বিকাশের নতুন সেবা

বিশ্বের অন্যতম শীর্ষ মানি ট্রান্সফার কোম্পানি ট্রান্সফাস্ট, ব্র্যাক ব্যাংক লিমিটেড এবং মোবাইল আর্থিক সেবা প্রদানকারী প্রতিষ্ঠান বিকাশ মোবাইল ওয়ালেটে রিয়েল টাইম আন্তর্জাতিক মানি টান্সফার সার্ভিস চালু করেছে।
এই সেবার মাধ্যমে বিকাশের রেজিস্টার্ড গ্রাহকরা তাদের মোবাইল ওয়ালেটে সরাসরি রেমিটেন্স গ্রহণ করতে পারবে।
নতুন সেবাটি বিকাশের অভূতপূর্ব সাফল্যের ওপর ভিত্তি করে তৈরি হয়েছে, কারণ ২০১১ সালে চালু হওয়ার পর থেকে বিকাশ ৩ কোটিরও বেশি গ্রাহককে যুক্ত করেছে। এই সার্ভিসের মাধ্যমে বিশ্বের নানা প্রাান্তের মানুষ ট্রান্সফাস্ট ব্যবহার করে রেমিটেন্স পাঠাতে পারবে এবং বিকাশের গ্রাহকরা সহজেই সেই অর্থ গ্রহণ করতে পারবে।
ট্রান্সফাস্টের বিশ্বব্যাপী প্রায় ২,০০,০০০ পেমেন্ট পয়েন্ট রয়েছে এবং ১০০ টির বেশি দেশে তাদের প্রতিনিধি রয়েছে।
এই নতুন সেবার মাধ্যমে, বিকাশের রেজিস্টার্ড গ্রাহকরা ২৪ ঘণ্টা ট্রান্সফাস্ট থেকে পাঠানো রেমিটেন্স সরাসরি নিজের মোবাইলে পাবে। এই সেবায় একটি লেনদেনে সর্বোচ্চ ২৫,০০০ টাকা (আনুমানিক ইউএস ৩০০) এবং সব মিলিয়ে মাসে সর্বোচ্চ ২০টি লেনদেনের মাধ্যমে ১,৫০,০০০ টাকার (আনুমানিক ইউএস ১,৫০০) রেমিটেন্স পাঠানো যাবে।
টাকা স্থানান্তর সম্পন্ন হলেই, সাথে সাথে টাকা ব্যবহার করা যাবে।
এরপর গ্রাহক সারাদেশে ছড়িয়ে থাকা ১,৮০,০০০ বিকাশ এজেন্ট পয়েন্ট থেকে টাকা ক্যাশ আউট করতে পারবে বা অ্যাকাউন্ট ব্যালেন্স ব্যবহার করে অন্য কারও কাছে ফান্ড টান্সফার, টপ আপ মোবাইল এয়ারটাইম, বিল পরিশোধ এবং বিভিন্ন দোকানে শপিং করতে পারবে।
বিকাশের প্রধান নির্বাহী কামাল কাদির বলেন, ‘আমরা খুবই আনন্দিত যে ব্র্যাক ব্যাংকের সহযোগিতায় ট্রান্সফাস্টের মাধ্যমে গ্রাহকদের নতুন রেমিটেন্স সেবা প্রদান করতে যাচ্ছি। এই সেবার মাধ্যমে বিদেশ থেকে সহজেই ২৪ ঘণ্টা বিকাশ অ্যাকাউন্টে রেমিটেন্সের টাকা পাঠানো যাবে। এটা দেশের এবং প্রবাসী বাংলাদেশীদের জীবনযাত্রার মানকে আরও উন্নত করবে।’
ট্রান্সফাস্টের প্রধান নির্বাহী সামিশ কুমার বলেন, ‘আগামী ২০২০ সালের মধ্যে আরও ৫০ কোটি মানুষের নিকট ফাইন্যান্সিয়াল সিস্টেম নিয়ে যাওয়ার আন্তর্জানিক টার্গেট অর্জনের পথে এগিয়ে যেতে সাহায্য করবে এই পার্টনারশিপ।
বাংলাদেশসহ সারা বিশ্বে দিন দিন মোবাইল ফোনের ব্যবহার বাড়ছে, যা ফাইন্যান্সিয়াল সাভির্সের জন্য নতুন সুযোগ সৃষ্টি করছে। এই অংশীদারিত্ব বিদেশ থেকে দেশে রেমিটেন্স পাঠানোর সহজ সমাধান হিসাবে বিবেচিত হবে। একসাথে কাজ করে আমরা নতুন বাজারে প্রবেশ করতে পারব এবং প্রবাসী কর্মীরা অল্প খরচে সহজেই নিয়মিত তাদের পরিবার পরিজনের কাছে রেমিটেন্সের টাকা পাঠাতে পারবে।’
ব্র্যাক ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা সেলিম আর. এইচ. হোসেন বলেন, ‘এই অংশীদারিত্বের মাধ্যমে আমাদের গ্রাৃহকদের দোরগোড়ায় রেমিটেন্স সেবা প্রদান করা সম্ভব হবে।