এসএসসির প্রশ্নপত্র

ফাঁসরোধে অ্যালুমিনিয়াম ফয়েলের খাম ব্যবহার

পরীক্ষা শুরম্নর এক সপ্তাহ আগে থেকে পরীক্ষা শেষ হওয়া পর্যনত্ম কোচিং সেন্টার বন্ধ

সুপ্রভাত ডেস্ক

এসএসসি ও সমমানের পরীড়্গা সুষ্ঠু, নকলমুক্ত পরিবেশে অনুষ্ঠানে এবার নতুন পদড়্গেপ নেওয়া হয়েছে। প্রশ্নপত্রের নিরাপত্তার জন্য অ্যালুমিনিয়ামের ফয়েলের খাম ব্যবহার করা হবে বলে জানিয়েছেন শিড়্গামন্ত্রী ডা. দীপু মনি।
এছাড়াও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমসহ সব ড়্গেত্রে তীড়্গ্ন গোয়েন্দা নজরদারিও থাকবে বলে হুঁশিয়ারি দেন শিড়্গামন্ত্রী। খবর বাংলানিউজ।
আসন্ন এসএসসি পরীড়্গা উপলড়্গে রোববার (২০ জানুয়ারি) বিকেলে সচিবালয়ে জাতীয় মনিটরিং ও আইন-শৃঙ্খলা সংক্রানত্ম কমিটির সভা শেষে মন্ত্রী একথা জানান।
শিড়্গামন্ত্রীর সভাপতিত্বে সভায় শিড়্গা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী (নওফেল), মাধ্যমিক ও উচ্চ শিড়্গা বিভাগের সচিব মো. সোহরাব হোসাইন, কারিগরি ও মাদরাসা শিড়্গা বিভাগের সচিব মো. আলমগীর, শিড়্গা মন্ত্রণালয় ও বিভিন্ন শিড়্গা বোর্ডের কর্মকর্তা এবং আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপসি’ত ছিলেন।
আগামী ২ ফেব্রম্নয়ারি থেকে অনুষ্ঠেয় এসএসসি পরীড়্গায় মোট পরীড়্গার্থী ২১ লাখ ৩৭ হাজার ৩০৭ জন ও পরীড়্গা কেন্দ্র সংখ্যা ৩ হাজার ৪৯৪টি। দাখিলে মোট পরীড়্গার্থী ৩ লাখ ১০ হাজার ১১৭২ জন ও মোট কেন্দ্র ৭১১টি। আর কারিগরিতে মোট পরীড়্গার্থী ১ লাখ ২৬ হাজার ৩৭২ জন ও কেন্দ্র ৭৫৯টি।
শিড়্গামন্ত্রী বলেন, পরীড়্গা শুরম্নর এক সপ্তাহ আগে থেকে পরীড়্গা শেষ হওয়ার দিন পর্যনত্ম কোচিং সেন্টারগুলো বন্ধ থাকবে। এ হিসেবে ২৭ জানুয়ারি থেকে এবারও কোচিং সেন্টার ২৭ ফেব্রম্নয়ারি পর্যনত্ম বন্ধ।
গতবছর সরকার যে ব্যবস’া গ্রহণ করেছিল তার ফলে কোনো প্রশ্নফাঁসের ঘটনা ঘটেনি জানিয়ে দীপু মনি বলেন, অতীত অভিজ্ঞতা নিয়ে এবারের পরীড়্গাও যেন সুষ্ঠু পরিবেশে হয় এবং কোনো ধরনের প্রশ্নফাঁসের ঘটনা না ঘটে সে ব্যাপারে সব ব্যবস’া নিয়েছি।
‘এবার নিরাপত্তার খাম অ্যালুমিনিয়াম ফয়েল দিয়ে তৈরি করে দেওয়া হচ্ছে, যেটি নিশ্চিত করবে খামটি একেবারেই খোলা হয়নি। পরীড়্গার হলে যখন খোলবার কথা তার আগে খোলা হয়নি সেটি নিশ্চিত করবে।’
তিনি আরো বলেন, অতীতে যতটা না প্রশ্নপত্র ফাঁস হয়েছে তার চেয়ে বহুগুণ বেশি গুজব রটনার ঘটনা ঘটেছে। কাজেই আমরা প্রশ্নপত্র ফাঁসকারী বা গুজব রটনাকারী যদি কেউ থাকে কোনোভাবে এটি যদি শনাক্ত হয় তাদের বিরম্নদ্ধে কঠোর ব্যবস’া নেবো।
