শিল্পকলায় চারুশিল্পীদের বসন্ত উৎসব

প্রাণের কলরবে যেন মিলনের মহোৎসব

আজিজুল কদির
received_1578448108936440

বসন্ত মানেই নতুন প্রাণের কলরব। বসন্ত মানেই একে অপরের হাত ধরে হাঁটা। আর তেমনি মিলনের মহোৎসবে মেতে ছিল গত ১১মার্চ শিল্পকলায় চট্টগ্রামের চারুশিল্পীরা।
‘চির যৌবন হে বসন্ত করি আহ্বান’- এই শ্লোগানে চট্টগ্রাম চারুশিল্পী সম্মিলনের সদস্যরা স্বপ্নে ও জাগরণে বসন্ত উৎসব পালন করে প্রাণজ অনুভুতি নিয়ে । চট্টগ্রাম শিল্পকলা একাডেমীর মুক্ত মঞ্চে আয়োজিত এই উৎসবটা ছিলো বাসন্তী রঙের বর্ণাঢ্যতা। রঙের উষ্ণতা ছড়িয়ে ছিল যেন পুরো শিল্পকলা প্রাঙ্গন। আর এ সাজে মন রাঙিয়ে গুন গুন করে অনেকেই গেয়ে উঠে- ‘মনেতে ফাগুন এলো…’। সেদিন চারুশিল্পীরা মেতেছিল প্রাণের হিল্লোলে। বসন্ত যে বাঙালির জীবনে কতটা বাঙ্ময় হয়ে আছে চট্টগ্রাম চারুশিল্পী সম্মিলনের প্রতি বছরের এই উৎসব যেন তাই-ই মনে করিয়ে দেয়।
চট্টগ্রাম চারুশিল্পী সম্মিলন আয়োজিত এবারের বসন্ত উৎসব দশম বর্ষে পদার্পণ করতে যাচ্ছে। মূল অনুষ্ঠানের শুরু হয় সন্ধ্যা ৬টায় নৃত্যের তালে তালে বসন্তকে বরণ করে নেয়ার মাধ্যমে। নৃতানন্দনের শিল্পীদের পরিবেশনায় বসন্তকে আহ্বানের নৃত্য ছিলো মানোমুস্ককর। ওর পরই শুরু ‘বসন্তের পংক্তিমালা’ শিরোনামে চট্টগ্রামের কবিদের সমাবেশ ও কবিতা পাঠ। স্বরচিত কবিতাপাঠে অংশ নেন কবি-স্বপন দত্ত, ফাউজুল কবির, অভিক ওসমান, খালিদ হাসান, আশীষ সেন, এজাজ ইউসুফী, রবিন ঘোষ, সাথী দাশ, রিজোয়ান মাহমুদ, আকতার হোসেন, হোসাইন কবির, পুলক পাল, সাজিদুল হক, শাহিদ হাসান, দিলরুবা খানম, আরিফ চৌধুরী, আজিজ কাজল, সারাফ নাওয়ার, সাফায়াত খান, মনিরুল মনির ও বিজন মজুমদার। এর পর আধুনিক গান পরিবেশন করেন শিল্পী অনিতা রায়, নজরুল সংগীত পরিবেশন করেন শিল্পী করবী দাশ। পঞ্চকবির গান নিয়ে মঞ্চ মাতান শিল্পী শ্রেয়সী রায়। রবীন্দ্র সংগীত করেন শিল্পী লিটন নন্দী। লোকগান পরিবেশন করেন – ডাঃ দীপংকর দে, সোলস এর জনপ্রিয় গান পরিবেশনায় ছিলেন শিল্পী আসাদুর রহমান আসাদ আমন্ত্রিত শিল্পী হিসাবে গান পরিবেশন করেন শিল্পী টিকে তারেক। বসন্তকে ঘিরে জমজমাট নৃত্য পরিবেশন করে নৃত্য সংগঠন “নৃত্যনন্দন”। পরিচালনায় ছিলেন রাজশ্রী। অনুষ্ঠান সঞ্চালনায় ছিলেন বাচিকশিল্পী ফারুক তাহের ও মৌসুমী চক্রবর্তী।