ডিপিএল চ্যাম্পিয়ন জামালখান ক্রিস্টালস

বিতার্কিকদের নৈতিক শিক্ষায় শিক্ষিত হতে হবে

সুপ্রভাত ডেস্ক
IMG_0352

ছায়া সংসদের প্রধানমন্ত্রী প্রস্তাব উত্থাপন করলেন ‘ধারা ৭০ বাতিল করে সংসদ সদস্যদের ফ্লোর ক্রসিংকে সম্মতি দেবে।’ নানা যুক্তিতর্ক উত্থাপন শেষে টিম চান্দগাঁও টাইগারসকে পরাজিত করে এবার দৃষ্টি ডিবেট প্রিমিয়ার লিগের (ডিপিএল) শিরোপা অর্জন করে টিম জামালখান ক্রিস্টালস্‌।
চট্টগ্রামে বিতর্কের সবচেয়ে উত্তেজনাপূর্ণ টুর্নামেন্ট দৃষ্টি প্রিমিয়ার লিগের অষ্টম আসরের চূড়ান্ত প্রতিযোগিতা ও পুরস্কার বিতরণ নগরীর একটি রেস্টুরেন্টে অনুষ্ঠিত হয়।
ডিপিএল টুর্নামেন্টে নগরীর বিভিন্ন কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ের বিতার্কিকদের পয়েন্ট নিলামের মাধ্যমে নির্বাচন করা হয় এ টুর্নামেন্টে।
বিজয়ীদল জামালখান ক্রিস্টালসের বিতার্কিকরা হলেন রিদোয়ান আলম আদনান (সাদার্ন বিশ্ববিদ্যালয়), মাইশা মালিহা (চুয়েট), কাজী নুরুল হক (প্রিমিয়ার বিশ্ববিদ্যালয়)।
প্রতিযোগিতা শেষে পুরষ্কার বিতরণ অনুষ্ঠানে দৃষ্টি চট্টগ্রামের সভাপতি মাসুদ বকুল সভাপতিত্ব করেন। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ টেলিভিশন চট্টগ্রাম কেন্দ্রের মহাব্যবস্থাপক মনোজ সেনগুপ্ত। অতিথি ছিলেন শিক্ষাবিদ সানশাইন গ্রামার স্কুলের অধ্যক্ষ সাফিয়া গাজী রহমান, কবি ওমর কায়সার, কবি জিন্নাহ চৌধুরী, শিল্পকলা একাডেমির নির্বাহী কমিটির সদস্য সাইফুল আলম বাবু, হাবীব তাজকিরাজের প্রতিষ্ঠাতা সৈয়দ জালাল আহমেদ রুম্মন, সংগঠক সাইফুল আলম খান।
ফাইনাল বিতর্কের আগে টুর্নামেন্টের অন্য বিতার্কিকদের অংশগ্রহণে অনুষ্ঠিত হয় বারোয়ারি বিতর্ক। বিষয় ছিল ‘হে আগুন তুমি আবার ওঠো জ্বলে।’ এতে প্রথম স্থান অধিকার করে বিএন কলেজের সাখাওয়াত মজুমদার। প্রিমিয়ার বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবরিনা জাহান দ্বিতীয় স্থান এবং চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের আবু ফয়সল তৃতীয় স্থান অধিকার করে।
মনোজ সেনগুপ্ত বলেন, বিতর্ক তরুণদের জঙ্গিবাদ ও মানবতাবিরোধী যেকোনো কর্মকাণ্ড থেকে দূরে রাখে। বিতর্কের পাশাপাশি শিক্ষার্থীদের গবেষণাও করতে হবে। বিতার্কিদের শুধু প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা নয়, নৈতিক ও মানবিকতার শিক্ষায় শিক্ষিত হতে হবে।
অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন চট্টগ্রাম আবৃত্তি সমন্বয় পরিষদের সাধারণ সম্পাদক ফারুক তাহের, ত্রিতঙ্গ আবৃত্তি দলের সভাপতি দেবাশিষ রুদ্র, শৈশব আবৃত্তি দলের সভাপতি মিলি চৌধুরী, দৃষ্টি চট্টগ্রামের সিনিয়র সহ সভাপতি সাইফ চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক সাবের শাহ, যুগ্ম সম্পাদক সাইফুদ্দিন মুন্না, জুনায়েদ কৌশিক চৌধুরী ও সাংগঠনিক সম্পাদক কাজী আরফাত।
চট্টগ্রামের কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ের সেরা ২৪ জন বিতার্কিক আটটি দলের জন্য নিলামে (নির্বাচনে) অংশ নেন। দলগুলোর নামকরণ করা হয় চট্টগ্রামের আটটি স্থানের নামে পাইরেটস অব চকবাজার, লালখানবাজার খানস, চান্দগাঁও টাইগার্স, প্রবর্তক ইলুমিনাত্তি, মুরাদপুর সুপার পাওয়ার, জামালখান ক্রিস্টালস, দেওয়ানবাজার স্পাইডার্স ও আগ্রাবাদ এরিস্ট্রোক্রেট। সাবেক সেরা বিতার্কিক ও বিতর্ক সংগঠকদের মধ্য থেকে আটজন ব্যবস্থাপকের তত্ত্বাবধানে পরিচালিত হয় দলগুলো।
ব্যবস্থাপকেরা হলেন প্রাক্তন বিতার্কিক মুজিবুর রহমান মনি, শহিদুল ইসলাম, সঞ্জয় বিশ্বাস, শুভাশীষ চৌধুরী, শাহাদাত হোসাইন, বিবি মরিয়ম মৌসুমী, মিনহাজ হোসাইন ও বনকুসুম বড়ুয়া