‘ইতোমধ্যেই তীড়্গ্ন গোয়েন্দা নজরদারি শুরম্ন হয়ে গেছে। কাজেই প্রতিটি পর্যায়ের সঙ্গে কোনোভাবেই কেউ যুক্ত থাকুন না কেন, যারা সম্ভাব্য বিভিন্ন ধরনের ইন্টারনেটে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ব্যবহার করে প্রশ্নপত্র ফাঁসের মতো ঘটনাগুলো অতীতে ঘটতে দেখেছি। সে সমসত্ম জায়গায় তীড়্গ্ন গোয়েন্দা নজরদারি করা হচ্ছে। তাদের ব্যাপারে আমরা কঠিন ব্যবস’া নেবো।’
নতুন সরকারের শিড়্গামন্ত্রী দীপু মনি বলেন, আমরা বিশ্বাস করি এই দেশে জঙ্গি দমন করতে পেরেছি। মাদককে দমন করবার জন্য কঠোর ব্যবস’া নেওয়া হচ্ছে। কাজেই পরীড়্গায় প্রশ্নপত্র ফাঁস যেগুলো দিয়ে আমাদের নতুন প্রজন্ম তাদের শিড়্গাজীবন নষ্ট করার অপচেষ্টা চালায় তাদের বিরম্নদ্ধেও একই ধরনের কঠোর ব্যবস’া নেবো। আশা করি কেউ কোনোভাবেই এর সঙ্গে যুক্ত হবেন না।
দীপু মনি বলেন, পরীড়্গা কেন্দ্রে সরাসরি সংশিস্নষ্ট ব্যক্তি ছাড়া আর কেউ প্রবেশ করতে পারবেন না, তিনি যেই হোন না কেন। যারা
প্রশ্নপত্র বহন করে নিয়ে যান তারাও মোবাইল ফোন ব্যবহার করতে পারবেন না। শুধু কেন্দ্রসচিব একটি মোবাইল ফোন ব্যবহার করতে পারবেন, যেটিতে কোনো ধরনের ছবি তোলা যাবে না বা ইন্টারনেট সংযোগ নেই। কেন্দ্র সংশিস্নষ্ট কেউ মোবাইল ফোন ব্যবহার করলে অত্যনত্ম কঠোর ব্যবস’া নেওয়া হবে।
এবারও পরীড়্গা শুরম্নর ৩০ মিনিট আগে প্রত্যেক পরীড়্গার্থীকে অবশ্যই হলে প্রবশে করতে হবে জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, এরপরে আর ঢুকতে দেওয়া হবে না। যদি অনিবার্য কারণবশত হয় সেড়্গেত্রে তাদের নাম, রোল, প্রবেশের সময়, দেরি হওয়ার কারণসহ সমসত্ম কিছু রেজিস্ট্রারে লিপিবদ্ধ করে সঙ্গে সঙ্গে শিড়্গাবোর্ডে পাঠাতে হবে।
ফেসবুকে গুজব রম্নখতে পদড়্গেপ সম্পর্কে মন্ত্রী বলেন, গুজব রটনা প্রতিরোধে বিটিআরসি ও তথ্য মন্ত্রণালয়ের বিশেষ সেল দায়িত্ব পালন করবে। সচেতনতামূলক তথ্য গণমাধ্যমের সহায়তার প্রচার করা হবে।
পরীড়্গার্থীদের সঠিকভাবে প্রস’তি নেওয়ার আহ্বান জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, পরীড়্গার আগে কোথাও প্রশ্নপত্র পাওয়া যায় কিনা- এ ধরনের সন্ধানে সময় নষ্ট করবেন না। কোনো অভিভাবক এ ধরনের অন্যায় প্রশ্রয় দেবেন না। পরীড়্গা কেন্দ্রের চারপাশের ১৪৪ ধারা জারি করা হবে বলেও জানান মন্ত্রী।
ঢাকা শিড়্গা বোর্ড চেয়ারম্যান মু. জিয়াউল হক বলেন, ঢাকা মহানগরীতে কেন্দ্র বিন্যাসের ড়্গেত্রে আমরা ব্যাপক পরিবর্তন করে ফেলেছি। গত দুই বছরে যে শিড়্গা প্রতিষ্ঠানগুলি যেখানে পরীড়্গা দিয়েছে আমরা সেখানে অধিকাংশই পরিবর্তন করে দিয়েছি যেখানে সম্ভাব্য কেন্দ্র পাওয়া গেছে। অনেক জায়গায় কেন্দ্র পাওয়া যায়নি সেগুলো পরিবর্তন করা সম্ভব হয়নি।