কক্সবাজার

‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত ৩

নিজস্ব প্রতিবেদক, কক্সবাজার

কক্সবাজারে পৃথক ঘটনায় পুলিশের সাথে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ তিনজন নিহত হয়েছেন। গতকাল শুক্রবার ভোররাতে এ বন্দুকযুদ্ধের ঘটনা ঘটে।
টেকনাফ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) প্রদীপ কুমার দাশ জানান, বুধবার ইয়াবা কারবারী নুর মোহাম্মদ ও নুরুল আমিনকে আটক করে পুলিশ। পরে তাদের নিয়ে শুক্রবার ভোররাতে অভিযানে যায় পুলিশ। টেকনাফ রাজারছড়া পাহাড়ি এলাকায় পৌঁছালে আসামিদের ছিনিয়ে নিতে একদল ইয়াবা কারবারি পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি চালায়। আত্মরক্ষার্থে পুলিশও পাল্টা গুলি চালায়। এ সময় আসামিরা পালিয়ে যেতে চাইলে তারা গুলিবিদ্ধ হয়। তখন আহতদের টেকনাফ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়া হলে চিকিৎসক তাদের মৃত ঘোষণা করেন।
নিহতরা মাদক ব্যবসায়ী নুর মোহাম্মদ টেকনাফ উপজেলার নাজিরপাড়া ও নুরুল আমিন জালিয়াপাড়া গ্রামের বাসিন্দা। এর মধ্যে নুর মোহাম্মদ ইয়াবা ব্যবসায়ী বলে জানিয়েছে পুলিশ। ঘটনাস্থল থেকে আটটি দেশীয় বন্দুক, ২০ হাজার পিস ইয়াবা ও ২০টি তাজা কার্তুজ উদ্ধার করেছে পুলিশ। এ ঘটনায় পুলিশের পাঁচ সদস্য আহত হয়েছেন।
মৃতদেহ দুটি ময়নাতদন্তের জন্য কক্সবাজার সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে উল্লেখ করে ওসি বলেন, এ ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট আইনে টেকনাফ থানায় মামলা হয়েছে। নিহত নূর মোহাম্মদের বিরুদ্ধে হত্যাসহ বিভিন্ন অভিযোগে ১০টি ও নুরুল আমিনের বিরুদ্ধে পুলিশের ওপর হামলা, সাংবাদিক হামলা মামলা, অর্থ লন্ডারিং, বিশেষ ক্ষমতা আইনসহ ৩টি মামলা রয়েছে। এদিকে, কক্সবাজার শহরের খুরুশকুল এলাকায় বন্দুকযুদ্ধে শীর্ষ সন্ত্রাসী কোরবান আলী নিহত হয়েছে।
কক্সবাজার গোয়েন্দা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ হুমায়ুন কবির জানিয়েছেন, নিহত কোরবান আলী কক্সবাজার শহরের মোহাজেরপাড়া এলাকার মোহাম্মদ হোসেনের ছেলে। সে শহরের শীর্ষ সন্ত্রাসী নিকেলের ছোট ভাই। সেও দ্বিতীয় শীর্ষ সন্ত্রাসী। কোরবান আলী পর্যটক আবু তাহের সাগর হত্যা মামলাসহ বহু মামলার পলাতক আসামি।
ওসি মোহাম্মদ হুমায়ুন কবির জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে রাতে গোয়েন্দা পুলিশের একটি টহল দল অভিযানে যান। এ সময় পুলিশের একটি দল খুরুস্কুল ব্রিজের একটু উত্তরে পৌঁছালে পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলিবর্ষণ করা হয়। পুলিশও আত্মরক্ষার্থে পাল্টা গুলিবর্ষণ করে। এ সময় সন্ত্রাসীরা পালিয়ে যায়। পরে ঘটনাস্থল থেকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় কোরবান আলীকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে একটি এলজি ও তিন রাউন্ড গুলি উদ্ধার করেছে। পুলিশ মৃতদেহটি ময়নাতদন্তের জন্য কক্সবাজার মর্গে পাঠিয়েছে।