বাংলাদেশ সামপ্রদায়িক সমপ্রীতির দৃষ্টানত্ম : প্রধানমন্ত্রী

সুপ্রভাত ডেস্ক

বিশ্বের সব হিন্দুদের শারদীয় দুর্গোৎসবের শুভেচ্ছা জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, বাংলাদেশ সামপ্রদায়িক সমপ্রীতির দৃষ্টানত্ম স’াপন করেছে। রামকৃষ্ণ মিশনে গতকাল দুর্গাপূজা ম-প পরিদর্শন করে তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশে ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে সবাই যার যার অধিকার নিয়ে বসবাস করবে। সামপ্রদায়িক সমপ্রীতিতে বাংলাদেশ বিশ্বে দৃষ্টানত্ম স’াপন করেছে।’ খবর বিডিনিউজের।
শেখ হাসিনা বলেন, ‘আজকের দিনে এখানে আসতে পেরে খুশি। সুষ্ঠুভাবে উৎসব সম্পন্ন হোক, উৎসবমুখর পরিবেশে সম্পন্ন হোক। কারণ অসামপ্রদায়িক চেতনা নিয়েই এই বাংলাদেশ স্বাধীন হয়েছিল। বাংলাদেশ সেই আদর্শ নিয়েই এগিয়ে যাচ্ছে।’
প্রধানমন্ত্রী দুর্গা উৎসবের সাফল্য কামনা করে বলেন, ‘এখানে আমরা সবাই যার যার ধর্ম পালন করব। ধর্ম যার যার কিন’ উৎসব সকলের। প্রত্যেকটা উৎসবে সবাই ভাইবোনের মতো কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে এই উৎসবটা উদযাপন করে যাব।’
প্রতি বছর দেশে পূজা ম-প বেড়ে যাওয়ার কথা জানিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, ‘প্রতি বছর পূজার সংখ্যা বাড়ছে। ৩০ হাজার বেশি ম-পে পুজো হচ্ছে।
‘আমাদের আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা দিনরাত অক্লানত্ম পরিশ্রম করে এখানকার নিরাপত্তা নিশ্চিত করার প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। স’ানীয় জনগণ তারাও সহায়তা করে যাচ্ছে।’
ঢাকা দড়্গিণ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র সাইদ খোকন, স’ানীয় সংসদ সদস্য কাজী ফিরোজ রশীদ চৌধুরী ও পুলিশের মহাপরিদর্শক জাবেদ পাটোয়ারী এসময় উপসি’ত ছিলেন।
রামকৃষ্ণ মিশনের পর প্রধানমন্ত্রী ঢাকেশ্বরী পূজাম-প পরিদর্শন করেন। বঙ্গবন্ধু হত্যাকা-ের পর হিন্দু সমপ্রদায়ের উপর নির্যাতনের চিত্র তুলে ধরে শেখ হাসিনা বলেন, ‘বিভিন্ন সময়ে হিন্দু সমপ্রদায়ের ওপর আঘাত হানতে দেখেছি আমি।’
তিনি বলেন, বাংলাদেশ হবে অসামপ্রদায়িক চেতনার। সব ধর্মের মানুষের সমান অধিকার নিশ্চিতে সরকার কাজ করে যাচ্ছে।
‘আমরা বাঙালি। আমরা বাঙালি হিসাবে এই দেশ স্বাধীন করেছি। আমরা চেষ্টা করেছি; আমাদের সকল ধর্মের মানুষের সদস্যার সমাধান করতে।’
মুসলিম ধর্মাম্বলীদের মতো হিন্দুদেরও হেবার মতো দান করার ব্যবস’া এবং মসজিদভিত্তিক শিড়্গার মতো মন্দিরভিত্তিক শিড়্গার ব্যবস’া চালু করার কথাও বলেন প্রধানমন্ত্রী।
ঢাকেশ্বরী মন্দিরের জমি নিয়ে বিরোধের সমস্যার সমাধান কথা উলেস্নখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আপনারা সকলে মিলে এক হয়ে কাজ করবেন।’