বাড়বকুণ্ডে পাহাড় কেটে সাবাড় করছে কেএসআরএম

নিজস্ব প্রতিবেদক
Sitakundu

সীতাকুণ্ড উপজেলার পাঁচ নম্বর বাড়বকুণ্ড ইউনিয়নে কবির স্টিল রি-রোলিং মিল (কেএসআরএম) কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে পাহাড় কাটার অভিযোগ পাওয়া গেছে। স’ানীয় সূত্র জানিয়েছে, আনোয়ারা জুট মিলের পেছনে স্কেবেটর ও বুলডোজার দিয়ে দিনরাত পাহাড় কেটে সাবাড় করছে কেএসআরএম। বড় একটি শিল্পকারখানা গড়ে তুলতে সেখানে পাহাড় কাটা হচ্ছে।
বেশ কয়েকদিন ধরে সেখানে পাহাড়কাটার ‘উৎসব’ চললেও পুলিশ কিংবা স’ানীয় প্রশাসন এ ব্যাপারে কিছুই জানে না। সীতাকুণ্ড থানার ওসি ইফতেখার জানান, ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের পূর্ব পাশে পাহাড়ের পাদদেশে কেএসআরএমসহ একাধিক বড় বড় করপোরেট গ্রুপের শিল্প কারখানা রয়েছে। কারখানাগুলো এমনভাবে গড়ে তোলা হয়েছে যে, এসবের পেছনে কি হচ্ছে তা সরেজমিন না গেলে বোঝা যায় না। পুলিশ সুনির্দিষ্ট অভিযোগ বা কারণ ছাড়া এসব শিল্প গ্রুপের কারখানায় যায় না। ‘সেহেতু কেএসআরএম পাহাড় কেটে থাকলেও আমাদের জানা নেই। তবু বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হবে’ বলে সুপ্রভাতকে জানান ওসি ইফতেখার।
আনোয়ারা জুট মিলের পেছনে কেএসআরএম কর্তৃক পাহাড় কাটার অভিযোগ পাওয়ার কথা স্বীকার করে চট্টগ্রাম বিভাগীয় পরিবেশ অধিদপ্তরের পরিচালক মকবুল হোসেন বলেন ‘আমি তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস’া নেব।’ একইরকম মন্তব্য করেছেন সীতাকুণ্ড উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. কামরুজ্জামান। স’ানীয় এক চিকিৎসক জানান, বছর তিনেক আগে পাঁচ নম্বর বাড়বকুণ্ড ইউনিয়ন এলাকার আনোয়ারা জুট মিলের পেছনে বিশাল আয়তনের পাহাড় কিনে কেএসআরএম। ইতোমধ্যে পাহাড়ের অধিকাংশ অংশ কেটে ফেলা হয়েছে। শুধু রাতের আঁধারে নয়, প্রতিদিন দিনের বেলায়ও স্কেবেটর দিয়ে পাহাড় কেটে সমতল করা হচ্ছে। পাশাপাশি চারিদিকে কাঁটা তারের বেড়া দিচ্ছে। সবুজাভ পাহাড় কেটে সাবাড় করে ফেলার কারণে একদিকে নষ্ট হচ্ছে পরিবেশের ভারসাম্য অপরদিকে হুমকির মুখে পড়েছে জীব বৈচিত্র্য।