুতের ব্যাপক চাহিদা তৈরির আভাস দিয়ে তিনি বলেন, “আগামী ৬ বছরে শুধু বিদ্যুুুুুুৎ খাতেই ৪০ বিলিয়ন ডলার বিনিয়োগ প্রয়োজন। চীনা কোম্পানিগুলো প্রতিদিনই এসব খাতে বিনিয়োগ প্রস্তাব নিয়ে আসছে।”
সিরাজগঞ্জ ৪১৪ মেগাওয়াট বিদ্যুৎকেন্দ্র, এলএনজি টার্মিনাল, পাওয়ার প্লান্ট, ৪০০ মেগাওয়াট কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্র, এলএনজি গ্যাস সাপ্লাইসহ অন্যান্য খাতে সিঙ্গাপুরের বিনিয়োগে প্রকল্প চলমান বলে জানান তিনি ।
নতুন করে এলএনজি পাইপলাইন, রিফাইনারি, কোল টার্মিনাল, এলপিজি খাতে বিনিয়োগের সুযোগ তুলে ধরেন তিনি।
জনসংখ্যার ঘনত্বের বিচারে বাংলাদেশ বিশ্বের গুরুত্বপূর্ণ একটি বাজার। গত ১০ বছরে এই দেশের অভূতপূর্ব অর্থনৈতিক উন্নয়ন আরও বেশি বিনিয়োগ সম্ভাবনা জাগিয়ে তুলছে।
সিঙ্গাপুর ইন্ডিয়া চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি’র ভাইস প্রেসিডেন্ট এবং বাংলাদেশ সফররত বিজনেস ডেলিগেশনের ডেপুটি চিফ প্রসুন মুখার্জির নেতৃত্বে বাণিজ্য প্রতিনিধি দলে রয়েছেন, বাংলাদেশ বিজনেস চেম্বার অব সিঙ্গাপুর- এর প্রেসিডেন্ট মোহাম্মদ শহিদুজ্জামান, ফেডারেশনের অ্য্যাসিসটেন্ট এঙিকিউটিভ ডিরেক্টর কোডি লি, ডিরেক্টর আলান টান, অ্য্যাসিসটেন্ট ম্যানেজার মার্ক ইয়ো, সিঙ্গাপুরে বিএফএন ফুডস লিমিটেডের চিফ এঙিকিউটিভ অফিসার মোহাম্মদ বাবুল আক্তার প্রমুখ।