বিশ্ব জাদুঘর দিবসের আলোচনা সভা

প্রাচীন নিদর্শনগুলো সংরড়্গণ করম্নন

বিজ্ঞপ্তি

বিশ্ব জাদুঘর দিবস উপলড়্গে ১৭ মে চট্টগ্রাম ইতিহাস চর্চা কেন্দ্র ও ভ্রাম্যমান প্রত্নতত্ত্ব আলোকচিত্র মিউজিয়াম এর যৌথ উদ্যোগে চেরাগী পাহাড় মোমিন রোডস’ একটি রেস্টুরেন্টে সকাল ১১টায় ‘চট্টগ্রামের প্রাচীন প্রত্নসম্পদ রড়্গায় আমাদের করণীয়’ শীর্ষক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।
চট্টগ্রাম ইতিহাস চর্চা কেন্দ্রের সভাপতি ও ভ্রাম্যমাণ প্রত্নতত্ত্ব আলোচিত্র মিউজিয়ামের প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক সোহেল মো. ফখরম্নদ-দীনের সভাপতিত্বে এই আলোচনা সভায় অংশগ্রহণ করেন চট্টগ্রাম ইতিহাস চর্চা কেন্দ্রের প্রাক্তন সভাপতি অধ্যড়্গ ড. মোহাম্মদ সানাউলস্নাহ, প্রাক্তন সভাপতি মাওলানা রেজাউল করিম তালুকদার, চট্টগ্রাম ইতিহাস চর্চা কেন্দ্রের সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ আবদুর রহিম, এ বি এম ফয়েজ উলস্নাহ, প্রধান শিড়্গক বাবুল কানিত্ম দাশ, অধ্যাপক দিদারম্নল আলম, প্রধান শিড়্গক মহিউদ্দিন চৌধুরী, মাস্টার হাফেজ আহমদ, এম ওসমান গণি, নজরম্নল ইসলাম চৌধুরী, ইঞ্জিনিয়ার নুর হোসেন, সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী, নয়ন বড়-য়া, ডা. বিমল কানিত্ম নাথ, সাইফুল আলম, মোহাম্মদ মোবারক হোসেন, কবি শাহনুর আলম প্রমুখ।
আলোচনা সভায় বক্তারা বলেন, অবহেলার কারণে চট্টগ্রামের প্রাচীন প্রত্মনিদর্শনগুলো ধ্বংস হয়ে যাচ্ছে। চট্টগ্রাম খুবই প্রাচীন একটি জনপদ। বয়সের সীমানা এখন আড়াই হাজার বছরেরও অধিক। এ প্রাচীন চট্টগ্রামের অনেক গুরম্নত্বপূর্ণ ইতিহাস ধ্বংস হয়ে গেছে। এখনো অনেক কিছু ইতিহাসের সাড়্গী হয়ে সগৌরবে দাঁড়িয়ে রয়েছে। দুঃখজনক হলেও সত্য চট্টগ্রামের অনেক প্রাচীন প্রত্নসম্পদ প্রত্নতত্ত্ব অধিদপ্তরের অবহেলার কারণে ধ্বংস হতে চলেছে। এখনই দ্রম্নতগতিতে ব্যবস’া গ্রহণ করতে সংশিস্নষ্ট বিভাগকে আহ্বান জানান বক্তারা।
বক্তারা চট্টগ্রাম বিভাগের আরো অনেক প্রাচীন নিদর্শনসমূহ প্রত্নতত্ত্ব অধিদপ্তর কর্তৃক সংরড়্গণ ও সংস্কারের দাবি জানান। বক্তারা আরো বলেন, প্রাচীন সভ্যতার ইতিহাস, ঐতিহ্য এবং নিদর্শনগুলো বর্তমান প্রজন্মের কাছে সঠিকভাবে উপস’াপন, পাঠ্যবইয়ের অনত্মর্ভুক্তকরণ এবং যথাযথ সংরড়্গণের দায়িত্ব পালনের জন্য তথ্য ও সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়, জাতীয় জাদুঘর, প্রত্নতত্ত্ব অধিদপ্তরসহ সংশিস্নষ্ট কর্তৃপড়্গের প্রতি বিশেষ আহ্বান জানান। সভায় জাতি, ধর্ম, বর্ণ নির্বিশেষে সকলকে জাতির পুরাতন নিদর্শনসমূহের সন্ধান ও সংরড়্গণে সামর্থ্য মতো ভূমিকা রাখার অনুরোধ জানানো হয়।
সভায় বক্তারা আমাদের সভ্যতার এই প্রাচীন নিদর্শনগুলো প্রাথমিক, মাধ্যমিক ও মাদ্রাসার পাঠ্যবইয়ে সিলেবাস আকারে অনত্মর্ভুক্ত করার দাবি জানান।